জাতীয় আইসিটি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে এক্সটা
jugantor
জাতীয় আইসিটি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে এক্সটা

  আইটি ডেস্ক  

১৯ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:২৫:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্প্রতি রাজধানীর হোটেল র‍্যাডিসন ব্লুতে শেষ হলো বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস ২০১৯। উক্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কনজ্যুমার-রিটেইল অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন বিভাগে দ্বিতীয় রানারাপ হিসেবে পুরস্কার অর্জন করেছে এপ্লেক্ট্রাম সল্যুশন লিমিটেডের অনবদ্য সৃষ্টি এক্সট্রা অ্যাপ। যা বাংলাদেশের ডিজিটাল গিফট কার্ড আদান-প্রদানের সর্বপ্রথম প্ল্যাটফর্ম হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

উক্ত পুরস্কার অর্জনের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে এক্সটার ফাউন্ডার মঞ্জুরুল আলম মামুন ধন্যবাদ জানান কোম্পানির টিম, পরিবার, গ্রাহক, শুভানুধ্যায়ী, মার্চেন্ট এবং কোম্পানির এই পথচলার জড়িত সকলকে। তিনি আরও জানান, গিফট মানেই এক্সট্রা, এই প্রত্যাশা নিয়ে আমরা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি যাতে গিফট আর রিওয়ার্ড কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতাদের হাতে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন অপশন যোগ হয়।

এক্সট্রা অ্যাপের এমন একটি পুরষ্কার অর্জনের পিছনে যেসব বৈশিষ্ট্যসমুহ উঠে এসেছে তা হল: বাইরে গিয়ে গিফট কিনার ঝামেলা এড়িয়ে ঘরে বসেই এক্সট্রা অ্যাপের মাধ্যমেই মুহূর্তের ব্যক্তিগত এবং কর্পোরেট গিফট কার্ড পাঠিয়ে দেয়া যাবে। যার ফলে গিফট কিনার জন্য যে বাড়তি সময় ও টাকা খরচ হয়, তা সাশ্রয় করা যাবে।

বিয়ে, জন্মদিন, ঈদ, পূজা, পহেলা বৈশাখের মতো বিভিন্ন উৎসবের গিফট হোক কিংবা কর্পোরেট রিওয়ার্ড, সবকিছুই এখন খুব সহজেই পাঠিয়ে দেয়া যাবে এই অ্যাপের মাধ্যমে।গিফট গ্রহণকারী তার পছন্দমতো গিফট বেছে নেয়ার অনন্য সুযোগ পাবেন।

ইতিমধ্যেই এক্সট্রার মার্চেন্ট হিসেবে নাম লেখিয়েছেন স্মারটেক্স, ওরিয়ন ফুটওয়্যার, নাবিলা, রকমারি, রেমন্ড, দ্য এট্রিয়াম, খাস ফুড, মিনিস্টার, ও-কোড, চিলক্স এবং বিন্দুর মত নামকরা প্রতিষ্ঠানগুলো। শুধু তাই নয়, প্রতিনিয়তই বড় বড় ব্র্যান্ড যুক্ত হচ্ছে এক্সট্রার সাথে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এই পুরস্কারটি তুলে দেন এক্সট্রার ফাউন্ডার মঞ্জুরুল আলম মামুনের হাতে। সাথে ছিলেন এক্সটার পরিচালক মোঃ সাজ্জাত হোসেন, প্রধান বিপণন কর্মকর্তা প্রজিত কুমার দাস এবং টেকনিকাল প্রধান আবু জাফর খায়রুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তথ্য মন্ত্রী ডা. হাছান মাহমুদ ছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ও তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর এবং আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মমিনুল ইসলাম।

জাতীয় আইসিটি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে এক্সটা

 আইটি ডেস্ক 
১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্প্রতি রাজধানীর হোটেল র‍্যাডিসন ব্লুতে শেষ হলো বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস ২০১৯। উক্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কনজ্যুমার-রিটেইল অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন বিভাগে দ্বিতীয় রানারাপ হিসেবে পুরস্কার অর্জন করেছে এপ্লেক্ট্রাম সল্যুশন লিমিটেডের অনবদ্য সৃষ্টি এক্সট্রা অ্যাপ। যা বাংলাদেশের ডিজিটাল গিফট কার্ড আদান-প্রদানের সর্বপ্রথম প্ল্যাটফর্ম হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।
 
উক্ত পুরস্কার অর্জনের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে এক্সটার ফাউন্ডার মঞ্জুরুল আলম মামুন ধন্যবাদ জানান কোম্পানির টিম, পরিবার, গ্রাহক, শুভানুধ্যায়ী, মার্চেন্ট এবং কোম্পানির এই পথচলার জড়িত সকলকে। তিনি আরও জানান, গিফট মানেই এক্সট্রা, এই প্রত্যাশা নিয়ে আমরা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি  যাতে গিফট আর রিওয়ার্ড কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতাদের হাতে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন অপশন যোগ হয়।   
 
এক্সট্রা অ্যাপের এমন একটি পুরষ্কার অর্জনের পিছনে যেসব বৈশিষ্ট্যসমুহ উঠে এসেছে তা হল: বাইরে গিয়ে গিফট কিনার ঝামেলা এড়িয়ে ঘরে বসেই এক্সট্রা অ্যাপের মাধ্যমেই মুহূর্তের ব্যক্তিগত এবং কর্পোরেট গিফট কার্ড পাঠিয়ে দেয়া যাবে। যার ফলে গিফট কিনার জন্য যে বাড়তি সময় ও টাকা খরচ হয়, তা সাশ্রয় করা যাবে।  

বিয়ে, জন্মদিন, ঈদ, পূজা, পহেলা বৈশাখের মতো বিভিন্ন উৎসবের গিফট হোক কিংবা  কর্পোরেট রিওয়ার্ড, সবকিছুই এখন খুব সহজেই পাঠিয়ে দেয়া যাবে এই অ্যাপের মাধ্যমে।গিফট গ্রহণকারী তার পছন্দমতো গিফট বেছে নেয়ার অনন্য সুযোগ পাবেন।  
 
ইতিমধ্যেই এক্সট্রার মার্চেন্ট হিসেবে নাম লেখিয়েছেন স্মারটেক্স, ওরিয়ন ফুটওয়্যার, নাবিলা, রকমারি, রেমন্ড, দ্য এট্রিয়াম, খাস ফুড, মিনিস্টার, ও-কোড, চিলক্স  এবং বিন্দুর মত নামকরা প্রতিষ্ঠানগুলো। শুধু  তাই নয়, প্রতিনিয়তই বড় বড় ব্র্যান্ড যুক্ত হচ্ছে এক্সট্রার সাথে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এই পুরস্কারটি তুলে দেন এক্সট্রার ফাউন্ডার মঞ্জুরুল আলম মামুনের হাতে। সাথে ছিলেন এক্সটার পরিচালক মোঃ সাজ্জাত হোসেন, প্রধান বিপণন কর্মকর্তা প্রজিত কুমার দাস এবং টেকনিকাল প্রধান আবু জাফর খায়রুজ্জামান।  

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তথ্য মন্ত্রী ডা. হাছান মাহমুদ ছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ও তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর এবং আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মমিনুল ইসলাম।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন