সাইবার অপরাধ দমনে ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ

  ১০ মে ২০২০, ২৩:১১:১০ | অনলাইন সংস্করণ

প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশে সাইবার ক্রাইমের ঘটনা গত কয়েক বছর ধরে বাড়ছে। দুর্ভাগ্যক্রমে, আগামী বছরগুলোতেও সাইবার অপরাধের আরও বিস্তারের সম্ভাবনা রয়েছে। সাইবার অপরাধীদের বিরুদ্ধে দক্ষতার সঙ্গে লড়াই করার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ অতীতের তুলনায় এখন অনেক বেশি সক্রিয় এবং প্রস্তুত।

বাংলাদেশ পুলিশের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশন, সিটিটিসি, ডিএমপি সাইবার ক্রাইম প্রতিরোধে দেশের অগ্রণী প্রতিষ্ঠান। ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ এই বিভাগে কর্মরত একজন তরুণ প্রতিভাবান অফিসার, যিনি অনেক হাই প্রোফাইল এবং জটিল মামলা সমাধান করেছেন এবং একের পর এক সাইবার অপরাধীদের গ্রেফতার করে চলেছেন।

প্রশংসনীয় এবং মেধাবী কাজের জন্য তিনি ২০২০ সালে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি "বাংলাদেশ পুলিশ মেডেল (বিপিএম-সেবা)" অর্জন করেন। এছাড়াও ডিএমপির মাসিক অপরাধ সম্মেলনে তার দুর্দান্ত কাজের জন্য প্রায় প্রতি মাসেই তিনি বিশেষ পুরষ্কার পান।

সহকর্মীদের মধ্যে ধ্রুব একজন নির্ভরযোগ্য এবং নিবেদিত অফিসার হিসাবে পরিচিত। ডিপার্টমেন্টে সবাই তার আন্তরিকতা ও সততার প্রশংসা করলেও সাইবার অপরাধীদের মধ্যে ধ্রুব হলেন ত্রাসের নাম। তার কাজের একটু নমুনা দেখলেই এর কারণ পরিষ্কার হয়ে যাবে।

তার সমাধান করা কয়েকটি উল্লেখযোগ্য কেস হলো- দু' শতাধিক ফেসবুক আইডি হ্যাকার সনাক্তকরণ এবং গ্রেফতার, জনপ্রিয় ওয়েবসাইট বিশ্ব ডটকমের হ্যাকার সনাক্ত এবং গ্রেফতার, আড়ং মহিলা সহকর্মীদের গোপন ভিডিও প্রকাশকারী সনাক্ত এবং গ্রেফতার, জাতিরজনকের বদনামকারী সনাক্ত ও গ্রেফতার, ব্যাংক জালিয়াতিদের সনাক্ত ও গ্রেফতার, জাল নোটের জন্য বিদেশী অপরাধীদের সনাক্ত ও গ্রেফতার, এটিএম কার্ড জালিয়াতিদের সনাক্ত ও গ্রেফতার, নিষিদ্ধ সন্ত্রাসী সংগঠন নিও জেএমবি মিডিয়া বিভাগের প্রধানকে সনাক্ত ও গ্রেফতার ইত্যাদি।

ধ্রুব ১৯৮৯ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পৈতৃক নিবাস টাঙ্গাইলের মির্জাপুর। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এপ্লাইড ফিজিক্স, ইলেকট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএস এবং এমএস করেছেন। পরবর্তীতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে এমবিএ সম্পন্ন করেন।

এর আগে তিনি সেন্ট গ্রেগরী হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা পাস করেন। পড়াশোনা শেষ করার পর তিনি ৩৪ তম বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে ২০১৬ সালের ১ জুন, বাংলাদেশ পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার হিসাবে যোগদান করেন। সারদায় প্রশিক্ষণের পর ধ্রুব ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের (সিটিটিসি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগে যোগ দান করেন। বর্তমানে তিনি এই বিভাগেই সহকারী কমিশনার হিসাবে কর্মরত আছেন।

পুলিশের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বাংলাদেশে সাইবার সম্পর্কিত অপরাধ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধিতে ধ্রুব অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন। দেশের তরুণ নাগরিকদের সচেতন করার উদ্দেশ্যে তিনি নিয়মিত আলোচনা এবং প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন। সাইবার অপরাধীদের থেকে নিরাপদে থাকার জন্য পরামর্শ চাইলে ধ্রুব বলেন,

১. নিজস্ব ইন্টারনেট সুরক্ষা সম্পর্কে সতর্ক থাকুন, যেমন একটু জটিল পাসওয়ার্ড, টু-ফ্যাক্টর ভেরিফিকেশন এবং ট্রাস্টেড কন্টাক্টস ব্যবহার করুন।

২. পাসওয়ার্ড, পিন বা অন্য কোন সংবেদনশীল আর্থিক বা ব্যক্তিগত তথ্য কার সঙ্গে শেয়ার করবেন না।

৩. শুধুমাত্র নিরাপদ ওয়েবসাইটগুলো ব্রাউজ করুন।

৪. কারও সঙ্গে ব্যক্তিগত এবং অন্তরঙ্গ ছবি শেয়ার করার বিষয়ে খুব সতর্ক থাকুন।

৫. কিছু শেয়ার দেবার আগে ইন্টারনেটে প্রকাশিত তথ্যের সত্যতা যাচাই করুন।

৬. সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সৌজন্যতা বজায় রাখুন।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত