আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং পারফরম্যান্সের সমন্বয়ে হ্যালিও এস৬০

প্রকাশ : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৩:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

  আইটি ডেস্ক

আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং পারফরম্যান্সের সমন্বয়ে হ্যালিও এস৬০

বাংলাদেশের বাজারে হ্যালিও সিরিজের নতুন মডেল উন্মোচন করলো এডিসন গ্রুপ। হ্যালিও এস৬০ নামের এই নতুন মডেলটি এখনকার সবচাইতে বড় আকর্ষণ এআই বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং ফুল ভিউ নচ ডিসপ্লে। ২৫ হাজার ৯৯০ টাকার এই ফোনটির পারফরম্যান্স দেখে আসা যাক। 

ডিজাইন

প্রথমত ডিজাইন এবংবিল্ড কোয়ালিটি। সামনে নচ, কিছুটা বেজেল এবং চিন। সাইড পোর্শন এ্যালুমিনিয়াম এবংব্যাকবডি গ্লাস। বাটন পজিশন থেকে ফিংগারপ্রিন্ট বেশ ইজি এক্সেসিবল এবংবেশ ফাস্ট। এর হাইব্রিড সিমস্লটে হয় দুই সিম নাহলে এক সিম এক মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ থাকছে। 

তবে ভেজাল হচ্ছে নেই ৩.৫এমএম ইয়ারফোন জ্যাক স্লট। বক্সে এডাপ্টার থাকলেও যাদের ইয়ারফোন ইউজিং বেশি হয় তারা ব্যাপারটা মাথায় রাখবেন। সাদামাটা লুকস, ভারি অ্পিযা অ্যায়ারেন্স এবং শক্তপোক্ত বিল্ড নিয়ে বাহিরের দিকে এই ডিভাইস ঠিকঠাকই আছে।

ডিসপ্লে

৬.২ ইঞ্চ আইপিএস ডিসপ্লে প্যানেল যার এস্পেক্ট রেশিও ১৯:৯ এবং ডিসপ্লে রেজুলেশন ফুলএইচডি+ ডিসপ্লে পিপিয়াই ৪০২। সহজ ভাষায় বেশ নিউট্রাল, স্ট্যান্ডার্ড এবং শার্প একটি ডিসপ্লে এটি। কিছুটা চওড়া সাইজ এর ডিসপ্লেতে প্রোটেকশন দিচ্ছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩। বেশ আগের মডেল। তবুও ডিসপ্লে কোয়ালিটি নিয়ে কোনো কমপ্লেইন থাকছেনা একদম ঠিকঠাক।

অপারেটিং সিস্টেম

অ্যান্ড্রয়েড ওরিও ৮.১ অপারেটিং সিস্টেম। ওভারঅল সফটওয়ার এক্সপেরিয়েন্স বেশ ভালো ছিলো। হ্যালিওর নিজস্ব প্যাশন ইউ আই এবং হেভি কাস্টমাইজড রম স্মার্টফোনটির। সফটওয়্যার বাগ পাওয়া যায়নি তাই অনর্গল ব্যাবহার করা গেছে। 

হার্ডওয়্যার

হ্যালিও এস৬০তে আছে ৪ জিবি ডিডিআর ফোর র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম। চিপসেট হিসেবে আছে মিডিয়াটেক হেলিও পি৬০। আকর্ষণীয় ব্যাপার এতে হার্ডওয়ার বেইজড থ্রি ডি ফেস আনলক আছে। একটু অবাক করা ব্যাপারই বলতে হবে কারণ খুবই কম ডিভাইসে হার্ডওয়ার বেইজড ফেস আনলক আছে। তাছাড়াও আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স চিপসেট থাকার কারণে ব্যাটারি লাইফ টাও হবে মনের মতো। 

পারফরম্যান্স

অন দ্যা রিয়াল লাইফ এক্সপেরিয়েন্স কোনো ল্যাগ হ্যাং পাওয়া যায়নি। গেমিং নিয়ে বললে গ্রাফিক্স বেশ চোখ ধাধানো ছিলো। গেমপ্লেতে কোনো কড়া ল্যাগ পাওয়া যায়নি। টানা গেম খেলেও হিটআপের লক্ষণ পাওয়া যায়নি। কিন্তু এর জন্য নেটওয়ার্ক ভালো হতে হবে। অর্থাৎ নেটওয়ার্ক আপডাউন করে এমন কোথাও নরমালি ফোন গরম হবেই আর তখন গেম খেললে বা হেভি ইউজ করলে যে কোন স্মার্টফোনই এক্সেসিভ হিট হবে।