তারকাদের ভালোবাসায় দুই দশকে যুগান্তর

  বিনোদন ডেস্ক ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তারকাদের ভালোবাসায় দুই দশকে যুগান্তর

উনিশ পেরিয়ে গতকাল বিশ বছরে পা দিল দৈনিক যুগান্তর। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভক্ষণে দেশের বিনোদন জগতের তারকারা যুগান্তরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। পাশাপাশি নিজেদের পাওয়া না পাওয়ার কথাও বলেছেন। জন্মদিনের শুভলগ্নে সেই ভালোবাসা ও শুভেচ্ছার দ্বিতীয় পর্ব প্রকাশ হল আজ।

যুগান্তর আমার অন্যতম প্রিয় একটি পত্রিকা। ১৯ পেরিয়ে বিশ বছরের পা দিয়েছে পত্রিকাটি। যুগান্তর যুগ যুগ ধরে মানুষের প্রিয় পত্রিকা হিসেবে কাজ করে যাবে এটাই কামনা। যুগান্তরের সংবাদকর্মীদের জন্য আমার শুভ কামনা।

তারা যেন সুষ্ঠু ধারায় সংবাদ পরিবেশন করে সাধারণ মানুষের পাশে থাকেন। পাশাপাশি বিনোদন বিভাগের জন্যও শুভকামনা রইল। শুভ জন্মদিন যুগান্তর।

আলমগীর, চিত্রনায়ক

গণমাধ্যমকে একটি দেশের শিল্প-সংস্কৃতির ধারক ও বাহক বলা চলে। গণমাধ্যম সংস্কৃতির নানা বিষয় সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়। সে হিসেবে বিগত বছরগুলোতে যুগান্তরও তাদের সেরাটা দিয়ে আসছে। আমি যুগান্তরকে প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে পাশে পেয়ে আসছি। আশা করছি সামনের দিনগুলোতে যুগান্তরকে পাশে পাব। যুগান্তরের বিশতম জন্মদিনে শুভেচ্ছা। পাশাপাশি পত্রিকাটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি রইল শুভকামনা।

রুনা লায়লা, সঙ্গীতশিল্পী

আমরা যে গান করি তা কিন্তু সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয় গণমাধ্যম। বলা চলে গণমাধ্যমই সাধারণ মানুষকে শ্রোতা বানায়। সে হিসেবে যুগান্তরকে সবসময় কাছে পেয়েছি। এটি শুধু সঙ্গীতাঙ্গনেরই নয়, সাধারণ মানুষেরও প্রিয় পত্রিকা। দু’দশকে পা দিয়েছে পত্রিকাটি। যুগান্তরের জন্য শুভ কামনা। শুধু সঙ্গীতবান্ধব হয়ে নয়, বরং সব মানুষের সেরা পত্রিকা হয়ে থাকুক যুগান্তর।

ফেরদৌস ওয়াহিদ, সঙ্গীতশিল্পী

শূন্য থেকে কাউকে সুপারস্টার বানাতে গণমাধ্যমের অবদান অনেক। আমাদের চলচ্চিত্রে অনেক সমস্যা এখনও বিদ্যমান। আশা করি অতীতের মতো যুগান্তর চলচ্চিত্রের সঙ্গে থাকবে। সিনেমাহল কীভাবে বাড়ানো যায়, ভালো গল্প এবং নির্মাতাদের উৎসাহ প্রদানসহ বিশিষ্টজনের মতামত প্রকাশ করে যুগান্তর চলচ্চিত্রের পাশে থাকবে সবসময়। বিশতম জন্মদিনে শুভেচ্ছা।

ইলিয়াস কাঞ্চন, চিত্রনায়ক

যুগান্তর দেশের অন্যতম একটি সাহসী গণমাধ্যম এটা তো সবাই জানেন। পত্রিকাটির বিনোদন পাতায়ও বেশ গঠনমূলক লেখা প্রকাশিত হয়। বিশেষ করে দেশীয় সংস্কৃতিবান্ধব লেখা। ২০ বছরে পা রাখা একটা পত্রিকার জন্য সহজ কথা নয়। অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়। যুগান্তর সেটা করে দেখিয়েছে। এজন্য যুগান্তর পরিবার ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি রইল শুভ কামনা। জন্মদিনের শুভেচ্ছা রইল।

কবরী, চিত্রনায়িকা

এ সময়ে আমার চোখে সেরা পত্রিকাগুলোর মধ্যে যুগান্তর অন্যতম। অন্যান্য খবরের পাশাপাশি বিনোদন বিভাগও ভালো করছে। আমাদের কাজগুলো সাধারণ মানুষের কাছে তো সংবাদকর্মীরাই পৌঁছে দেন। সেদিক থেকে যুগান্তরকে আমি সবসময় কাছে পাই। গত ১৯ বছরের মতো সামনের দিনগুলোতেও নিজের সেরাটা ধরে রাখবে যুগান্তর। শুভ কামনা যুগান্তর পরিবারের জন্য।

কুমার বিশ্বজিৎ, সঙ্গীতশিল্পী

যুগান্তরের জন্মের আগে থেকেই আমি সংস্কৃতি অঙ্গনে কাজ করি। এ পত্রিকাটি শুরু থেকেই দায়িত্বশীলতার মধ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে আসছে। অন্যান্য খবরের পাশাপাশি এ পত্রিকার বিনোদন সংবাদেরও গ্রহণযোগ্যতা আছে। আমি মনে করি, যুগান্তর তার নিজস্বতার জন্য পাঠকের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সময়ের পরিক্রমায় এটি দুই দশকে পা দিয়েছে। পত্রিকাটির নানাভাবে সুস্থ সমাজ বিনির্মাণে ভূমিকা রাখছে। যুগান্তরের এ এগিয়ে যাওয়াকে আমি স্বাগত জানাই। পত্রিকাটি ভবিষ্যতে আরও উন্নতি করুক- এটাই আমার প্রত্যাশা।

তৌকীর আহমেদ, অভিনেতা, নির্মাতা

কাজের ক্ষেত্রে চলতি পথে সব সময় যুগান্তরকে সহযোগী হিসেবে পেয়েছি। পথচলায় দুই দশকে পা দিল পত্রিকাটি। তাই বলে ভাবলে চলবে না এখানেই পরিপূর্ণতা। আরও অনেক দূর এগিয়ে যেতে হবে। দেশের অন্যান্য সংবাদের পাশাপাশি সব সময় সুস্থ ধারার বিনোদনধর্মী সংবাদ প্রচারে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে পত্রিকাটি- এটাই চাওয়া। এমনিতেই যুগান্তরের বিনোদন বিভাগ সব সময় আমাকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছে। দুই দশকে পদার্পণ উপলক্ষে আশা করব যুগান্তর যেন আগামীতেও আমাদের চলচ্চিত্রের পাশে থাকে। পাশাপাশি দীর্ঘ এ পথচলায় এতগুলো বছর পেরিয়ে আসায় শুভকামনা থাকল যুগান্তর পরিবারের জন্য।

পূর্ণিমা, চিত্রনায়িকা

গণমাধ্যম তো আমাদের জগতের একটি অংশ। যুগান্তর আমার প্রিয় একটি পত্রিকা। বিশেষ করে এ পত্রিকার বিনোদন সংবাদগুলো অথেনটিক মনে হয় আমার কাছে। তারা চলচ্চিত্রের পক্ষে কাজ করছেন। সামনে আরও কাজ করবেন এ প্রত্যাশা করি। দুই দশকে পা দিয়েছে যুগান্তর। নিজের সেরাটা ধরে রাখতে সবসময় সচেষ্ট থাকবে এটাই কামনা। জন্মদিনে যুগান্তর পরিবারের জন্য শুভেচ্ছা রইল।

চম্পা, চিত্রনায়িকা

যুগান্তর আমাদের দেশের একটি প্রতিষ্ঠিত পত্রিকা। এর প্রতিষ্ঠাকালীন সম্পাদক প্রয়াত গোলাম সারওয়ার ভাইকে এই দিনে আমি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি। নিরপেক্ষ ভূমিকার কারণে সব পেশার মানুষের আস্থা অর্জন করে পত্রিকাটি আজ দুই দশকে পৌঁছেছে। এটি অবশ্যই একটি মাইলফলক। ভবিষ্যতেও যেন পত্রিকাটি সবার আস্থার প্রতীক হয়ে এগিয়ে যেতে পারে, এটাই আমার প্রত্যাশা।

জাহিদ হাসান, অভিনেতা ও নির্মাতা

আমি বলতে চাই, আমরা যেন সুস্থ চিন্তার মানুষ হই এবং শুদ্ধ চিন্তা করি। আমরা যাই করি না কেন তার ভেতর যেন শৈল্পিক একটি মনোভাব থাকে। আমাদের কাজের ভেতরে সোশ্যাল কমিটমেন্টের জায়গাটি কখনও যেন ক্ষুণ্ণ না হয়। আমাদের সামাজিক যে দায়বদ্ধতা সেটি যেন আমরা ভুলে না যাই। একটি শব্দের জন্য আরেকটি মানুষের জীবন বিপন্ন হতে পারে। সেই জায়গাগুলোতে আমাদের খুবই সাবধান থাকা উচিত। আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত সমাজ কীভাবে উন্নত হবে। মানুষ কীভাবে উন্নত হবে। এর জন্য কাজ করা উচিত। সেই প্রতিফলনটা শুধু যুগান্তর কেন যে কোনো সংবাদপত্রের বেলায়ই যেন আমরা লক্ষ্য করি। একটি সংবাদের জন্য পাঠক যেন বিপর্যস্ত না হয়, সেই দিকে যেন সংবাদপত্র না যায়- এটা খেয়াল করা জরুরি।

বিপাশা হায়াত, অভিনেত্রী

আমার পছন্দের যেক’টি দৈনিক পত্রিকা আছে তার মধ্যে অন্যতম যুগান্তর। মানুষের সবকিছুর মধ্যেও কিছু জিনিস আলাদা থাকে। যাদের জন্য ভালোবাসার পরিমাণ একটু বেশি। যুগান্তর আমার সেই অপরিসীম ভালোবাসার জায়গাজুড়ে আছে। আমার ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই পত্রিকাটি আমার পাশে ছিল; এখনও আছে। আমার মতো তাদেরও ভালোবাসায় কখনও ঘাটতি দেখিনি। সুযোগ্য চালক হিসেবে শ্রদ্ধেয় সাইফুল ভাইয়ের (ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম) নেতৃত্বে যুগান্তর যে বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে সফলতার সঙ্গে চলছে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিশতম জন্মদিনে যুগান্তর পরিবারের প্রতি রইল অকৃত্রিম ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা।

আনজাম মাসুদ, উপস্থাপক

ক্যারিয়ারে পথচলায় সবসময় যুগান্তরকে পাশে পেয়েছি। পত্রিকাটি সবসময় চেষ্টা করেছে তারকাদের পাশে থাকতে এবং সুষ্ঠু সংবাদ প্রকাশ করতে। আমি আশা করি যুগান্তর আগামী দিনগুলোতেও আমাদের পাশে থাকবে। যুগান্তর ও যুগান্তর পরিবারের জন্য শুভ কামনা।

আবদুন নূর সজল, অভিনেতা

আমি যুগান্তরের একজন নিয়মিত পাঠক। পত্রিকাটিকে আমার কাছে নিরপেক্ষ মনে হয়। শুরু থেকে এখনও এটি জনগণের পক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। আশা করি সামনের দিনগুলোয় নিজের নতুনত্ব ধরে রাখবে। সবে তো দুই দশকে পা দিল। যুগ যুগ ধরে সেরা হয়ে থাকবে যুগান্তর। শুভ জন্মদিন।

এসডি রুবেল, সঙ্গীতশিল্পী

যুগান্তরকে সবসময় কাছে পেয়েছি। বিশেষ করে আমার দুঃসময়ে এ পত্রিকাটি যেভাবে আমাকে সাপোর্ট দিয়েছে সেটা ভুলার নয়। সুস্থ ধারার বিনোদন, সংবাদ, ফিচার প্রকাশ করে এখনও সেরাদের সেরা হয়ে আছে যুগান্তর। আমি সবসময় পত্রিকাটির জন্য শুভ কামনা করি। দুই দশকে পা দিল যুগান্তর। আরও অনেক পথ বাকি। আশা করি সামনের দিনগুলোতেও যুগান্তরকে পাশে পাব।

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, অভিনেতা

একসময় চলচ্চিত্রে নিয়মিত কাজ করেছি। এখন আর অভিনয়ে আমি নিয়মিত নই, তবু যুগান্তর আমার সবসময় খবর নেয়ার চেষ্টা করেছে। আমার সর্বশেষ খবরাখবর তারা আমার ভক্ত-দর্শকদের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। ঊনিশ পেরিয়ে বিশ বছরে পা দিল যুগান্তর। অতীতে যেমন মানুষের পক্ষে থেকে কাজ করেছে, আমার বিশ্বাস সামনের দিনগুলোতেও যুগান্তর সবার পাশে থাকবে। আমাদের চলচ্চিত্রকে কীভাবে আরও উন্নত করা যায় সেজন্য পরামর্শ, মন্তব্য প্রতিবেদন প্রকাশ করে সবার দৃষ্টি কাড়বে এমনটাই প্রত্যাশা করি।

শাবনূর, চিত্রনায়িকা

ঘটনাপ্রবাহ : ২০ বছরে যুগান্তর

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×