যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়... সে হারালো কোথায় কোন দূর অজানায়

  বিনোদন ডেস্ক ২৫ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়... সে হারালো কোথায় কোন দূর অজানায়

না ফেরার দেশে চলে গেলেন ‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়’, ‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে’, ‘একতারা তুই দেশের কথা বল রে আমায় বল’, প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ’, ‘যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়’, ‘সাগরের তীর থেকে’, ‘খোলা জানালা’, ‘পারি না ভুলে যেতে’, ‘ফুলের কানে ভ্রমর এসে’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় গানের কণ্ঠশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ।

২৩ মার্চ রাতে রাজধানীর বারিধারায় নিজ বাসায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে মিডিয়াঙ্গনে। কয়েকজন সহকর্মী এ কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পীর প্রয়াণে স্মৃতিচারণ করেছেন। সেটাই তুলে ধরা হয়েছে এ আয়োজনে।

শাহনাজের মৃত্যুতে আমি শোকাহত। তার চলে যাওয়া মানে বাংলাদেশের সঙ্গীতাঙ্গনের একজন অভিভাবককে আমরা হারালাম। তাকে নিয়ে আমার একটা কষ্ট আছে। ভিন্ন রকম কষ্ট! আমি আসলেই দুর্ভাগা।

কত শিল্পীর সঙ্গে কাজ করলাম, গান বানালাম। কিন্তু শাহনাজ রহমতুল্লার সঙ্গে একটা গানের কাজ করতে পারলাম না! আমার অনেক ইচ্ছে ছিল তাকে দিয়ে একটি গান করাব। কিন্তু সে তো গান অনেক আগেই ছেড়ে দিয়েছে। তবুও চেষ্টা ছিল গান করানোর। কিন্তু সে চেষ্টা সফল হয়নি। দুর্ভাগ্য আমার।

আমার সব পাওয়ার মাঝেও এ কষ্টটা আজীবন রয়ে যাবে। মেনে নিয়েছি, সবার সব ইচ্ছে তো আর পূরণ হয় না। তার সঙ্গে স্টেজে আমি বাজিয়েছি। কিন্তু সিনেমা বা অ্যালবামে কোনো গান করতে পারিনি আমরা দু’জন মিলে।

আলম খান, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক

শাহনাজ রহমতুল্লাহ সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে আমার সহকর্মী। কিন্তু সে আমার বন্ধুর স্ত্রী। তাকে আমি শাহনাজ বলে ডাকতাম। ৮ মার্চ তার সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে। বহুদিন সে স্টেজে গান গায় না। কিন্তু ওই দিন নিজ থেকেই বলে উঠল আমি গাইব। আমি তো অবাক! ওইদিন সে ভালো গেয়েছে। তার মৃত্যু সংবাদ শুনে আমি বাকরুদ্ধ। তার চলে যাওয়া মানে প্রস্থান নয়। যেখানে থাকুক শাহনাজ ভালো থাকুক। দোয়া রইল।

খুরশিদ আলম, সঙ্গীতশিল্পী

শাহনাজ ছিল আমার ভাগনি। পেছন থেকে মামা বলে ডাক দিলেই বুঝতাম শাহনাজ ডাকছে। সে চলে গেল। বড় অভিমানী সে। বহুদিন ধরেই অভিমান বুকে নিয়ে বেঁচে ছিল। আমরা এখন দু’চারটা শোকের কথা বলছি, কিন্তু আগে তো তার খবর তেমন নেয়নি। এটাই আমাদের সংস্কৃতি। কিন্তু সঙ্গীতে শাহনাজের অবদানের কথা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। শাহনাজ আমাদের মাঝে আজীবন বেঁচে থাকবে তার সৃষ্টির মাধ্যমে। আমরা তাকে স্মরণে রাখবো আজীবন। যেখানেই থাকুক, ভালো থাকুক। আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করুন।

শেখ সাদী খান, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক

শাহনাজ চলে গেছে এ খবরটা রাতেই আমার বাসায় এসেছে। কিন্তু অসুস্থ বলে আমাকে জানানো হয়নি। আমি মানতে পারছি না আমার ছোট বোন চলে গেছে! সত্যিই খুব কষ্ট হচ্ছে। তার সঙ্গে আমার কত কথা, কত স্মৃতি। তার পরিবার আর আমার পরিবার তো কখনও আলাদা ভাবে দেখিনি। একই পরিবারের মানুষ আমরা। ভাই বোনের সম্পর্কে বোন চলে গেলে ভাইয়ের কি অবস্থা হয় তা কি করে বোঝাব? তার ক্যারিয়ার আমার গান দিয়েই শুরু। তার গানের সবকিছুই যেন আমাকে ঘিরেই। চলে যাওয়ার কথা আমার, অথচ সে চলে গেল!

গাজী মাজহারুল আনোয়ার, গীতিকবি ও চলচ্চিত্রকার

আমার সই নেই, এ কথা আমার বিশ্বাস করতে খুব কষ্ট হচ্ছে। কি বলব, আমি কোনো ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। কষ্টটা মেনে নিতে পারছি না। সই রে, তোর সঙ্গে কি এক দুই দিনের সম্পর্ক? এভাবে তুই চলে গেলি? তুই তো আমার সঙ্গে দেখা হলেই জড়িয়ে ধরতি। এখন আমাকে কে জড়িয়ে ধরবে? সই, তোর সঙ্গে তো আমার গানের সম্পর্ক ছিল না, ছিল মনের সম্পর্ক, আত্মার সম্পর্ক। কত স্মৃতি, কত কথা- কীভাবে ভুলে থাকব? তুই যেখানে থাকিস ভালো থাকিস। আমরাও আসব একদিন। তোকে যেন তখনও পাই সই।

সাবিনা ইয়াসমিন, সঙ্গীতশিল্পী

মার্চের প্রথম সপ্তাহে তার সঙ্গে আমার শেষ দেখা হয়েছিল। গুলশান ক্লাবের একটি অনুষ্ঠানে আমরা অনেকে মিলে আড্ডা দিয়েছি। আমি তার সঙ্গে সেলফি তুলেছি। আমার মনে হয়নি শাহনাজ রহমতুল্লাহ এভাবে চলে যাবেন। এখনও বিশ্বাস হচ্ছে না। তিনি আমার সহকর্মী সে হিসেবে বলছি না। বাস্তব জীবনে তিনি একজন ভালো মানুষ, একজন মিশুক মানুষ। তার এভাবে চলে যাওয়া সঙ্গীতের বড় ক্ষতি। এভাবে গানের অভিভাবকরা চলে যাচ্ছেন। জেনারেশনে একটি বিশাল গ্যাপ তৈরি হচ্ছে। সৃষ্টিকর্তা তাকে ওপারে ভালো রাখুক।

তপন চৌধুরী, সঙ্গীতশিল্পী

শাহনাজ রহমতুল্লাহ নেই বিশ্বাস করতে পারছি না। আমি কি বলব? ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। আমি যখন গানে আসলাম তখন তিনি গান ছেড়ে দিয়েছেন। সে জন্য তার সঙ্গে আমার বেশি সখ্য হয়নি। কিন্তু যতবারই দেখা হয়েছে, আমাকে খুব মায়া করতেন। তিনি এভাবে চলে যাবেন আমি কল্পনা করতে পারিনি। আমরাও তো একদিন চলে যাব। আপা যেখানেই থাকুক। দোয়া করি যেন ভালো থাকেন।

এন্ড্র– কিশোর, সঙ্গীতশিল্পী

সব শিল্পী গান করেন ঠিকই কিন্তু সব শিল্পী আদর্শ হতে পারেন না। শাহনাজ রহমতুল্লাহ একজন আদর্শ। আমি মূলত নজরুল সঙ্গীতশিল্পী। তবুও তার সঙ্গে আমার একটা আত্মার সম্পর্ক ছিল। আমি দেখেছি তরুণ প্রজন্মের প্রতি তার অনেক ভালোবাসা ছিল। তাকে আমার কাছে মমতাময়ী মায়ের মতো মনে হয়েছিল। তার এভাবে চলে যাওয়া মেনে নেয়া খুবই কষ্টের। আমি তার আত্মার শান্তি কামনা করছি।

ফেরদৌস আরা, সঙ্গীতশিল্পী

শাহনাজ রহমতুল্লাহ

জন্ম : ২ জানুয়ারি ১৯৫২

মৃত্যু : ২৩ মার্চ ২০১৯

ঘটনাপ্রবাহ : সঙ্গীতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ আর নেই

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×