প্রসঙ্গ : ভারতে কালোতালিকায় ফেরদৌস

কলকাতায় চাপে থাকবেন ঢাকার শিল্পীরা

  এফ আই দীপু ২১ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বেশ আগে থেকে কলকাতা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে ঢাকার শিল্পীরা কাজ করছেন। পাশাপাশি কলকাতার শিল্পীরাও ঢাকায় কাজ করছেন নিয়মিত। ইদানীং সেটা সমবণ্টন না হলেও ঢাকার যে ক’জন শিল্পী কলকাতায় অভিনয় সংক্রান্ত কাজের সঙ্গে জড়িত তারা সবাই সফল। যেমন- জয়া আহসান, শাকিব খান, ফেরদৌস। শাকিব খান কিছুদিন বিরতি দিলেও ফেরদৌস নিয়মিতই কলকাতার প্রডাকশনে অভিনয় করেন। আর জয়া আহসান তো রীতিমতো কলকাতায় আসন গেঁড়ে বসেছেন। এছাড়া কলকাতার স্থানীয় ছবির বাইরেও নিজ দেশের ছবির শুটিং করতে বাংলাদেশের অনেকেই ভারতে যান। এর মধ্যে বেশিরভাগই ভ্রমণ ভিসায় ভারতে গিয়ে শুটিং করে থাকেন। যেটা সম্পূর্ণ ভিসা আইন পরিপন্থি। বাংলাদেশে এরকম যারা ওয়ার্ক পারমিট ছাড়া অভিনয় করতে এসেছিলেন তাদের আটকে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ভারতে সে ধরনের ঘটনা বাংলাদেশি শিল্পীদের ক্ষেত্রে এখনও পর্যন্ত ঘটেনি। তবে সেটা এবার ঘটতে পারে বলে বিশেষ সূত্রে জানা গেছে।

ভারতে ওয়ার্ক পারমিট বিহীন শুটিং করার বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন এবার কড়াকড়ি আরোপ করতে পারে বলে জানা গেছে। এর কারণ চিত্রনায়ক ফেরদৌসের সাম্প্রতিক কালে ভারত ভ্রমণ কেলেঙ্কারী। সম্প্রতি ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের এক প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় নামার কারণে তাকে ভারত থেকে বের করে দেয়া হয়। শুধু তাই নয়, তার ভিসা বাতিল করে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে কালোতালিকাভুক্তও করেছে বলে ভারতীয় কয়েকটি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। জানা গেছে, ফেরদৌস ভারত গিয়েছিলেন ‘বিজনেস ভিসা’ নিয়ে। নির্বাচনী প্রচারণায় গিয়ে ভুলের কারণে ভিসা বাতিল হওয়ায় তিনি স্থানীয় একটি গণমাধ্যমসহ বাংলাদেশের গণমাধ্যমের কাছেও স্বীকারোক্তিতে বলেছেন, তিনি মূলত কলকাতায় শুটিং করতে গিয়েছেন। এর আগে কয়েকদিন শুটিংও করেছেন। প্রশ্ন হচ্ছে, বিজনেস ভিসায় গিয়ে কী ওয়ার্ক পারমিট ছাড়া শুটিং করতে পারেন? উত্তর হচ্ছে, না। তাহলে এটাও একটা অন্যায় এবং আইন বহির্ভূত কাজ। ফেরদৌসের এমন প্রকাশ্য কর্মকাণ্ডের জন্য বিপাকে পড়ছেন দেশি অন্য শিল্পীরা। যারা এতদিন নির্বিঘ্নে ভারতে ভ্রমণ ভিসায় গিয়ে শুটিং করে আসতেন।

ভারতীয় লোকসভা নির্বাচনে অযাচিত নাক গলানোর জন্য দেশে ফিরে ক্ষমা চাইলেও ভারত সরকার তার প্রতি কতটা সদয় হবে সেটা সময় সাপেক্ষ। কিন্তু ফেরদৌস ইস্যুতে ঢাকাই চলচ্চিত্র বোদ্ধাদের মনে এখন সংশয়, ‘অন্যান্য শিল্পীরা সেখানে গিয়ে কাজ করতে পারবে কি না?’ ঢাকাই চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট অনেকে বলছেন, ফেরদৌস মূলত ভারতের লোকসভা নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে ভুল করেছেন। আর এ ভুলের জন্য তিনি ক্ষমাও চেয়েছেন। কিন্তু তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির। এবার লোকসভা নির্বাচনে যদি আবারও বিজেপি বিজয়ী হয় তবে ঢাকাই চলচ্চিত্র শিল্পীদের সেখানে কাজ করা কঠিন হতে পারে। বিশেষ করে যারা ভ্রমণ ভিসায় গিয়ে শুটিং করে আসতেন তাদের জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন শাস্তি। ফেরদৌস না বুঝে হোক, কিংবা অর্থের বিনিময়ে হোক- আবেগে যে কাজটি করেছেন সেটি তার ক্যারিয়ার নয়, অন্যান্য শিল্পীর জন্য বড় ধরনের ক্ষতি।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক জায়েদ খান বলেন, ‘আমি বরাবরই আইন মানার পক্ষে। ভারতীয় শিল্পী, কলাকুশলী যারা বাংলাদেশে ওয়ার্ক পারমিট ছাড়া কাজ করেছেন তাদের বাংলাদেশি প্রশাসন থেকে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। অনেকে ওয়ার্ক পারমিট না থাকার কারণে ফেরতও গেছেন। তেমনিভাবে বাংলাদেশি যারা ভারতে শুটিং করতে যাবেন তারাও ওয়ার্ক পারমিট নিয়ে যাবেন। শুধু ভারত কেন, পৃথিবীর যে দেশে যে কাজেই যান না কেন, সে দেশের আইন মেনে চলতে হবে। না হলে অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে তার দায় দেশবাসী কেন নেবে? শিল্পীরা সাধারণ মানুষের আদর্শ। সুতরাং তাদের কাছ থেকে কোনো অন্যায় আশা করা যায় না। আমি শিল্পী সমিতির সদস্যদের অনুরোধ করব, আপনারা বিদেশে গেলে অবশ্যই আইন মেনে চলবেন এবং কাজ করবেন।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×