হ্যালো...

নিজেকে চার দেয়ালের মাঝে আটকে রেখেছি

  অরণ্য শোয়েব ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চিত্রনায়ক নিরব। করোনাভাইরাসের কারণে সব ধরনের কাজ বন্ধ। কবে নাগাদ শুরু হবে সেটা এখনও নিশ্চিত নয়।

কাজ বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত ছবির শুটিং নিয়েই ব্যস্ত ছিলেন এ নায়ক। হাতে ছিল কয়েকটি ছবির কাজ। এসব বিষয় নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি।

* যুগান্তর: আপনার বর্তমান অবস্থান কোথায়?

** দেশের যে অবস্থা তাতে সব ধরনের শুটিং থেকেই নিজেকে বিরত রেখেছি। করোনাভাইরাসের জন্য এখন সবাই গৃহবন্দি আছেন। তাই নিজেকে আটকে রেখেছি চার দেয়ালের মাঝে। আজ ১৩ দিন ধরে বাসায় আছি, বের হচ্ছি না কোথাও।

* যুগান্তর: সময় কাটছে কীভাবে?

** পরিবার এবং বাচ্চাদের সঙ্গে দুষ্টুমি করেই দিন যাচ্ছে। শুটিং থাকলে তো খুব একটা সময় তারা আমাকে পায় না। এখন বেশি আমাকে দেখছে, তাই খুব আনন্দও করছে। এছাড়া মাঝে মধ্যে বই পড়ছি, কাজ করছি, ব্যায়াম করছি এবং নিজেকে আরেকটু ফিট করছি।

* যুগান্তর: সর্বশেষ ব্যস্ততা কী নিয়ে ছিল?

** সৈকত নাসির পরিচালিত ‘ক্যাসিনো’ ছবির শুটিং করলাম। এছাড়া ‘তিতুমীর’ ছবির ফটোশুট করলাম এবং বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে প্লান ছিল। শুটিংয়ে যাওয়ার কথা ছিল, এরই মধ্যে দেশের ওপর করোনাভাইরাসের প্রভাব পড়ে। এখন সবকিছুই বন্ধ আছে; দেশের পরিস্থিতি বদলানো না পর্যন্ত অগ্রসর নিশ্চিত নয়।

* যুগান্তর: আপনার অভিনীত মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিগুলো নিয়ে কতটা আশাবাদী?

** ক্যাসিনোর ডাবিং বাকি আছে। রৌদ্রছায়া, অফিসার রিটার্নস ছবিগুলোর কাজ শেষ। এ ছবিগুলো সব আলাদা আলাদা ফ্লেভারের গল্প নিয়ে তৈরি। ঠিক সময়ে যদি পরিচালক এবং প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে ছবিগুলো মুক্তি দেয়া হয় তাহলে দর্শক ভালো ছবি থেকে বঞ্চিত হবেন না বলেই আমার বিশ্বাস। দর্শকরা পর্দায় দেখলেই তা বুঝতে পারবেন।

* যুগান্তর: করোনার জন্য ক্ষতিগ্রস্ত সিনেমাপাড়া কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে বলে মনে করেন?

** সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এ দুর্যোগ ও সমস্যা সারা বিশ্বের। শুধু সিনেমার ক্ষতি হবে তা নয়, সব সেক্টরই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। একটু সময় তো লাগবেই পরিবর্তন হতে। যদি দেশের পরিস্থিতি কিছুটা পরিবর্তন হয় আর মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিগুলো যথাসময়ে মুক্তি পায় তাহলে ভালো কিছু পাবে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি। তবে সেটা এখনই বলার সময় আসেনি।

* যুগান্তর: করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে করণীয় কী আছে?

** পরিবেশের এ নির্মম জবাব থেকে সৃষ্টিকর্তা অবশ্যই আমাদের মুক্তি দেবেন। আর আমার ব্যক্তিগত মতামত হচ্ছে, আমরা এখন সবাই মোটামুটি ইন্টারনেট ব্যবহার করি। সব খবর পাই। বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থা ও আমাদের সরকার যেসব পন্থা অবলম্বন করতে বলেছে তা অবশ্যই পালন করতে হবে। আইসোলেশন, হোম কোয়ারেন্টিন, সব মিলিয়ে নিজেকে সেফ রাখার জন্য সব উপায় মেনে চলতে হবে ও সতর্ক থাকতে হবে।

* যুগান্তর: একটা সময় ছোট পর্দায় কাজ করতেন, সিনেমা নাকি নাটক কোনটা বেশি ভালো লাগে?

** এটি নিয়ে আসলে বলার মতো কিছুই নেই। প্রায় দুই বছর ধরে ছোট পর্দায় কাজ করছি না। নাটক আর সিনেমার মধ্যে অনেক বড় ফারাক। এ দুটোর মধ্যে তুলনা করার কিছু নেই। আমি ছোট পর্দা থেকে উঠে এসেছি, সেখান থেকেই মাঝে মধ্যে ইচ্ছে জাগে একটু কাজ করি। দীর্ঘদিন ধরে সিনেমা করছি, তাই এ জায়গাতে মনোনিবেশ বাড়াতে চাই। অনেক কাজ করতে চাই। নিজেকে আরও অনেক দূর নিয়ে যেতে চাই। সময়ই নির্ধারণ করে দেবে শেষ পর্যন্ত আমি কোথায় যাব।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত