পঁচিশ বছর পর পপি

  আনন্দনগর প্রতিবেদক ১৫ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাস মানুষকে আতঙ্ক ও হতাশার মধ্যে ফেললেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে সামাজিক বন্ধন মজবুত করে দিয়েছে। কর্মব্যস্ততার কারণে যারা পরিবারকে সময় দিতে পারতেন না কিংবা নিজের শেকড় অর্থাৎ গ্রামের বাড়িতে যেতে পারেননি দীর্ঘদিন, এই ভাইরাস তাদের সেই আক্ষেপ মিটিয়ে দিয়েছে। পরিবারের সঙ্গে এখন অফুরন্ত সময় কাটছে অনেকের। কেউ কেউ নিজ বাড়িতে গিয়েও কাটাচ্ছেন আনন্দময় সময়। তেমনই একজন চিত্রনায়িকা পপি। সিনেমায় ব্যস্ততার পর দীর্ঘ সময় নিজ বাড়ি খুলনায় খুব বেশি সময় কাটাতে পারেননি। কিন্তু এবারই সেই খরা কেটে গেছে। লকডাউনের আগেই তিনি বিশেষ কাজে খুলনা গিয়েছিলেন। এরপর আর ফেরেননি। এই না ফেরাটা তাকে ভিন্ন আমেজের আনন্দ এনে দিয়েছে। দীর্ঘ পঁচিশ বছর পর পুরো রোজার মাস তিনি খুলনায় নিজ বাড়িতেই পার করছেন। ঈদও সেখানেই করবেন। তারপর লকডাউন খুললে ঢাকায় আসবেন। এ প্রসঙ্গে পপি বলেন, ‘সেই যে ১৯৯৫ সালে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য রাজধানীতে গিয়েছিলাম, এরপর আর গ্রামের বাড়িতে এসে রোজা পালন করার কোনোই সুযোগ ছিল না। কিন্তু এখন পরিস্থিতির শিকার হয়েই হোক কিংবা বাধ্য হয়েই হোক রোজা নিজ গ্রামের বাড়িতেই করছি। এখানে দাদা-দাদি নেই। কিন্তু চাচা-চাচি, ফুফু, কাজিনরা আছেন। বেশ ভালো সময় কাটছে আমার, আমাদের সবার। অনেক ভালোলাগা নিয়েই রোজা রাখছি। পঁচিশ বছর পর গ্রামের রোজার পরিবেশটাও নিজের মনের মধ্যে অন্যরকম ভালোলাগার পরশ বুলিয়ে যাচ্ছে। জানি এবারের ঈদ অনেকের জন্যই কষ্টের হবে। তারপরও এই কষ্টের মধ্যেই আমাদের ঈদ উদযাপন করতে হবে। যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী পাশের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। ইনশাআল্লাহ আমার বিশ্বাস, সুন্দর সময় অবশ্যই আবার আসবে ফিরে।’ এদিকে করোনাভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত অসহায় মানুষের জন্য নিজের সাধ্যমতো সহযোগিতা করছেন এ চিত্রনায়িকা।

আরও খবর
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত