হ্যালো...

কাউকে ছোট করে কেউ বড় হতে পারে না

করোনার এ আতঙ্কিত সময়েও সঙ্গীতে চলছে অস্থিরতা। সিনিয়র-জুনিয়রদের মধ্যে চলছে এক ধরনের স্নায়ুযুদ্ধ। সিনিয়রদের অসম্মান করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর প্রতিবাদ করেছেন জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী আসিফ আকবর। এজন্য তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন কেউ কেউ- এমনটাই দাবি করেছেন এ সঙ্গীতশিল্পী। তাদের মধ্যে একজন আবার আইনি ব্যবস্থাও নিয়েছেন। সঙ্গীতাঙ্গনের বর্তমান পরিস্থিতি ও নিজের ব্যস্ততা নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি

  হাসান সাইদুল ০৮ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছবি সংগৃহীত

* আতঙ্কিত করোনাকালে কেমন কাটছে আপনার দিনকাল?

** আমি ভালো আছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। নিয়মিত গান প্রকাশ করছি। প্রতি মাসেই গান প্রকাশিত হবে, সে উপলক্ষেই কাজ করে যাচ্ছি।

* কিছু সঙ্গীতশিল্পীর কারণে সম্প্রতি সঙ্গীতে সিনিয়র-জুনিয়র নিয়ে যে øায়ুযুদ্ধ চলছে, সেটা এখন অনেকটা প্রকাশ্যে। এসবের জন্য কি সঙ্গীতাঙ্গনের কেউ প্রস্তুত ছিল?

** মনে হয় না ভালো মানুষ কেউ প্রস্তুত ছিল। প্রস্তুত আমিও ছিলাম না। তবে সব সময় প্রস্তুত থাকতে হয় না। এ পথ বন্ধুর, তাই যখনই ঝামেলা তৈরি হবে তখনই তা শক্ত হাতে প্রতিহত করতে হবে। আমি আগুন, যে পথে যাই প্রলয় ঘটে। অন্যায় করি না, আর কেউ অন্যায় করলে তা সহ্যও করি না।

* এ কারণেই কি সঙ্গীতশিল্পী দিনাত জাহান মুন্নী আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন?

** জানি না উনি কী করেছেন। মামলা নাকি জিডি এগুলো আসলে তার বিষয়। আমার স্ট্যাটাসে তো তার নাম ছিল না। তবে তিনি কেন নিজের কাঁধে দায় নিলেন? এটি হচ্ছে তার মানসিকতার ব্যাপার। বাংলাদেশে ১৮ কোটি মানুষ। এখন সবাই যদি এ জায়গায় নিজেদের দাঁড় করিয়ে দেয় তাহলে তো আমার কিছু করার নেই। এ ‘দাঁড় করিয়ে’ বিষয়টি বুঝতে হবে। কেউ যদি নিজেই নিজের নাম বসিয়ে দেয় তাহলে আমি কী করব? আমার বউও তো মনে করতে পারে। তো এটা হচ্ছে তার (মুন্নীর) ভেতরের দুর্বলতা। সে অতীত ভুলে গেছে। অতীত ভুলেই কাজটা করেছে।

* কিন্তু তার অভিযোগ, আপনার পোস্টের কমেন্টে তার নাম আছে। আপনার ভক্তরা তাকে নিয়ে বাজে কথা বলছে...

** কমেন্ট তো আমি করিনি। আর আমার ফ্যানরা তো তাকে কিছু বলেওনি। ইনফেক্ট ফ্যানদের অনেকে ঘটনা সম্পর্কে ওয়াকিবহালও নয়। আর যদি কমেন্ট করেই থাকে, যারা কমেন্ট করেছে তাদের নামে তিনি মামলা করতেন?

* গণমাধ্যমেও তিনি অভিযোগ করেছেন আপনার ভক্তরা তাকে গালি দিচ্ছেন....

** আমি তো আমার পোস্টে লিখেই দিয়েছি আমার ভক্ত বা ফ্যানরা যেন সংযত আচরণ করেন। আমি তো এর বেশি করতেও পারি না। আমার তো কাজ আছে। প্রতিনিয়ত আমি গান নিয়ে থাকি।

* এখন যেহেতু বিষয়টি থানা পর্যন্ত গড়িয়েছে, প্রতিক্রিয়ায় আপনি কী করবেন?

** মামলায় তো যাওয়া উচিত ছিল আমার। আমার উকিলের সঙ্গে কথাও বলেছিলাম। আমার উকিল বলেছেন, মামলায় যাওয়ার রাইট আমার আছে। যেহেতু সে (মুন্নী) তার পোস্টে আমার নাম উল্লেখ করেছেন আমারই মামলা করা উচিত; কিন্তু আমি মামলা করিনি। আর আমি শিল্পীদের বিরুদ্ধে মামলা করতে চাইলে অনেক আগেই আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারতাম। মানহানি নয়, আমি অন্য মামলাও করতে পারি তার বিরুদ্ধে। কিন্তু সেটি করিনি। আমি দেখছি তিনি কতদূর যান।

* করোনাকালে পারিশ্রমিক ছাড়া গান গাইবেন না- এ মর্মে গুটিকয়েক সঙ্গীতকর্মী সৈয়দ আব্দুল হাদীসহ সিনিয়র কয়েকজনকে তথ্য গোপন করে ভুল বুঝিয়েছেন। জুনিয়রদের কিছু আবদার যে ভুল ছিল পরবর্তীতে হাদীও তা স্বীকার করেছেন। এটি সঙ্গীতের জন্য কতটা ক্ষতি বলে মনে করেন?

** হাদী ভাইয়ের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তার কাছে একটা চক্র কিছু তথ্য গোপন করেছিলেন। তিনি যেহেতু ফেসবুক চালান না, তাই হয়তো অনেক বিষয় তার জানাও সম্ভব হয়নি। তাই তাকে ভুল বুঝিয়ে একটা মিথ্যা লেখা লেখানো হয়েছে। আর ওই লেখা প্রকাশ হওয়ার পর অনেকেই উল্লাস করেছেন, এতে করে আরেক দফায় সিনিয়রদের বেইজ্জতি করা হল। এ বিষয়েও হাদী ভাইয়ের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে এবং তিনি যথেষ্ট ক্ষুব্ধ। এ বিষয়টির জন্যও সংশ্লিষ্টদের ক্ষমা চাইতে হবে। পুলিশ, মামলা ইত্যাদি সংস্কৃতির জন্য শুভকর নয়। যারা এসব করে বেড়ান তারা আসলে সঙ্গীতের ভালো চায় না। তাই যারা এসব করে তাদের উচিত প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে এ হেন কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে বিরত রাখা।

* চলমান পরিস্থিতিতে সঙ্গীতের ভবিষ্যৎ কী?

** যিনি কাজ করবেন তিনি টিকে যাবেন। তরুণদের উচিত গানে মনোযোগী হওয়া। অন্যের চিন্তা না করে মৌলিক গান করে নিজের ক্যারিয়ার ঠিক রাখা। একটা জিনিস মনে রাখা উচিত, ১৪-১৫ বছর ধরে যারা শো করে এসেও নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারেন না, আমার মনে হয় তারা আর দাঁড়াতে পারবেন না। নিজের পায়ে দাঁড়ানোর চেষ্টা করতে হবে। কাউকে ছোট করে কেউ বড় হতে পারে না, হবেও না।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত