বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ
jugantor
হ্যালো...
বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ

  সোহেল আহসান  

৩১ আগস্ট ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ

নাটকের পাশাপাশি সিনেমাতেও নিয়মিত অভিনয় করেন জাকিয়া বারী মম। তবে করোনাভাইরাসের প্রকোপের পর গত বছর থেকে অভিনয়ে খুব বেশি দেখা যাচ্ছে না এ অভিনেত্রীকে। অভিনয় নিয়ে বর্তমান ব্যস্ততা ও সমসাময়িক অন্যান্য বিষয় নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি।

* এখন কী নিয়ে সময় কাটছে আপনার?

** তেমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছি না। বাসাতেই অবস্থান করছি। টিভি দেখছি, বই পড়ছি এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছি।

* ঈদ এবং লকডাউন-পরবর্তী শুটিং শুরু করেছেন?

** এখনো শুটিং শুরু করিনি। আসলে করোনা প্রকোপের পুরোটা সময়ই কম কাজ করছি। আমি মনে করি, বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সুস্থ স্বাভাবিক থাকলে অনেক কাজই করা যাবে। তাই প্রচুর কাজের প্রস্তাব থাকলেও আমি সেভাবে অগ্রসর হচ্ছি না। করোনা পরিস্থিতি আরও নিয়ন্ত্রণে এলে তখন নিয়মিত কাজ করব।

* পরিস্থিতি যদি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসে তাহলে কী করবেন?

** তখন নতুন কোনো পরিকল্পনায় চলতে হবে। তবে আমি যে কম কাজ করছি, তাতে কিন্তু আমার খারাপ লাগে। কারণ অভিনয় ছাড়া অন্য কোনো কাজ করি না। এটাই আমার পেশা। তাই অভিনয়ে সময় দিতেই হবে।

* ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেন না অনেকদিন। টিভিতে এখন আপনার অভিনীত একটি ধারাবাহিক নাটক প্রচার হচ্ছে। এটি কি আগের শুটিং করা?

** না, এটি নতুন নাটক। ধারাবাহিক নাটকে আসলে গল্পের ধারাবাহিকতা থাকে না বলেই কম কাজ করি। ‘সৎমা’ নামের এ ধারাবাহিক নাটকের গল্প এত সুন্দর যে, এটিকে ফিরিয়ে দেওয়ার সুযোগ ছিল না। এর ফলাফল এখন পাচ্ছি। দর্শক বেশ ভালোভাবেই নাটকটি গ্রহণ করেছেন। ধারাবাহিক নাটক নিয়ে দর্শকের উচ্ছ্বাস এখন কম থাকলেও ভালো গল্পের ধারাবাহিক ঠিকই আগ্রহ নিয়ে দেখেন দর্শক। যার প্রমাণ এ নাটকটি। কিছুদিন পর আবার এর শুটিং করতে হবে।

* আপনার অভিনীত ‘আগামীকাল’ নামের একটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। এটি নিয়ে প্রত্যাশা কী?

** প্রতিটি কাজই আমার কাছে সন্তানের মতো মনে হয়। এ সিনেমার প্রতিও আমার তেমন অনুভূতিই কাজ করে। করোনাকালের আগে এর শুটিংসহ অন্যান্য কাজ সম্পন্ন করেছিলাম। শুনেছি সেন্সরও পেয়েছে। পরিচ্ছন্ন একটি গল্প নিয়ে সিনেমাটি তৈরি করা হয়েছে। আশা করছি এটি দর্শকের ভালো লাগবে। সিনেমার কাজেও ব্যস্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে আমার। তবে সবকিছুই নির্ভর করবে করোনা পরিস্থিতির ওপর।

হ্যালো...

বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ

 সোহেল আহসান 
৩১ আগস্ট ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ
ফাইল ছবি

নাটকের পাশাপাশি সিনেমাতেও নিয়মিত অভিনয় করেন জাকিয়া বারী মম। তবে করোনাভাইরাসের প্রকোপের পর গত বছর থেকে অভিনয়ে খুব বেশি দেখা যাচ্ছে না এ অভিনেত্রীকে। অভিনয় নিয়ে বর্তমান ব্যস্ততা ও সমসাময়িক অন্যান্য বিষয় নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি।

* এখন কী নিয়ে সময় কাটছে আপনার?

** তেমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছি না। বাসাতেই অবস্থান করছি। টিভি দেখছি, বই পড়ছি এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছি।

* ঈদ এবং লকডাউন-পরবর্তী শুটিং শুরু করেছেন?

** এখনো শুটিং শুরু করিনি। আসলে করোনা প্রকোপের পুরোটা সময়ই কম কাজ করছি। আমি মনে করি, বেঁচে থাকাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সুস্থ স্বাভাবিক থাকলে অনেক কাজই করা যাবে। তাই প্রচুর কাজের প্রস্তাব থাকলেও আমি সেভাবে অগ্রসর হচ্ছি না। করোনা পরিস্থিতি আরও নিয়ন্ত্রণে এলে তখন নিয়মিত কাজ করব।

* পরিস্থিতি যদি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসে তাহলে কী করবেন?

** তখন নতুন কোনো পরিকল্পনায় চলতে হবে। তবে আমি যে কম কাজ করছি, তাতে কিন্তু আমার খারাপ লাগে। কারণ অভিনয় ছাড়া অন্য কোনো কাজ করি না। এটাই আমার পেশা। তাই অভিনয়ে সময় দিতেই হবে।

* ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেন না অনেকদিন। টিভিতে এখন আপনার অভিনীত একটি ধারাবাহিক নাটক প্রচার হচ্ছে। এটি কি আগের শুটিং করা?

** না, এটি নতুন নাটক। ধারাবাহিক নাটকে আসলে গল্পের ধারাবাহিকতা থাকে না বলেই কম কাজ করি। ‘সৎমা’ নামের এ ধারাবাহিক নাটকের গল্প এত সুন্দর যে, এটিকে ফিরিয়ে দেওয়ার সুযোগ ছিল না। এর ফলাফল এখন পাচ্ছি। দর্শক বেশ ভালোভাবেই নাটকটি গ্রহণ করেছেন। ধারাবাহিক নাটক নিয়ে দর্শকের উচ্ছ্বাস এখন কম থাকলেও ভালো গল্পের ধারাবাহিক ঠিকই আগ্রহ নিয়ে দেখেন দর্শক। যার প্রমাণ এ নাটকটি। কিছুদিন পর আবার এর শুটিং করতে হবে।

* আপনার অভিনীত ‘আগামীকাল’ নামের একটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। এটি নিয়ে প্রত্যাশা কী?

** প্রতিটি কাজই আমার কাছে সন্তানের মতো মনে হয়। এ সিনেমার প্রতিও আমার তেমন অনুভূতিই কাজ করে। করোনাকালের আগে এর শুটিংসহ অন্যান্য কাজ সম্পন্ন করেছিলাম। শুনেছি সেন্সরও পেয়েছে। পরিচ্ছন্ন একটি গল্প নিয়ে সিনেমাটি তৈরি করা হয়েছে। আশা করছি এটি দর্শকের ভালো লাগবে। সিনেমার কাজেও ব্যস্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে আমার। তবে সবকিছুই নির্ভর করবে করোনা পরিস্থিতির ওপর।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন