মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়
jugantor
মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়

  এসএম শাফায়েত  

০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়

-চলমান সিনেমাগুলোর কাজের অগ্রগতি কী?

করোনা, লকডাউনের কারণে সবকিছুই থমকে ছিল। এখন যেহেতু সবকিছু খুলেছে, কাজও শুরু করেছি। ‘ছায়াবৃক্ষ’ নামে একটি সিনেমার কাজ শেষ করেছি। ‘প্রেম প্রীতির বন্ধন’ নামে আরেকটি সিনেমার ৭০ ভাগ কাজ হয়েছে। শিগ্গির এর বাকি কাজ শেষ করা হবে। ‘ঈসা খাঁ’ নামে একটি সিনেমার আমার অংশের শুটিং শেষ হয়েছে।

-নতুন কোনো সিনেমার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন?

কিছু সিনেমার ব্যাপারে কথা চলছে। চূড়ান্ত হলে জানাব।

-সম্প্রতি একটি প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হয়েছেন। এ ধরনের কাজ করতে কেমন লাগে?

ভালো প্রতিষ্ঠান হলে কাজ করে আনন্দ আছে। যে প্রতিষ্ঠানে সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি সেখানে আমার জন্য একটি জায়গা তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

-প্রতিষ্ঠানটি থেকে ভক্ত অনুসারীদের জন্য বিশেষ কী সুবিধা থাকছে?

সবাই জানেন আমি একজন অভিনেত্রী। সিনেমা এবং গণমাধ্যমের সুবাদে গ্রাম-বাংলার মানুষ আমাকে খুব কাছ থেকে চেনেন, জানেন, জানার চেষ্টা করেন। সেই সুবাদে আমার সুযোগ হয়েছে বাংলাদেশি একটি পণ্য গ্রাম-বাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার। দেশের অনেক মানুষের ঘরে এখনো পর্যন্ত টিভি, ফ্রিজ, এসি নেই। সিলিং ফ্যানগুলোও ততটা মানসম্মত নয়। অনেকের সাধ আছে, সাধ্য নেই হয়তো। বিশেষ করে নারী ক্রেতারা চায় গৃহস্থালির নানা সব পণ্য সুলভমূল্যে অথবা সহজ শর্তে। এ ক্ষেত্রে আমার ভক্ত অনুসারীদের জন্য শর্তটা আরও সহজ করে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কথা জানিয়েছি কোম্পানিকে। আমি প্রথম পর্যায়ে পাঁচ বছরের জন্য এ কোম্পানিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। আশা করছি, ভালো কিছু করতে পারব এখান থেকে।

-সাম্প্রতিক কিছু ইস্যু নিয়ে ঢাকাই সিনেমা বলা যায় দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে আছে। বিষয়টিকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

দেখুন, আমাদের ইন্ডাস্ট্রি সব সময়ই যে কোনো ইস্যুতে দুই ভাগেই ছিল। এটি নতুন কিছু নয়। তবে আমি বলব গুটিকতক মানুষের জন্য ইন্ডাস্ট্রির যেটুকু সুনাম আছে, সেটি নষ্ট হতে দেওয়া উচিত নয়। অবশ্যই সব সময় ভালোর সঙ্গে থাকতে হবে। ভালো ভালো সব কাজে সাপোর্ট করতে হবে। প্রকৃত শিল্পমনা এবং শিল্পীদের পাশে দাঁড়াবে হবে। তাহলেই মানুষ আমাদের ভালো বলবেন। নতুবা অচিরেই আমরা আরও গভীরে ডুবে যাব।

-আগামীকাল প্রয়াত নায়ক সালমান শাহ’র মৃত্যুবার্ষিকী। বাংলা চলচ্চিত্রের এ ক্ষণজন্ম া নায়ককে নিয়ে আপনার মন্তব্য কী?

মানুষ মাত্রই মরণশীল, এটি স্বাভাবিক ও চিরন্তন সত্য। কিন্তু অপমৃত্যু আমাদের কারও কাম্য নয়। আমরা যেন প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়মে, স্বাভাবিকভাবেই মৃত্যুবরণ করি। সালমান ভাইকে আমি পায়নি, এটি আমার সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা। ভালো লাগাটা এখানেই যে, তিনি যেখানে কাজ করেছেন আমিও একই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করি। একটা কথাই বলব-মৃত্যুর পরে নয়, মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়। যে মানুষকে ঘিরে আমরা নাম, সুনাম এতকিছু করি, সেটি যেন তিনি বেঁচে থেকেই দেখে যেতে পারেন।

মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়

 এসএম শাফায়েত 
০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়
ফাইল ছবি

-চলমান সিনেমাগুলোর কাজের অগ্রগতি কী?

করোনা, লকডাউনের কারণে সবকিছুই থমকে ছিল। এখন যেহেতু সবকিছু খুলেছে, কাজও শুরু করেছি। ‘ছায়াবৃক্ষ’ নামে একটি সিনেমার কাজ শেষ করেছি। ‘প্রেম প্রীতির বন্ধন’ নামে আরেকটি সিনেমার ৭০ ভাগ কাজ হয়েছে। শিগ্গির এর বাকি কাজ শেষ করা হবে। ‘ঈসা খাঁ’ নামে একটি সিনেমার আমার অংশের শুটিং শেষ হয়েছে।

-নতুন কোনো সিনেমার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন?

কিছু সিনেমার ব্যাপারে কথা চলছে। চূড়ান্ত হলে জানাব।

-সম্প্রতি একটি প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হয়েছেন। এ ধরনের কাজ করতে কেমন লাগে?

ভালো প্রতিষ্ঠান হলে কাজ করে আনন্দ আছে। যে প্রতিষ্ঠানে সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি সেখানে আমার জন্য একটি জায়গা তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

-প্রতিষ্ঠানটি থেকে ভক্ত অনুসারীদের জন্য বিশেষ কী সুবিধা থাকছে?

সবাই জানেন আমি একজন অভিনেত্রী। সিনেমা এবং গণমাধ্যমের সুবাদে গ্রাম-বাংলার মানুষ আমাকে খুব কাছ থেকে চেনেন, জানেন, জানার চেষ্টা করেন। সেই সুবাদে আমার সুযোগ হয়েছে বাংলাদেশি একটি পণ্য গ্রাম-বাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার। দেশের অনেক মানুষের ঘরে এখনো পর্যন্ত টিভি, ফ্রিজ, এসি নেই। সিলিং ফ্যানগুলোও ততটা মানসম্মত নয়। অনেকের সাধ আছে, সাধ্য নেই হয়তো। বিশেষ করে নারী ক্রেতারা চায় গৃহস্থালির নানা সব পণ্য সুলভমূল্যে অথবা সহজ শর্তে। এ ক্ষেত্রে আমার ভক্ত অনুসারীদের জন্য শর্তটা আরও সহজ করে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কথা জানিয়েছি কোম্পানিকে। আমি প্রথম পর্যায়ে পাঁচ বছরের জন্য এ কোম্পানিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। আশা করছি, ভালো কিছু করতে পারব এখান থেকে।

-সাম্প্রতিক কিছু ইস্যু নিয়ে ঢাকাই সিনেমা বলা যায় দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে আছে। বিষয়টিকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

দেখুন, আমাদের ইন্ডাস্ট্রি সব সময়ই যে কোনো ইস্যুতে দুই ভাগেই ছিল। এটি নতুন কিছু নয়। তবে আমি বলব গুটিকতক মানুষের জন্য ইন্ডাস্ট্রির যেটুকু সুনাম আছে, সেটি নষ্ট হতে দেওয়া উচিত নয়। অবশ্যই সব সময় ভালোর সঙ্গে থাকতে হবে। ভালো ভালো সব কাজে সাপোর্ট করতে হবে। প্রকৃত শিল্পমনা এবং শিল্পীদের পাশে দাঁড়াবে হবে। তাহলেই মানুষ আমাদের ভালো বলবেন। নতুবা অচিরেই আমরা আরও গভীরে ডুবে যাব।

-আগামীকাল প্রয়াত নায়ক সালমান শাহ’র মৃত্যুবার্ষিকী। বাংলা চলচ্চিত্রের এ ক্ষণজন্ম া নায়ককে নিয়ে আপনার মন্তব্য কী?

মানুষ মাত্রই মরণশীল, এটি স্বাভাবিক ও চিরন্তন সত্য। কিন্তু অপমৃত্যু আমাদের কারও কাম্য নয়। আমরা যেন প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়মে, স্বাভাবিকভাবেই মৃত্যুবরণ করি। সালমান ভাইকে আমি পায়নি, এটি আমার সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা। ভালো লাগাটা এখানেই যে, তিনি যেখানে কাজ করেছেন আমিও একই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করি। একটা কথাই বলব-মৃত্যুর পরে নয়, মৃত্যুর আগেই যেন সবাই তার কর্মগুণে আখ্যায়িত হয়। যে মানুষকে ঘিরে আমরা নাম, সুনাম এতকিছু করি, সেটি যেন তিনি বেঁচে থেকেই দেখে যেতে পারেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন