আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা
jugantor
হ্যালো...
আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা

  হাসান সাইদুল  

০৮ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা

আজ বিশ্ব মা দিবস। দিনটি কানাডায় অবস্থান করা একমাত্র ছেলের সঙ্গেই কাটানোর ইচ্ছা পোষণ করেছিলেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী ববিতা। কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। তবে বাস্তবে না হলেও ভার্চুয়ালি তিনি ছেলের সঙ্গেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন। পাশাপাশি মা হিসাবে সন্তানের প্রতি দায়িত্ব, কর্তব্য ও মা দিবসের তাৎপর্যসহ বিভিন্ন প্রসঙ্গ নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি

* ঈদের শুভেচ্ছা। কেমন আছেন?

** অনেক ভালো আছি। ভালোভাবেই দিন কেটে যাচ্ছে। দেশবাসীর জন্য আমার মন থেকে দোয়া ও ভালোবাসা।

* ঈদ কেমন কাটালেন?

** এবারের ঈদ একটু ভিন্নভাবে কাটালাম। অনেক বছর পর আমরা তিন বোন (ববিতা, সুচন্দা ও চম্পা) একসঙ্গে ঈদ করলাম। কেননা ঈদ এলে হয় আমি, না হয় চম্মা বা বড় আপা কেউ না কেউ দেশের বাইরে থাকে। তা ছাড়া করোনার কারণে চারটি ঈদ ঘরে বসে কাটিয়েছিলাম। কিন্তু এবারের ঈদে অনেক আনন্দ করেছি এখনো করছি। ভালো লাগছে।

* আজ বিশ্ব মা দিবস। দিনটিতে কী করছেন?

** দিনটি আমার ছেলে অনিকের সঙ্গে কাটাতে পারলে বেশি ভালো লাগত। কিন্তু সে আমার কাছে নেই তিন মাস হলো। থাকলে ভালো হতো। একসঙ্গে আজকের দিনটা ভিন্নভাবে কাটানো যেত। মা দিবস, আমার জন্মদিনে অনিক ভিন্ন আয়োজন করে। আজও তার ব্যত্যয় ঘটত না। যেহেতু আমি এখন দূরে, তাই আমার সন্তানের জন্য দোয়া করছি। সব সময়ই দোয়া করি যেন সে ভালো থাকে। আল্লাহ যেন তাকে সব সময় সুস্থ নিরাপদ রাখেন।

* সন্তানের কোন কথাটি আপনার কানে বাজে সব সময়?

** অনিকের বয়স যখন তিন বছর তখন তার বাবা মারা যান। বিষয়টি তার মনে আছে। মাঝে মাঝে সে আমাকে বলে-‘আম্মু, তুমি আমার জন্য কত সেক্রিফাইস করেছ। তোমাকে বিয়ে করতে কত মানুষ আগ্রহী ছিল। অনেকেই তোমাকে পছন্দ করত। কিন্তু আমার জন্য তুমি তা করনি। শুধু তাই নয়, অনেক কিছুই তুমি ছেড়ে দিয়েছ শুধু আমার জন্য। সব সন্তানই তো মায়ের কাছে বাবার কাছে ঋণী, কিন্তু আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা।’ তার এসব কথা আমি কখনোই ভুলতে পারি না।

* মা দিবসের ক্ষেত্রে আপনার নিজস্ব অনুভূতি কী?

** আসলে কিতাবের কথা, খোদার পরে মা। মায়ের কোনো তুলনা নেই। হাদিসে আছে, রাসূল এক সাহাবির তিনটি প্রশ্নের জবাবে বলেন, মা, মা আর মা। তারপর বাবার কথা বলেন। সে ক্ষেত্রে মায়ের কোনো তুলনা নেই। আর দিবস দিয়ে মায়ের ঋণ শোধ করা যাবে না। মাকে ভালোবাসতে হবে সারা জীবন। সব সময় সব অবস্থান থেকে।

* সন্তানের ভালোবাসায় কতটা সিক্ত আপনি?

** জীবনে আর কিছু চাওয়ার নেই। একটি প্রবাদ আছে, আমিও সমর্থন করি সেটি হচ্ছে, ‘সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে’।

* অনেক সময় দেখা যায় বৃদ্ধ বাবা-মাকে সন্তানরা বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে। বিষয়টি আপনাকে কতটা ভাবায়, কতটা কাঁদায়?

** আসলে আমি এ শব্দ বা নামটির সঙ্গে পরিচিত হতে চাই না। শব্দটি শুনলেই বুকের ভেতর কাঁপুনি আসে। পৃথিবীর সব সন্তান যেন তাদের বাবা মাকে ভালো রাখে, নিজের কাছে রাখে। পৃথিবীতে বৃদ্ধাশ্রম আমি আশা করি না। চাই না কোনো বাবা-মা বৃদ্ধাশ্রমে থাকুক।

* কানাডায় আবার কবে যাবেন?

** তিন মাস হলো এসেছি। জুনের শেষ সপ্তাহে আবার যাব।

* করোনার প্রকোপ অনেকটাই কমে এসেছে বাংলাদেশে। এ অবস্থায় কী কোনো ধরনের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার ইচ্ছা আছে?

** আমি এমনিতেই ঘর থেকে কম বের হই। করোনার মধ্যে সেটা আরও কমে গেছে। বলা যায় পুরো করোনার সময় আমি সতর্ক থেকেছি। তবে আমাদের দেশে করোনার প্রকোপ কমেছে, এটা আল্লাহর অশেষ মেহেরবানি। এ জন্য সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া জানাই। আশা করছি আমরা আর বিপদে পড়ব না।

হ্যালো...

আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা

 হাসান সাইদুল 
০৮ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা
ফাইল ছবি

আজ বিশ্ব মা দিবস। দিনটি কানাডায় অবস্থান করা একমাত্র ছেলের সঙ্গেই কাটানোর ইচ্ছা পোষণ করেছিলেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী ববিতা। কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। তবে বাস্তবে না হলেও ভার্চুয়ালি তিনি ছেলের সঙ্গেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন। পাশাপাশি মা হিসাবে সন্তানের প্রতি দায়িত্ব, কর্তব্য ও মা দিবসের তাৎপর্যসহ বিভিন্ন প্রসঙ্গ নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি

* ঈদের শুভেচ্ছা। কেমন আছেন?

** অনেক ভালো আছি। ভালোভাবেই দিন কেটে যাচ্ছে। দেশবাসীর জন্য আমার মন থেকে দোয়া ও ভালোবাসা।

* ঈদ কেমন কাটালেন?

** এবারের ঈদ একটু ভিন্নভাবে কাটালাম। অনেক বছর পর আমরা তিন বোন (ববিতা, সুচন্দা ও চম্পা) একসঙ্গে ঈদ করলাম। কেননা ঈদ এলে হয় আমি, না হয় চম্মা বা বড় আপা কেউ না কেউ দেশের বাইরে থাকে। তা ছাড়া করোনার কারণে চারটি ঈদ ঘরে বসে কাটিয়েছিলাম। কিন্তু এবারের ঈদে অনেক আনন্দ করেছি এখনো করছি। ভালো লাগছে।

* আজ বিশ্ব মা দিবস। দিনটিতে কী করছেন?

** দিনটি আমার ছেলে অনিকের সঙ্গে কাটাতে পারলে বেশি ভালো লাগত। কিন্তু সে আমার কাছে নেই তিন মাস হলো। থাকলে ভালো হতো। একসঙ্গে আজকের দিনটা ভিন্নভাবে কাটানো যেত। মা দিবস, আমার জন্মদিনে অনিক ভিন্ন আয়োজন করে। আজও তার ব্যত্যয় ঘটত না। যেহেতু আমি এখন দূরে, তাই আমার সন্তানের জন্য দোয়া করছি। সব সময়ই দোয়া করি যেন সে ভালো থাকে। আল্লাহ যেন তাকে সব সময় সুস্থ নিরাপদ রাখেন।

* সন্তানের কোন কথাটি আপনার কানে বাজে সব সময়?

** অনিকের বয়স যখন তিন বছর তখন তার বাবা মারা যান। বিষয়টি তার মনে আছে। মাঝে মাঝে সে আমাকে বলে-‘আম্মু, তুমি আমার জন্য কত সেক্রিফাইস করেছ। তোমাকে বিয়ে করতে কত মানুষ আগ্রহী ছিল। অনেকেই তোমাকে পছন্দ করত। কিন্তু আমার জন্য তুমি তা করনি। শুধু তাই নয়, অনেক কিছুই তুমি ছেড়ে দিয়েছ শুধু আমার জন্য। সব সন্তানই তো মায়ের কাছে বাবার কাছে ঋণী, কিন্তু আমি তোমার কাছে অনেক বেশি ঋণী মা।’ তার এসব কথা আমি কখনোই ভুলতে পারি না।

* মা দিবসের ক্ষেত্রে আপনার নিজস্ব অনুভূতি কী?

** আসলে কিতাবের কথা, খোদার পরে মা। মায়ের কোনো তুলনা নেই। হাদিসে আছে, রাসূল এক সাহাবির তিনটি প্রশ্নের জবাবে বলেন, মা, মা আর মা। তারপর বাবার কথা বলেন। সে ক্ষেত্রে মায়ের কোনো তুলনা নেই। আর দিবস দিয়ে মায়ের ঋণ শোধ করা যাবে না। মাকে ভালোবাসতে হবে সারা জীবন। সব সময় সব অবস্থান থেকে।

* সন্তানের ভালোবাসায় কতটা সিক্ত আপনি?

** জীবনে আর কিছু চাওয়ার নেই। একটি প্রবাদ আছে, আমিও সমর্থন করি সেটি হচ্ছে, ‘সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে’।

* অনেক সময় দেখা যায় বৃদ্ধ বাবা-মাকে সন্তানরা বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে। বিষয়টি আপনাকে কতটা ভাবায়, কতটা কাঁদায়?

** আসলে আমি এ শব্দ বা নামটির সঙ্গে পরিচিত হতে চাই না। শব্দটি শুনলেই বুকের ভেতর কাঁপুনি আসে। পৃথিবীর সব সন্তান যেন তাদের বাবা মাকে ভালো রাখে, নিজের কাছে রাখে। পৃথিবীতে বৃদ্ধাশ্রম আমি আশা করি না। চাই না কোনো বাবা-মা বৃদ্ধাশ্রমে থাকুক।

* কানাডায় আবার কবে যাবেন?

** তিন মাস হলো এসেছি। জুনের শেষ সপ্তাহে আবার যাব।

* করোনার প্রকোপ অনেকটাই কমে এসেছে বাংলাদেশে। এ অবস্থায় কী কোনো ধরনের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার ইচ্ছা আছে?

** আমি এমনিতেই ঘর থেকে কম বের হই। করোনার মধ্যে সেটা আরও কমে গেছে। বলা যায় পুরো করোনার সময় আমি সতর্ক থেকেছি। তবে আমাদের দেশে করোনার প্রকোপ কমেছে, এটা আল্লাহর অশেষ মেহেরবানি। এ জন্য সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া জানাই। আশা করছি আমরা আর বিপদে পড়ব না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন