ফুটবলের রাজপুত্র লিওনেল মেসি আমার প্রিয় খেলোয়াড়
jugantor
ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২২
ফুটবলের রাজপুত্র লিওনেল মেসি আমার প্রিয় খেলোয়াড়

   

৩০ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

‘চার বছর পরপর ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের দেশ বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিতে না পারলেও দেশের মানুষের মধ্যে কিন্তু এর আমেজ ব্যাপকভাবে লক্ষ করা যায়। আসর চলাকালীন দেশের সর্বত্রই এ নিয়ে ভক্তদেরন মধ্যে আলোচনা, তর্কবিতর্ক হয়। প্রিয় দলকে কীভাবে ওপরে রাখা যায়, তর্কটা মূলত এটা নিয়েই হয়। যেভাবেই হোক, প্রিয় দলকে ওপরে রাখতেই হবে, এমন টেন্ডেসিও অনেকের মধ্যে আছে। এটাকে আমি দোষের বলব না, বলা যায় ভক্তদের খেলা দেখার একটি সৌন্দর্য। ফুটবল বিশ্বকাপ এলে প্রিয় দলগুলো নিয়ে তর্কবিতর্ক অনেক সময় ভালোই লাগে। আমার প্রিয় দল আর্জেন্টিনা। একটা সময় শুটিং ব্যস্ততার জন্য খেলা দেখতে পারতাম না। কিন্তু সুচন্দা আপা, ববিতা আপা খেলা দেখতেন। এবার তো পরিবারের সবাই মিলে খেলা দেখি। ববিতা আপাকে খুব মিস করি; কারণ, তিনি কানাডায় অবস্থান করছেন। এখন তাকে ছাড়া আমরা খেলা দেখি। আমার প্রিয় খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। সে তো ফুটবলের রাজপুত্র। প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের চোখ ফাঁকি দিয়ে কীভাবে গোল করতে হয়, এটি তার ভালো করেই জানা। তার খেলা দেখে আমি মুগ্ধ। তবে আমার পরিবারে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল এ দুই দলে বিভক্ত। খেলা চলাকালীন তর্ক চলতেই থাকে। এবার পরিবারের দুই দলের সমর্থকদের জন্য জার্সি কেনা হয়েছে। খেলার সময় সবাইকে পছন্দের একটি খাবার সঙ্গে করে নিয়ে আসতে হবে, নিজেদের দলের জার্সি ছাড়া খেলা দেখতে নো এন্ট্রি ঘোষণা করেছি। ফুটবল বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে তর্কবিতর্কের কথা আগেও বলেছি। তবে খেলা নিয়ে আমরা যতই উন্মাদনায় ভাসি না কেন, আমি দুই দলের সমর্থকদের প্রতি অনুরোধ করছি, কোনো ধরনের বিবাদে জড়ানো যাবে না। চ্যাম্পিয়ন হবে মাত্র একটি দল। যে দল সবচেয়ে ভালো খেলবে, সে দলই চ্যাম্পিয়ন হবে, এটা মাথায় রাখতে হবে।’

লেখক : গুলশান আরা আক্তার চম্পা, অভিনেত্রী

ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২২

ফুটবলের রাজপুত্র লিওনেল মেসি আমার প্রিয় খেলোয়াড়

  
৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

‘চার বছর পরপর ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের দেশ বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিতে না পারলেও দেশের মানুষের মধ্যে কিন্তু এর আমেজ ব্যাপকভাবে লক্ষ করা যায়। আসর চলাকালীন দেশের সর্বত্রই এ নিয়ে ভক্তদেরন মধ্যে আলোচনা, তর্কবিতর্ক হয়। প্রিয় দলকে কীভাবে ওপরে রাখা যায়, তর্কটা মূলত এটা নিয়েই হয়। যেভাবেই হোক, প্রিয় দলকে ওপরে রাখতেই হবে, এমন টেন্ডেসিও অনেকের মধ্যে আছে। এটাকে আমি দোষের বলব না, বলা যায় ভক্তদের খেলা দেখার একটি সৌন্দর্য। ফুটবল বিশ্বকাপ এলে প্রিয় দলগুলো নিয়ে তর্কবিতর্ক অনেক সময় ভালোই লাগে। আমার প্রিয় দল আর্জেন্টিনা। একটা সময় শুটিং ব্যস্ততার জন্য খেলা দেখতে পারতাম না। কিন্তু সুচন্দা আপা, ববিতা আপা খেলা দেখতেন। এবার তো পরিবারের সবাই মিলে খেলা দেখি। ববিতা আপাকে খুব মিস করি; কারণ, তিনি কানাডায় অবস্থান করছেন। এখন তাকে ছাড়া আমরা খেলা দেখি। আমার প্রিয় খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। সে তো ফুটবলের রাজপুত্র। প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের চোখ ফাঁকি দিয়ে কীভাবে গোল করতে হয়, এটি তার ভালো করেই জানা। তার খেলা দেখে আমি মুগ্ধ। তবে আমার পরিবারে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল এ দুই দলে বিভক্ত। খেলা চলাকালীন তর্ক চলতেই থাকে। এবার পরিবারের দুই দলের সমর্থকদের জন্য জার্সি কেনা হয়েছে। খেলার সময় সবাইকে পছন্দের একটি খাবার সঙ্গে করে নিয়ে আসতে হবে, নিজেদের দলের জার্সি ছাড়া খেলা দেখতে নো এন্ট্রি ঘোষণা করেছি। ফুটবল বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে তর্কবিতর্কের কথা আগেও বলেছি। তবে খেলা নিয়ে আমরা যতই উন্মাদনায় ভাসি না কেন, আমি দুই দলের সমর্থকদের প্রতি অনুরোধ করছি, কোনো ধরনের বিবাদে জড়ানো যাবে না। চ্যাম্পিয়ন হবে মাত্র একটি দল। যে দল সবচেয়ে ভালো খেলবে, সে দলই চ্যাম্পিয়ন হবে, এটা মাথায় রাখতে হবে।’

লেখক : গুলশান আরা আক্তার চম্পা, অভিনেত্রী

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন