আমি আবারও চমক দেখাতে প্রস্তুত

নব্বই দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। ১৯৭৭ সালে ‘বসুন্ধরা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয়ে তার আত্মপ্রকাশ। এরপর থেকে অসংখ্য ব্যবসাসফল ছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন। সম্প্রতি ২৯ বছর পর নিজের অভিনীত বহুল আলোচিত ও ব্যবসাসফল ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ ছবির নায়িকা অঞ্জু ঘোষের সঙ্গে এফডিসিতে তার দেখা হয়। পুরনো স্মৃতি ও বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেন তিনি

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক   

* বর্তমানে কী নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

** আগের মতো ছবিতে অভিনয় করি না। চিত্রনায়িকা ববির অনুরোধে ‘বিজলী’ ছবিতে এ বছর অভিনয় করেছি। সম্প্রতি মাতিয়া বানু শুকুর রচনায় ও রোকেয়া প্রাচীর পরিচালনায় আমি ও চম্পা ‘সোনালি দিন’ নামে একটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেছি। এ ছাড়াও ‘বাংলার ফাটাকেষ্ট’ নামক একটি চলচ্চিত্রে কাজ করেছি।

* ২৯ বছর পর জোছনাকে দেখার অনুভূতি কেমন ছিল?

** মনে হয় ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ শুটিং স্পটে আছি। জোছনাকে ঠিক আগের মতোই দেখতে পেলাম। কিন্তু তার কণ্ঠে পরিবর্তন শুনতে পেয়েছি। পুরনো অনেক স্মৃতি মনে পড়ে গিয়েছিল। অঞ্জু ঘোষকে দেখে অবশ্যই খুব ভালো লেগেছিল, কিন্তু খুব কান্নাও পেয়েছিল। কারণ আমরা যারা ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ ছবিতে কাজ করেছি তাদের মধ্যে কয়েকজন বোধ হয় বেঁচে আছি।

* অপেক্ষা করানোর জন্য জোছনার প্রতি প্রতিশোধের আগুনটা কী নিভেছে?

** (হা হা হা) ঠিক ধরেছেন। ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ ছবিতে ওর জন্য অনেক অপেক্ষা করেছিলাম। সে আমার জন্য অপেক্ষা করেনি। তাই ২৯ বছর পর আমিও সেদিন এফডিসিতে একটু দেরি করে গিয়েছি তার সঙ্গে দেখা করতে। আমি তার জন্য গান গেয়েছিলাম, ‘আসি আসি বলে জোছনা ফাঁকি দিয়েছে’ সেদিন। এ জন্য দেরি করে গিয়েছি যেন জোছনা গেয়ে ওঠে, ‘আসি আসি বলে আমার রাধা কেন আসে না’।

* অঞ্জু ঘোষ ও আপনাকে নিয়ে ‘জোছনা কেন বনবাসে’ নামে ছবি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন নাদের খান। আপনি কী অভিনয় করবেন?

** আসলে নাদের খান মৌখিক ঘোষণা দিয়েছে। তাছাড়া গল্পও তৈরি হয়নি। মন মতো গল্প হলে এবং নাদের যদি চায় অবশ্যই অভিনয় করব।

* আপনি কি মনে করেন আগের মতো অভিনয়ে চমক দেখাতে পারবেন?

** অভিনয় করার আগ্রহ এবং ইচ্ছা আমার আজও আগের মতো আছে। পাশের দেশ ভারতের অমিতাভ বচ্চন এখনও অভিনয় করেন। শাহরুখ খান, সালমান খানের বয়সও কম নয়। তারাও ছবিতে অভিনয় করছেন। তাদের পরিচালকরা ব্যবহার করছেন। ছবি বানাচ্ছেন এবং সে ছবি ব্যবসাসফলও হচ্ছে। আমাদের মধ্যে অনেকই আছেন যারা দক্ষ অভিনেতা। তাদের আমাদের পরিচালকরা ব্যবহার করতে পারেন। আমি গর্ব কর বলতে পারি এ বাংলদেশেই আমার ছবি দেখতে হলে উপচে পড়া ভিড় ছিল। পরিচালকরা বাণিজ্যিকভাবে সফল হয়েছেন। আমি ভালো, মৌলিক গল্পের ছবিতে অভিনয় করে আবারও চমক দেখাতে পারব। এটা আমার বিশ্বাস। এ জন্য আমি প্রস্তুত!।

হাসান সাইদুল