মুরাদনগরে নেয়া হচ্ছে ১০ হাজার টাকা

এসএসসিতে অকৃতকার্যদের ফরম পূরণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালা তোয়াক্কা করা হচ্ছে না

  সুমন সরকার, মুরাদনগর ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালাকে তোয়াক্কা না করে উপজেলার টনকি হানিফ সরকার উচ্চবিদ্যালয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ওই বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থী এবং অভিভাকরা। এ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের নেতৃত্বে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট এ কাজ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়ে প্রতিবাদ করা হলেও বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এ দিকে অকৃতকার্যদের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে আদায় করে পরীক্ষার সুযোগ করে দেয়ায় এ নিয়ে এলাকায় বেশ তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা প্রতিকার চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের ফি নির্ধারণ করে দেয়। বিজ্ঞান শাখায় ১৭৫০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শাখায় ১৬৫০ টাকা। এর বাইরে অতিরিক্ত কোনো ফি আদায়ের সুযোগ নেই। জানা যায়, টনকি হানিফ সরকার উচ্চবিদ্যালয়ে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন ১৫১ জন, তাদের মধ্যে পাস করেন ৪০ জন, কিন্তু এই স্কুল থেকে আসন্ন এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবেন ১১০ জন পরীক্ষার্থী। ফেল করা অধিকাংশ পরীক্ষার্থী মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে ফরম পূরণ করেছেন। তাদের মধ্যে ২০ জন জানে না তারা কোন বিষয়ে এবং কয়টি বিষয়ে ফেল করেছে। ওই ২০ জনের প্রত্যেকের কাছ থেকে ১০ হাজার করে আদায় করা হয়েছে ২ লাখ টাকা। নির্বাচনী পরীক্ষার ফল প্রকাশের আগে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ওঠানো হয়েছে টাকা। মাথাপিছু ফরম পূরণের জন্য নেয়া হয়েছে ৪ হাজার পাঁচশ টাকা। সঙ্গে ফেল করা ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে নেয়া হয়েছে জামানতের কথা বলে অতিরিক্ত পাঁচ হাজার টাকা। এছাড়া কোনো শিক্ষার্থী যদি এক বিষয়ের বেশি ফেল করে তাকে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে দেয়া যাবে না মর্মে বোর্ড কর্তৃক প্রত্যেক স্কুলে চিঠি দেয়া আছে। প্রধান শিক্ষক জয়নাল মিয়া স্কুল কমিটিকে সঙ্গে নিয়ে গড়ে তুলেছেন এই রমরমা ফরম বাণিজ্য। শুধু ব্যবস্থাপনা কমিটি ও প্রধান শিক্ষকই জানেন শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফলাফল।

পরীক্ষার্থী সুকান্ত, সোনিয়া, আক্তার, আল-আমিন, তানিয়া আক্তার, আমানউল্লা, সুমন মিয়া, ওমর ফারুক, রনি, ইয়াসমিন, রবিউল, নুরুন্নাহার, আবদুল আলিম, রাসেল, হৃদয় জানায়, তারা প্রত্যেকে ১০ হাজার ২০০ টাকা করে দিয়েছে ফরম পূরণের জন্য। এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক জয়নাল মিয়ার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, আমরা ১১০ জনকে ফরম পূরণ করিয়েছি। তার মধ্যে ৮০ জন সব বিষয়ে পাস করেছে। চলতি মাসের ৫ তারিখ ঘোষণা করা হয় নির্বাচনী পরীক্ষার ফলাফল। নির্বাচনী পরীক্ষার রেজাল্ট শিট দেখতে চাইলে তিনি আধঘণ্টা বসিয়ে রেখে আর দেখাননি। তারপর বাইরে থেকে মোবাইল ফোনে কথা বলে এসে সাংবাদিকদের বলেন, আপনারা আমাদের স্কুল সভাপতি ও শিক্ষক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, ইউএনও’র সঙ্গে কথা বলেন। তারা আমার স্কুলের ফরম পূরণের বিষয়ে অবগত আছেন। মুরাদনগর মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি তাজুল ইসলাম বলেন, ২০১৯ সালে এসএসসি পরীক্ষার জন্য সরকার যা নির্ধারণ করে দিয়েছে বোর্ড ফি তার বাইরে নেয়ার কোনো সুযোগ নেই। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সফিউল আলম তালুকদার বলেন, আমি এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাইনি। অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে ফরম পূরণ করেছেন বলে এমন কোনো অভিযোগ পাই তাহলে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিতু মরিয়ম বলেন, হানিফ সরকার উচ্চ বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছেন এমন একটি অভিযোগ পেয়েছি। আমি ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষককে চিঠি দিয়ে জানিয়েছি এক বিষয়ে অনুত্তীর্ণ হয়ে এমন কোনো শিক্ষার্থীকে যেন ফরম পূরণ করানো না হয়। সর্বোচ্চ ১,৮০০ টাকার বেশি নেয়ার প্রশ্নই আসে না। যদি ওই স্কুল ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে থাকে তাহলে ওই স্কুলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×