ভোট প্রদানে বাধা দেয়ার অভিযোগ

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অভিযোগ

ভোটের আগের রাতেই চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে আওয়ামী লীগের শরিক তরিকত ফেডারেশনের প্রার্থী নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী প্রায় ১২০টি কেন্দ্রে ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ব্যালটে নৌকা মার্কায় সিল মেরে বাক্স ভর্তি করে রেখেছিলেন।

রোববার দুপুর ২টায় মাইজভাণ্ডারের নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে এমন অভিযোগ করেন ইসলামী ফ্রন্ট প্রার্থী (মোমবাতি) সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমদ মাইজভাণ্ডারী।

তিনি বলেন, সকালে উপজেলার নারায়ণহাট হাপানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আমার নিয়োজিত পোলিং এজেন্ট নাইম উদ্দিনকে দায়িত্ব পালনে বাধা দেয়া হয়। এ কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ার প্রতিবাদ করে চ্যালেঞ্জ করলে প্রিসাইডিং অফিসার অভিযোগটি গ্রহণে অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর সন্ত্রাসীরা তাকে জোরপূর্বক কেন্দ্র থেকে বের হয়ে যাওয়ার হুমকি দিলে নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে সকাল ৮টা ৪০ মিনিটে কেন্দ্র ত্যাগ করেন তিনি।

এছাড়া তিনি উপজেলার ফটিকছড়ি পৌরসভা, বাগানবাজার, দাতমারা, নারায়ণহাট, কাঞ্চননগর, পাইন্দং, সুন্দরপুর নাজিরহাট পৌরসভা, নানুপুর, বক্তপুর, সমিতিরহাট, জাফত নগর, রোসাংগীরি, আবদুল্লাপুর ভোট কেন্দ্রসহ ১২০টিরও অধিক কেন্দ্রে সরকারদলীয় লোকজন প্রশাসনের সহায়তায় নিজ হাতে ব্যালট পেপারে নৌকা মার্কায় সিল মেরে ব্যালট বক্সে ঢুকিয়ে দেয়।

সরেজমিন বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শনে তিনি কর্মীদের অভিযোগের সত্যতা পান বলে দাবি করেন। তিনি বলেন, প্রশাসনের সহায়তায় সরকারি দলের সন্ত্রাসী বাহিনীর দাপটে সাধারণ ভোটাররা কেন্দ্রের বাইরে নিরীহভাবে দাঁড়িয়ে থেকে এ দৃশ্য অবলোকন করেন। তাদের করার কিছুই ছিল না। যেসব ভোটার ভোট কেন্দ্রে গেছেন তাদের হাতের আঙুলে অমোচনীয় কালি লাগিয়ে দিয়ে তোমাদের ভোট দেয়া হয়ে গেছে বলে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ করেন এই প্রার্থী।

এদিকে বেলা ১১টার দিকে শেখের খিল এলাকার দারুস সালাম মাদ্রাসা, পৌর এলাকার ৫নং ওয়ার্ডের রুহুল্লাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাইরাং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চাম্বলের বাংলাবাজার এলাকার একটি কেন্দ্রে ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা। এতে ওইসব কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি কমে যায়।

অন্যদিকে পূর্ব বৈলগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ সাধনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাইরাং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ভোটার উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম। এছাড়া প্রেমাশিয়া, খানখানাবাদ, গুনাগরি, চাপাছড়ি ও সরল এলাকায় ভোটাদের উপস্থিতি ছিল বেশি। পূর্ব বৈলগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আমীর হোসেন নামে এক ভোটার জানান, তিনি নিজের ভোটটিও দিতে পারেননি। নিজের ভোট দিতে না তার মতো অনেকে ফিরে গেছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : চট্টগ্রাম-২: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×