চাটমোহরের অধিকাংশ সড়ক বেহাল

  চাটমোহর প্রতিনিধি ২০ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সড়ক

সংস্কারের অভাবে পাবনার চাটমোহর উপজেলার বেশিরভাগ সড়ক বেহাল। খানাখন্দে ভরপুর সড়কে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন পথচারীরা। প্রায়ই ঘটছে প্রাণহানিসহ ছোট-বড় দুর্ঘটনা। সঙ্গে রয়েছে ধুলো-বালির উপদ্রব। এতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন উপজেলার লাখ লাখ সাধারণ মানুষ।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পৌর শহরের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনকারী সড়ক ও জনপদ বিভাগের রাস্তার মধ্যে ভাদ্রা বাইপাস থেকে হাসপাতাল পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার, বাসস্ট্যান্ড থেকে হরিপুর হয়ে সোন্দভা বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার, জারদ্রিস মোড় থেকে পার্শ্বডাঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ১৪ কিলোমিটার, চাটমোহর-মান্নাননগর সড়কের প্রায় ২০ কিলোমিটার, চাটমোহর থেকে ধানকুনিয়ার প্রায় ৫ কিলোমিটার, মথুরাপুর বাজার থেকে কাঁটাখালি বাজার পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার, মূলগ্রাম ইউনিয়নের রেলবাজার এলাকা থেকে শাহপুর হয়ে ক্ষতবাড়ি পর্যন্ত প্রায় ১৫ কিলোমিটার রাস্তা একেবারেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

অপরদিকে এলজিইডির আওতাধীন বেশকিছু গ্রামীণ সড়কেরও বেহাল অবস্থা। এসব সড়ক দিয়ে চলাচলে সময় অপচয় হওয়ার পাশাপাশি বেশি ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের। বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও অসুস্থ রোগীদের। অথচ দেখে বোঝার উপায় নেই, একসময় মসৃণ পিচের আস্তরণে ঢাকা ছিল সড়কগুলো!

হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন বলেন, রাস্তা সংস্কারের কথা বলতে বলতে হয়রান হয়ে গেছি। এখন বলা বাদ দিয়েছি। দীর্ঘদিন ধরে শুনে আসছি টেন্ডার হয়েছে। কিন্তু কাজ শুরু হয় না। জানতে চাইলে পাবনা সড়ক ও জনপদ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী সমীরণ রায় বলেন, ইতিমধ্যেই কিছু রাস্তার কাজ শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব রাস্তা সংস্কার করা হবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×