উখিয়ায় ২৩ স্কুলে রোহিঙ্গা শিক্ষার্থীদের বাংলা শিক্ষা

প্রকাশ : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

উখিয়ার কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে ২৩টি বিদ্যালয়ে (প্রাথমিক ও মাধ্যমিক) রোহিঙ্গা শিক্ষার্থীদের বাংলা শিক্ষা দিচ্ছে এনজিও সংস্থা কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার ‘কোডেক’। এ নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহলের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিলেও প্রশাসনের কোনো খবর নেই। যার ফলে এনজিও সংস্থা দেশের মাটিতে বিদেশি নাগরিকদের বাংলা শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। তবে বুধবার স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকায় এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে শিক্ষিত সমাজের লোকজন এ প্রতিবেদনের জন্য প্রতিবেদক এবং পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানান।

সরজমিন উখিয়ার কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্প ঘুরে ‘কোডেক’ পরিচালিত শিক্ষা কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করে দেখা যায় রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে তাদের ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ও ৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এতে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান চলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আর ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও চলছে নিয়মিত পাঠদান। এসব বিদ্যালয়ে নিয়মিত পাঠদান দেয়ার জন্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে রোহিঙ্গার পাশাপাশি স্থানীয় ছেলেমেয়েদের। তবে অভিযোগ উঠেছে, এসব বিদ্যালয়ে পাঠ্যবই হিসেবে দেয়া হয়েছে বাংলা কারিকুলামের সরকারি বিভিন্ন পাঠ্যবই। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর পাঠ্যবইয়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে না প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক বলেন, শিক্ষা অফিস থেকে তারা বইগুলো সংগ্রহ করে রোহিঙ্গা শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করেছেন। এর বেশি কিছু জানতে হলে কোডেকের কর্মকর্তা জাহেদের সঙ্গে যোগাযোগ করার কথা বলেন তিনি। এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার ‘কোডেক’-এর শিক্ষা প্রকল্পের প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর মো. জাহেদ বলেন, কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পরিচালিত ‘কোডেক’-এর ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এছাড়া ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত বিদ্যালয় রয়েছে ৩টি। এসব বিদ্যালয়ে কোনো প্রকার বাংলা কারিকুলামে শিক্ষা দেয়া হচ্ছে না। তবে আরআরআরসি দেয়ার নিয়ম অনুযায়ী শিক্ষা দেয়া হচ্ছে রোহিঙ্গা ছেলেমেয়েদের।

পাঠ্যবইয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি অফিসে চায়ের দাওয়াত দিয়ে ফোন কেটে দেন। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সুব্রত কুমার ধর জানান, রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে রোহিঙ্গা ছেলেমেয়েদের বাংলা শিক্ষা দেয়ার ব্যাপারে একটি অনুমতিপত্র ছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সরকারি পাঠ্যবই সরবরাহ দিয়েছি রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে কর্মরত ‘কোডেক’ নামের একটি এনজিও সংস্থাকে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হলে একটু সময় দিতে হবে আমাকে যেহেতু নতুন কোনো পরিপত্র আছে কিনা দেখতে হবে।