আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনাবাসিক নবীনরা

জাবিতে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু কাল

  রাহুল এম ইউসুফ, জাবি ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগর। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে হলে সিট খালি হওয়া সাপেক্ষে ভর্তি করা হয় নবীন শিক্ষার্থীদের। কিন্তু সেই নবীনরাই এবার উপেক্ষিত। এ বছর নবীন শিক্ষার্র্থীরা হলে সিট বরাদ্দ পাচ্ছেন না। কারণ হলে সিট খালি নেই! এ যেন ‘আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনাবাসিক চিত্র’। হল প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তা ও অবহেলায় আর শিক্ষার্থীদের সদিচ্ছার অভাবে এমন নাজুক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা। চলতি মাসের ১৪ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়- ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হবে। কিন্তু প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের হলে সিট বরাদ্দ দেয়া হবে না। এর ফলে নবীন শিক্ষার্থীরা আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও সেই সুবিধা পাবেন না।

প্রতি বছর নবীন শিক্ষার্থীরা হলের রিডিং রুম, হল সংসদ ও নির্দিষ্ট কয়েকটি রুমে (গণরুমে) অবস্থান করে। কিন্তু ছেলেদের ৮টি হল ঘুরে দেখা যায়, সব হলের গণরুমে এখনও ৪৭ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছেন। ফলে ৪৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা কোথায় থাকবেন সেটা এখনও প্রস্তুত করেনি প্রশাসন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মেয়েদের হলে দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক ও হল প্রশাসনের পর্যাপ্ত কর্তৃত্ব রয়েছে। ফলে এ হলগুলোতে সিট সংক্রান্ত বিষয়াদি হল প্রশাসনই তদারকি করে। ফলে সেখানে সিট সংকট থাকলেও রয়েছে সিট ব্যবস্থাপনা।

কিন্তু এর উল্টো চিত্র ছেলেদের হলে। ছেলেদের ৮টি হলে হল প্রশাসনের ‘বিন্দুমাত্র কর্তৃত্ব’ নেই বললেই চলে। যেটুকু রয়েছে তা হল স্বাক্ষরদান ও হল অফিস পরিদর্শন। এছাড়া সিট ও শিক্ষার্থীদের সুবিধা-অসুবিধা সংক্রান্ত কোনো কাজে শিক্ষকরা তদারকি করেন না। কিন্তু হলের মধ্যে বড় কোনো ঝামেলা হলেই কেবল দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের দেখা মেলে।

জানা যায়, ছেলেদের সবক’টি হলেই ৪০ ও ৩৯ ব্যাচের কিছু শিক্ষার্থী এখনও রয়েছে সিঙ্গেল সিটে। সব মিলে ‘বুড়ো’ শিক্ষার্থীদের হলে অবস্থান করায় নবীন শিক্ষার্থীরা হলে ঠাঁই পাচ্ছেন না। কিন্তু প্রশাসন এখানে নীরব। এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ ফরিদ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, আমরা অচিরেই হল থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা সম্পন্ন করা শিক্ষার্থীদের বের করে দেব। আর আপাতত নবীন শিক্ষার্থীরা গণরুমেই অবস্থান করবেন। বড়রা চলে গেলে দ্রুত সময়ে নবীনদের থাকার ব্যবস্থা করা যাবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×