খুলনায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

সংঘাতের আশঙ্কা : শঙ্কিত ভোটগ্রহণ কর্মকর্তারা

  খুলনা ব্যুরো ২১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বড় ধরনের সংঘাতের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে খুলনার ভোটগ্রহণ কর্মকর্তারাও বিব্রত। তবে নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তাদের দাবি, যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় তৎপর রয়েছে প্রশাসন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৭ মার্চ খুলনার তেরখাদা উপজেলায় নৌকার প্রার্থী শরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চুর নির্বাচনী জনসভায় হামলার ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হন। মঙ্গলবার খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় নৌকার প্রার্থী গুটুদিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তফা সরোয়ারের পক্ষে প্রচারণাকালে খর্ণিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির ওপর প্রতিপক্ষের নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। কয়রা উপজেলায় ৪নং কয়রা গ্রামের নৌকার প্রার্থী জিএম মহসীন রেজা ও এসএম শফিকুল ইসলামের সমর্থকদের মধ্যে হামলার ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের ১০ কর্মী সমর্থক আহত হন। এছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় প্রতিপক্ষের পোস্টার, লিফলেট ছিঁড়ে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে। এসব বিষয় নিয়ে উপজেলার ভোটাররাও শঙ্কায় রয়েছে। এদের পাশাপাশি শঙ্কা প্রকাশ করেছেন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তারা। তারা জানান, প্রায়ই ক্ষমতাসীন দলের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে উভয় সংকটে পড়তে হয় ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের। প্রভাবশালীদের কথামতো নির্বিকার না থাকলে তোপের মুখে পড়তে হয়। উভয় গ্রুপের চাপে চরম ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করছেন সম্ভাব্য ভোটগ্রহণ কর্মকর্তারা। জেলা নির্বাচন অফিসের সূত্র মতে, খুলনার নয় উপজেলায় ৫ শতাংশ অতিরিক্তসহ সম্ভাব্য প্রিসাইডিং ও সহ-প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করবেন ৪ হাজার ২৮৯ জন, পোলিং অফিসার ৭ হাজার ৪৮০ জন। সূত্রটি জানায়, গত বছরের ১৫ মে অনুষ্ঠিত খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তিনটি কেন্দ্রে অনিয়মের দায়ে অভিযুক্ত ৫৭ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয় কর্তৃপক্ষ। নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের আলোকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয় অভিযুক্ত ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের এক বছরের ইনক্রিমেন্ট বন্ধ, পদোন্নতি স্থগিত ও পরবর্তীতে ভোট কেন্দ্রের দায়িত্ব পালন থেকে বিরত রাখতে পরামর্শ দেয়। সে আলোকে জেলা নির্বাচন কার্যালয় কেসিসি নির্বাচনে বিতর্কিতদের বাদ দেয় সর্বশেষ সংসদ নির্বাচনে। এসব কারণে চাকরি হারানোর ভয়ও করছেন অনেকেই।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×