জাবিতে র‌্যাগিংয়ের নামে এ কেমন পৈশাচিকতা!

  জাবি প্রতিনিধি ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের এক শিক্ষার্থী র‌্যাগিংয়ের শিকার হয়ে মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছে। কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২য় সেমিস্টারের কয়েক শিক্ষার্থীর মানসিক নির্যাতনের ফলে একই বিভাগের জুনিয়র মিজানুর রহমানের ছাত্র জীবন ধ্বংসের অদৃশ্য শঙ্কা দেখা দিয়েছে। শুক্রবার রাতে মিজানুরের বাবা ক্যাম্পাসে তাকে দেখতে এলে স্বজনদেরকে চিনতে না পেরে সে অসংলগ্ন আচরণ করেছে। এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি র‌্যাগিংয়ের সঙ্গে জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। মিজানুরের বন্ধুদের মাধ্যমে জানা যায়, বুধবার দুপুরে বিভাগের ৪৬তম আবর্তনের শিক্ষার্থীরা তাদের (৪৭তম আবর্তন) সঙ্গে পরিচিত হওয়ার নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। তাদের ভাষ্য মতে, মিজানুর সরল-সোজা হওয়ার কারণে সিনিয়ররা তাকে আলাদা রুমে নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালি দেয়াসহ শারীরিক নির্যাতন করে। যা সে মানসিকভাবে গ্রহণ করতে পারেনি। এমনকি সেখানে তাকে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়েছে বলে মিজানুরের আচরণের মাধ্যমে ফুটে উঠেছে। মিজানুর শহীদ সালাম বরকত হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হওয়ায় সে ক্লাস শুরুর প্রথম দিন থেকেই সালাম বরকত হলে অবস্থান করছিল। বন্ধুরা জানিয়েছে, সালাম-বরকত হলে ওঠা নিষেধ করা সত্ত্বেও সে এই হলে থাকার কারণে আ. ফ. ম. কামালউদ্দিন হলের ৪৬তম আবর্তনের শিক্ষার্থীরা তাকে হুমকি দিয়েছে। এ ঘটনার পর মিজানুর বৃহস্পতিবার রাতে অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে।

এ দিন তার পরিবারকে বিষয়টি জানানো হলে রাতে তার বাবা ও চাচা ক্যাম্পাসে আসে। কিন্তু তার স্বজনকে মিজানুর চিনতে পারেনি। ঘটনাটি শুনে হলের সিনিয়র শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মিডিকেলে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়। মিজানুরের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ থানার কাইকোরিয়াকান্দা গ্রামে। ছেলের এমন অবস্থা দেখে ভেঙে পড়েছেন মিজানুরের বাবা-মাসহ গোটা পরিবার। এদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে শুক্রবার রাতে বিভাগের ৪৬তম আবর্তনের চার শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। মামুন, হিমেল, সুদীপ্ত ও ক্লাস প্রতিনিধি আনোয়ারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক এটিএম আতিকুর রহমান। তিনি বলেন, আমরা চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তারা র‌্যাগিংয়ের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছে। তবে যতোটুকু বোঝা গেছে তারা র‌্যাগিংয়ের সঙ্গে জড়িত ছিল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

E-mail: jugantor.m[email protected], [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter