বাউফলে এসএসসি পরীক্ষায় নকলে আন্তরিক শিক্ষকরা!

  বাউফল প্রতিনিধি ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাউফলে চলমান এসএসসি পরীক্ষায় নকলে আন্তরিক ভূমিকা পালন করছেন কক্ষপরিদর্শকের দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষকরা। পরীক্ষা কেন্দ্রের বাইরে প্রশ্ন এনে তার সমাধান করে পুনরায় হলে পাঠিয়ে দিয়ে শিক্ষার্থীদের নকলে সহযোগিতা করা, কৌশলে বিদ্যুৎ বন্ধ রেখে সিসি টিভি অকার্যকর করে নকলে সহায়তা প্রদান, শিক্ষার্থীদের গ্র“প রাইটিংয়ে সহযোগিতা করাসহ নানাভাবে শিক্ষার্থীদের নকলে সহযোগিতা করছেন বাউফল উপজেলার চারটি কেন্দ্রের কক্ষপরিদর্শকের দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষকরা। শিক্ষকরা এমন অনিয়ম করলেও কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা যেন একেবারেই নিশ্চুপ। শনিবার অঙ্ক পরীক্ষা চলাকালীন বাউফলের কয়েকটি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করে দেখা মেলে এ অনিয়ম চিত্রের। পশ্চিম নওমালা সিনিয়র মাদ্রাসায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে শিক্ষার্থীরা গ্র“প রাইটিং করলেও কক্ষপরিদর্শকের দায়িত্বে থাকা শিক্ষকরা তাদের পাহারা দেয়ার কাজ করছেন। ওই কেন্দ্রের তিন নম্বর কক্ষে গিয়ে দেখা যায় সেখানে লাগানো সিসি ক্যামেরাটি টেবিলের ওপর নিবদ্ধ করে রাখা। যাতে করে ওই কক্ষে কী হচ্ছে তা যেন কেউ দেখতে না পায়। এরপর নওমালা মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় ভয়াভহ অসঙ্গতি- ওই কেন্দ্রের হল সুপারের দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষক মো. জহিরুল ইসলামকে শিক্ষার্থীদের নকল প্রদানে সহায়তার অভিযোগে বহিষ্কার করা হয়েছে এমন খবর সর্বত্র চাউর হলেও সেই শিক্ষককে দেখা যায় ওই কেন্দ্রে বিভিন্ন কক্ষে ঘুরছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব নাসির উদ্দিন বলেন, তার কোনো কক্ষে প্রবেশের অধিকার নেই। তিনি অফিস কক্ষে থাকেন। এদিকে ওই কেন্দ্রের অপর একটি কক্ষে গিয়ে দেখা যায়, মো. সাদিকুল নামে এক শিক্ষক যার নেমপ্লেটে লেখা রয়েছে ২ নম্বর কক্ষের কক্ষপরিদর্শক, কিন্তু তিনি ১০ নম্বর কক্ষে পরিদর্শক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এ সময় ওই শিক্ষক এ প্রতিনিধির উপস্থিতি বুঝতে পেরে পাশের কক্ষে গিয়ে সবাইকে সাবধান করে দেন। এদিকে উপজেলার কালিশুরি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা ফাঁকি দিতে পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগসাজশ করে প্রায় আধা ঘণ্টা বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের নকল উৎসবে সহায়তা করা হয়। এছাড়া বাউফল কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হওয়ার আধা ঘণ্ডা পরে দুই শিক্ষক প্রশ্নপত্র বাইরে এনে তার সমাধান করে পৌঁছে দেন পরীক্ষার্থীদের কাছে। সব মিলিয়ে পরীক্ষার্থীদের নকল সরবরাহে বেশ আন্তরিক ছিলেন শিক্ষকরা। এসব বিষয়ে বাউফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা নেয়ার জন্য আমার আন্তরিকতার কোনো ঘাটতি নেই। যদি শিক্ষরাই নকলের সঙ্গে যুক্ত থাকে তাহলে তা দূর করাটা অনেক দুরূহ। তবে যদি কোনো শিক্ষক এমন অনিয়মের সঙ্গে যুক্ত থাকেন এবং এর প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে ওই সব শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে নওমালা কলেজ কেন্দ্রের এক শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে।

 
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

E-mail: [email protected], [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter