শাবি শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবন

হেঁটে হেঁটে বাংলায় কথা বলে রোবট

  মেহেদী কবির, শাবি ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রোগ্রামিং এ দেশ সেরা এবং নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর এবার হাঁটুতে পায়ে এমন রোবট তৈরি করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। ‘লি’ নামের এই রোবটটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় বাংলায় কথাবার্তা বলা ছাড়াও হাঁটতে পারে, যা বাংলাদেশে প্রথম বলে দাবি করছেন এর উদ্ভাবকরা। একই সঙ্গে বিভিন্ন গান-কবিতা ছাড়াও বাংলাদেশের ইতিহাস নিয়ে ‘লি’কে সমৃদ্ধ করা হয়েছে বলে জানান উদ্ভাবকরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ফ্রাইডে ল্যাব’ এর পাঁচ শিক্ষার্থী এই রোবটটি তৈরি করেছে। শনিবার বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক রোবটটির উদ্বোধনের পর সোমবার জনসম্মুখে আনেন উদ্ভাবকরা। আইসিটি বিভাগ রোবটটির জন্য দশ লাখ টাকা দিলেও তা খুবই কম বলে আরও অর্থের আশা করছেন এর সঙ্গে জড়িতরা। বিস্তৃত ল্যাব ও আর্থিক সাহায্য পেলে এই রোবটিকে আরও সমৃদ্ধ করে অনেক কাজে লাগানো যাবে এমনটাই প্রত্যাশা করছেন ‘ফ্রাইডে ল্যাব’ এর টিম লিডার নওশাদ সজীব। তিনি এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবিষ্কৃত ‘সোশ্যাল রোবট’ রিবো এর টিম লিডার ছিলেন।

জানা যায়, ‘লি’ রোবট তৈরিতে দলটির মোট সদস্য পাঁচজন। টিম লিডার হিসেবে রয়েছেন নর্থ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক ও শাবির সিএসই বিভাগের ২০০৯-১০ সেশনের শিক্ষার্থী নওশাদ সজীব। এছাড়া টিমের অন্য সদস্যরা হলেন স্থাপত্য বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান রূপক, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একই বর্ষের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের মোহাম্মদ সামিউল ইসলাম ও জিনিয়া সুলতানা জ্যোতি। এর মধ্যে মূল অংশ প্রোগ্রামিংয়ে কাজ করেছেন নওশাদ সজীব। ডিজাইনে মেহেদী হাসান, রোবটের ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেমে সাইফুল ইসলাম, ডেভেলপিংয়ে মোহাম্মদ সামিউল ইসলাম ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংযুক্ত করেছেন জ্যোতি। রোবট-লি ডিজাইনার মেহেদি হাসান রূপক বলেন, আমি মনে করি এ ধরনের রোবট করতে হলে আর্থিক সাহায্যের পাশাপাশি উন্নতমানের ল্যাব দরকার, যা আমাদের নেই। টিমের আরেক সদস্য সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা চেয়েছিলাম এমন একটি রোবট তৈরি করতে যেটা হাঁটাচলা করতে পারে। রোবটের সার্বিক বিষয়ে টিম লিডার নওশাদ সজীব বলেন, রোবট-লি এর তৈরিতে গত তিন বছর ধরে কাজ করছি। এতে জাভা ও পাইথন নিয়ে কাজ করা হয়েছে। আমাদের এ রোরট তৈরির মূল উদ্দেশ্য ছিল রোবটকে হাঁটাচলা করানোর সঙ্গে সঙ্গে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা পরিচালনা করা। তবে আমাদের এ রোবটকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে যে ধরনের উপাদান বা যন্ত্রপাতির দরকার তা বাইরে থেকে আনতে হবে। যার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। বাংলা স্বরবর্ণ থেকে হারিয়ে যাওয়া ৯ এর মতো দেখতে একটি লিপি হল ‘লি’ এর নামকরণে রোবটটির নামকরণ করা হয়েছে ‘লি’। রোবটটি এপ্রিল ‘সাস্ট টেক ফেস্টে’ উদ্বোধন করেন তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এ সময় তিনি বলেন, মাত্র দশ লাখ টাকায় এ ধরনের রোবট তৈরি করেছে তারা যা অসাধারণ’।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×