মৌলভীবাজারে থামছে না পাহাড় কাটা

  মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কোনো প্রকার সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আপার কাগাবলা ইউনিয়নের আথানগিরি ও রোরুতলা এলাকায় একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট প্রতিনিয়ত পাহাড় কাটছে। এতে করে হুমকিতে পড়ছে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য। ধ্বংস হচ্ছে জেলার প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য। কেউ কেউ পাহাড় কেটে মাটি বিক্রি করে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকি নিয়ে বসতঘর বানাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ সড়ক তৈরির অজুহাতে পাহাড় কাটছেন। পাহাড় কাটা রোধে প্রশাসন মাঝে মধ্যে লোক দেখানো অভিযান চালালেও কিছুতেই থামছে না এ পাহাড় কাটা।

জানা যায়, মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আথানগিরি ও রোরুতলায় প্রতি বছর শুষ্ক মৌসুম এলেই নির্বিচারে চলে পাহাড় কাটা। আর বর্ষা মৌসুমে ঘটে পাহাড় ধসের ঘটনা। প্রতিদিন ওই এলাকা থেকে প্রায় ১৫-২০টি ট্রাক বহন করছে পাহাড়কাটা মাটি। এভাবে পাহাড় কাটার কারণে দিন দিন ছোট হয়ে আসছে পাহাড় ও বনাঞ্চলের আয়তন। একে অপরের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সরকারের খাস ভূমিতে বসবাসসহ নানা অজুহাতে চালাচ্ছেন এ নিধনযজ্ঞ।

আথানগিরি ও রোরুতলার মতো হরদম পাহাড় কাটা চলছে জেলার অন্যান্য উপজেলায়। এসব পাহাড় কাটা রোধে প্রশাসন থেকে কোনো স্থায়ী ব্যবস্থা না নেয়াতে প্রভাবশালী মহল বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এভাবে পাহাড় কাটা অব্যাহত থাকলে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যসহ পরিবেশের যে ক্ষতি হবে তা পুষিয়ে উঠা কোনো অবস্থাতেই সম্ভব নয়। মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আপার কাগাবলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন পাহাড় কাটার কথা স্বীকার করে বলেন, পাহাড় কাটার খবর পেয়ে প্রশাসন অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকটি গাড়ি আটক করে। তার পরেও পাহাড় কাটা বন্ধ করা যাচ্ছে না। মৌলভীবাজার জেলা বন কর্মকর্তা জিএম আবু বক্কর বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×