মানিকগঞ্জে নকল কারখানায় বিদেশি কসমেটিকস!

  মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি ২৫ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মানিকগঞ্জে চায়না কোম্পানিসহ দেশের নামিদামি কোম্পানির নকল মেহেদি ও কসমেটিক তৈরির কারখানার সন্ধান মিলেছে। সদর উপজেলার উচুটিয়া এলাকায় ‘মম প্রিয়াঙ্গণ’ নামের বাড়িতে অনুমোদনহীন আল-রাফি কসমেটিকস কোম্পানি দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মেহেদি, ফেয়ারনেস ক্রিম, স্পট ক্রিম, ব্রেস্ট ক্রিম, হেয়ার ওয়েল, হেয়ার কালার, ফেসওয়াশসহ নানা প্রসাধনীর নকল কারাখানাটি সিলগালা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সে সঙ্গে ওই কারখানার স্বত্বাধিকারী শাহীন মাহমুদকে এক বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মশিউর রহমান খানের নেতৃত্বে ওই কারখানায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মো. আলাউল ইসলাম ভ্রাম্যমাণ আদালতের সঙ্গে ছিলেন।অনুসন্ধান করে জানা গেছে, প্রায় দু’বছর ধরে মানিকগঞ্জের ওই ‘মম প্রিয়াঙ্গণ’ নামের বাড়িতে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে এই ধরনের নকল প্রসাধনী সামগ্রী তৈরি করে ঢাকার চকবাজার, সাভার, মানিকগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন মার্কেটে বিক্রি করত। যেসব কসমেটিক পণ্য তৈরি হতো তার জন্য বিএসটিআই কিংবা আইএসও সনদ ছিল না। শুধু তাই নয় পৌরসভার কোনো ট্রেড লাইসেন্স না নিয়ে দিব্বি তৈরি করছে চায়না ব্র্যান্ডসহ বিভিন্ন কোম্পানির পণ্য। বিভিন্ন প্রসাধনীর আর কোম্পানির চাকচিক্য মোড়ক বানিয়ে রাখা আছে ওই কারখানার ভেতরে। অভিযানের সময় দেখা যায় অধিকাংশ শ্রমিক শিশু কিশোর। মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মশিউর রহমান খান জানান, নকল কসমেটিকস সামগ্রী তৈরির বিষয়টি জানতে পেরে ওই কারখানায় অভিযান চালিয়ে কারখানায় প্রস্তুতকৃত বিপুল পরিমাণ নকল মেহেদি ও ক্রিম জব্দ করা হয়। সে সঙ্গে কারখানাটি সিলগালাও করা হয়েছে।

তিনি জানান, সরকারি অনুমোদন কিংবা বিএসটিআই ও আইএসও সনদ ছাড়াই ওই কারখানাটি পরিচালিত হয়ে আসছিল। এখানে প্রস্তুতকৃত মেহেদিগুলোর মোড়কে লেখা আছে রাখি বন্ধন, বকুল কথা, নেহা, উৎসব, সাত ভাই চম্পা ইত্যাদি ব্র্যান্ডের নাম। এছাড়া এখানে চীনা কোম্পানির মোড়কে দুই প্রকারের ফেয়ারনেস ক্রিম ও মেহেদিও প্রস্তুত হয়। এখানে প্রস্তুতকৃত পণ্যগুলো স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলে জানান তিনি।

ওই অভিযানের সঙ্গে ছিলেন এই প্রতিবেদক। দুই বছর ধরে ‘মম প্রিয়াঙ্গণ’ নামের ৫ তলাবিশিষ্ট বাড়িটির নিচতলায় চারটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে শাহীন নামের ওই ব্যক্তিটি নকল মেহেদিসহ নানা কসমেটিকস পণ্য তৈরি করছে।

পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম জানান, ওই কোম্পানি পৌরসভা থেকে কোনো প্রকার ট্রেড লাইসেন্সও নেয়নি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×