আগৈলঝাড়ায় সরকারিভাবে ধান বিক্রি নিয়ে বিপাকে কৃষক

  আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি ০৩ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় সরকারি গোডাউনে ধান দেয়ার জন্য কৃষকরা বিভিন্ন দফতরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। উপজেলায় কৃষক পরিবারের সংখ্যার দিক থেকে ধান দেয়া কৃষকের সংখ্যা খুবই নগন্য। সরকারিভাবে ধান দিতে না পেরে অনেক কৃষক ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

জানা গেছে, বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান আগৈলঝাড়া উপজেলায় ২১ মে সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের উদ্বোধন করে। সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের সংবাদ আগৈলঝাড়ার পাঁচটি ইউনিয়নে ছড়িয়ে পড়লে কৃষকরা ইউনিয়ন পরিষদ, গোডাউন ও উপজেলা কৃষি অফিসে সরকারিভাবে ধান বিক্রির জন্য প্রতিদিনই ধরনা দিচ্ছেন। উপজেলার ২৬ হাজার ৮০৪ জন কৃষক পরিবার রয়েছে, তার মধ্যে ৩৬০ জন কৃষক পরিবার সরকারিভাবে ২৯১ টন ধান দেয়ার সুযোগ পাবেন। প্রতিজন কৃষক ২০ মণ করে ধান গোডাউনে বিক্রি করতে পারবেন। পাঁচটি ইউনিয়নের প্রতিটি ইউনিয়নে পাঁচ হাজারের বেশি কৃষক পরিবার থাকলেও মাত্র ৭২ জন কৃষককের তালিকা করে উপজেলা কৃষি অফিসে জমা দিয়েছেন চেয়ারম্যানরা। এতে উপজেলার অধিকাংশ কৃষকরাই সরকারিভাবে ধান দেয়া থেকে বঞ্চিত হবেন। তার পরেও তারা উপজেলা কৃষি অফিস, ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের কাছে প্রতিদিনই ধরনা দিচ্ছেন। দরিদ্র অনেক কৃষকের তালিকায় নাম না থাকায় তারা ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এতে সরকার যে উদ্দেশে কৃষকদের কাজ থেকে ধান ক্রয় করছে তাতে শতভাগ সফল হবে না বলে অনেক কৃষকরা জানিয়েছে। উপজেলার নওপাড়া গ্রামের কৃষক আনন্দ রায় সরকারিভাবে ধান দেয়ার জন্য এক সপ্তাহ ধরে চেয়ারম্যান, গোডাউন, কৃষি অফিসে ধরনা দিয়েও তালিকায় নাম না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। উপজেলার ফুল্লশ্রী গ্রামের নুরুল ইসলাম পাইক, জিয়াউর রহমান ও সেলিম ফকিরও ইউপি সদস্য, ইউপি চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দফতরে ঘুরেও তালিকায় নাম ওঠাতে পারেনি তারা। যার জন্য তারা সরকারিভাবে ধান দিতে পারছেন না। বারপাইকা গ্রামের হরলাল সরকার, মোল্লাপাড়া গ্রামের অসীম ও পরেশ হালদারও তালিকায় নাম না থাকায় তারাও ধান দিতে পারছেন না। প্রত্যেক কৃষকই তালিকায় নাম ওঠাতে সংশ্লিষ্ট দফতরে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

উপজেলা খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন বলেন, প্রতিদিনই ধান দেয়ার জন্য অসংখ্যা কৃষক গোডাউনে ভিড় করছেন। কিন্তু আমরা তালিকার বাইরে কারও ধান নিতে পারছি না। আজ-কালের মধ্যে কৃষি অফিস আমাদের তালিকা প্রেরণ করলে আমরা ধান ক্রয় শুরু করব। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন জানান, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ইউপি চেয়ারম্যানদের সমন্বয়ে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। ওই তালিকা অনুসারে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ধান ক্রয় কমিটির সভাপতি বিপুল চন্দ্র দাস সাংবাদিকদের বলেন, ধান ক্রয়ের তালিকা তৈরিতে দরিদ্র কৃষকদের গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×