গরিবের চাল সচ্ছলের পেটে

মনিরামপুরে ভিজিএফের তালিকায় অনিয়ম

  মোতাহর হোসেন, মনিরামপুর প্রতিনিধি ০৩ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যশোরের মনিরামপুরে ভিজিএফের তালিকায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের স্ত্রী, ধনাঢ্যদের নাম, চাল বিতরণে ওজনে কম দেয়াসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অনিয়ম খতিয়ে দেখতে ইউএনও সরেজমিন পরিদর্শন শেষে ফিরে আসার পর প্রতিবাদকারী এক ইউপি সদস্য লাঞ্ছিত হয়েছেন। রোববার উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের দায়িত্ব নিয়ে সর্বমহলে প্রশ্ন উঠেছে। পিআইও বললেন, টিআর, কাবিখা, কর্মসৃজন প্রকল্প, ননওয়েজের কাজ, সোলার বাতি নিয়ে সময় দিতে গিয়ে হাঁপিয়ে উঠেছি। তার ওপর পার্শ্ববর্তী ঝিকরগাছা উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব তো রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট অফিস সূত্রে জানা গেছে, ঈদুল ফিতর উপলক্ষে উপজেলায় অতিদরিদ্রদের জন্য ৯৫৬.৪৩ টন চাল বরাদ্দ আসে। ১৭ ইউনিয়নে জনসংখ্যার ভিত্তিতে বিভাজনের মাধ্যমে ৬৩ হাজার ৭৬২ জন অতিদরিদ্রের জন্য ভিজিএফের কার্ড বিতরণ করা হয়। প্রতি কার্ডধারির বিপরীতে ১৫ কেজি চাল বরাদ্দ হয়। ইতিমধ্যে চাল বিতরণ শুরু হয়েছে।

রোববার সকালে উপজেলার চালুয়াহাটি, রোহিতাসহ কয়েকটি ইউনিয়নে যান ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী। চালুয়াহাটি ইউনিয়নে চাল বিতরণে ওজনে কম দেয়ার বিষয়টি হাতনাতে ধরে ফেলেন তিনি। পরে তার উপস্থিতিতে সঠিক ওজনে চাল বিতরণ করে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান সরদার আবদুল হামিদ।

এদিকে ভিজিএফের কার্ডের তালিকা নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। গরিবের তালিকায় ঠাঁই মিলেছে ধনাঢ্য ও স্থানীয় অবস্থাশালী আওয়ামী লীগ নেতাদের পরিবারের সদস্যদের নাম।

এবার রোহিতা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ভিজিএফের কার্ড প্রণয়নের দায়িত্ব পেয়ে ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য মহব্বত আলী ওয়ার্ডের ৪১৫ জন গরিবের তালিকায় নিজের স্ত্রী কল্পনা বেগমের নাম ঢুকিয়েছেন। স্মরণপুর গ্রামেই রয়েছে তার দোতলা বাড়ি। একই ওয়ার্ডের সেকেন্দার আলী নামের গৃহস্থ, যার একতলা ছাদের বাড়ি রয়েছে। তালিকার ১৮২ ও ১৬৫ সিরিয়াল দুটি সেকেন্দার ও তার স্ত্রী আঞ্জুয়ার। অথচ পাশেই খুপরি ঘরে থাকেন রবিউল ইসলাম। তার নাম তালিকায় আসেনি।

ইউপি সদস্য আমিনুর রহমান বলেন, তালিকা সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আক্তার হোসেন ও সম্পাদক মহব্বত আলী করেছেন। তালিকায় নাম নিয়ে তোলপাড় শুরু হলে পিআইও (প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা) এসএম আবু আবদুল্লাহ বায়োজিদ লুকোচুরি শুরু করেন। তিনি প্রথমে তালিকায় কোনো ধনাঢ্যের নাম নেই জানালেও পরে বলেন, ছিল কেটে দেয়া হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান আবু আনছার বলেন, তালিকা সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক, ইউপি সদস্যরা করেছেন। মহব্বত জঘন্য কাজ করেছেন বলেও তিনি মনে করেন।

ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী বলেন, অনিয়ম ঠেকাতে রোববার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মনিটরিং করেছি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×