খুলনায় কৃষিশুমারির তথ্য সংগ্রহে বিড়ম্বনা

প্রকাশ : ১৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  খুলনা ব্যুরো

ফাইল ছবি

দেশব্যাপী ৯ জুন থেকে শুরু হয়েছে কৃষি (শস্য, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ) শুমারি-২০১৮, যা চলবে আগামী ২০ জুন পর্যন্ত। খুলনা নগরীসহ জেলার ৯টি উপজেলায় কৃষিশুমারির তথ্য সংগ্রহের শুরুতেই নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে।

এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, বাসাবাড়িতে তথ্য সংগ্রহের জন্য একাধিকবার যাওয়ার পরও দরজা না খোলা, অপরিচিত লোক মনে করে তথ্য সরবরাহ না করা, পর্যাপ্ত প্রচারণার অভাবে এলাকার বড় একটি শ্রেণী কৃষিশুমারি সম্পর্কে অবগত না হওয়া এবং যথেষ্ট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মী দ্বারা তথ্য সংগ্রহ না করা। বিষয়টি ইতিমধ্যে অবগত হয়েছেন খোদ জেলা পরিসংখ্যান ব্যুরো।

যার ফলে শুক্রবার জেলার সব মসজিদে কৃষি শুমারির তথ্য সরবরাহ ফের অবগত করা হয়। পাশাপাশি এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ কৃষিশুমারির জোনাল অফিসার, সুপার ভাইজার এবং গণনাকারীদের তৎপরাত বৃদ্ধির বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছেন।

জানা যায়, ষষ্ঠবারের মতো কৃষি শুমারিতে খুলনা জেলায় ৩৩ জন জোনাল অফিসার, ৩৫১ জন সুপার ভাইজার এবং ২ হাজার ২০৮ জন গণনাকারী কাজ করছেন।

যার মধ্যে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে জোনাল অফিসার রয়েছেন ৬ জন, সুপারভাইজার ৬৮ জন এবং গণনাকারী ৪৩১ জন। ৯ জুন থেকে সারা দেশের মতো খুলনা জেলায় কৃষি শুমারি গণনার কাজ শুরু হয়েছে।

এবারের কৃষিশুমারিতে অত্যাধুনিক ফরমসহ ১৬টি প্রশ্ন রয়েছে, যা খুব দক্ষতার সঙ্গে পূরণ করার জন্য সুপারভাইজারদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। নগর ও জেলার একাধিক তথ্য সরবরাহকারীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কৃষি শুমারির বিষয়ে পর্যাপ্ত প্রচার নেই।

যার কারণে জেলার বড় একটি জনসংখ্যাই এ ব্যাপারে জানে না। এদিকে নিরাপত্তার অভাবের কারণে অনেক অপরিচিত মানুষকেই তথ্য সরবরাহ করা হচ্ছে না। এছাড়া এলাকায় মাইকিংও তুলণামূলক কম করা হয়েছে। পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততা নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে।

এ বিষয়ে কয়েকজন তথ্য সংগ্রহকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অনেক বাড়ি থেকেই তথ্য সরবরাহ করা হচ্ছে না। বিভিন্ন কারণে এগুলো হচ্ছে। তবে সরকারি এই শুমারি বাস্তবায়নের জন্য প্রত্যেক বাড়িতে একাধিকবার যাওয়া হচ্ছে।

জেলা শুমারি সমন্বয়কারী নয়ন কান্তি রায় বলেন, কৃষি শুমারি বাস্তবায়নে আমাদের টিম যথেষ্ট আন্তরিক। তথ্য সংগ্রহকালে কিছু বিড়ম্বনা থাকবেই। এটাই স্বাভাবিক। সব বিষয়ে তদারকি করেই কৃষি শুমারি সফল করা হবে বলে তিনি দাবি করেন।