মোংলা উপজেলা ও পৌর আ’লীগের সম্মেলন

পদ পেতে নেতাদের দৌড়ঝাঁপ

প্রকাশ : ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  আমির হোসেন আমু, মোংলা (বাগেরহাট)

মোংলা উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনকে ঘিরে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে চলছে নানা তৎপরতা। ক্ষমতাসীন এ দলটির স্থানীয় পর্যায়ের কর্তৃত্ব ও নেতৃত্ব লাভে লবিং-গ্রুপিংয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন নেতারা। আর এতে সরব হয়ে উঠেছে পৌর এলাকাসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। কার হাতে যাচ্ছে দলটির স্থানীয় নেতৃত্ব ও কর্তৃত্ব এ নিয়েও চলছে হরেকরকম গুঞ্জন। তবে উপজেলা ও পৌর কমিটিতে রদবদলসহ নতুন মুখ আসছে বলেও আভাস দিয়েছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা। আর এ ক্ষেত্রে বেশ কয়েকজন নতুন মুখের নাম আলোচনায় আছে। লবিং-গ্রুপিং-সহ তৎপরতায় নেতাদের গতি থাকলেও শেষ পর্যন্ত দলের স্থানীয় নেতৃত্ব প্রদানের বিষয়টি নির্ভর করছে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক ও মেয়রপত্নী বন পরিবেশ ও জলবায়ুবিষয়ক উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের ওপর। তাই মেয়র আর উপমন্ত্রীরও সুদৃষ্টি পাওয়ার চেষ্টা করছেন কেউ কেউ। তবে আসন্ন কাউন্সিল সম্মেলনে পদ-পদবি নিয়ে বেশ আশাবাদী দীর্ঘদিনের লাঞ্ছনা ও বঞ্চনার শিকার নেতারাও। আর এমন আশা ও মনোভাবের কথা অনেকেই তুলে ধরেন ১৩ জুন অনুষ্ঠিত সম্মেলন প্রস্তুতির বর্ধিত সভায়। এ সভায় পদ-পদবির দায়িত্বে থাকা এবং বঞ্চিত নেতাকর্র্মীরা নিজেদের অবস্থান জানান দেন। এ ছাড়া কেসিসি মেয়র ও উপমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই সিনিয়র ও জুনিয়র নেতাদের কেউ কেউ একে অপরের বিরুদ্ধে দোষারোপসহ নানা অভিযোগ উপস্থাপন করেন। সভার শেষ দিকে এ নিয়ে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে কিছুটা হট্টগোল অবস্থার সৃষ্টি হয়। তবে বর্ধিত সভায় কেসিসি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক দলের ও নিজের অবস্থান স্পষ্ট তুলে ধরে বলেন, যারা মৎস্য ঘের লুট, অন্যের জমি দখল, সুন্দরবনের অপরাধ জগতের সঙ্গে জড়িত তাদের দলে সুযোগ দেয়া হবে না। এ ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে আগতরা যাতে নেতৃত্ব পর্যায় ঠাঁই নিতে না পারেন নজরদারির নির্দেশনা দেন স্থানীয় নেতাদের।

এদিকে দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে স্থানীয় পদ-পদবি প্রত্যাশী নেতাকর্মীদের লবিং-গ্রুপিং তুঙ্গে উঠছে। এতে ঝিমিয়ে পড়া নেতা-কর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ ছাড়া দলের সুবিধাবঞ্চিত নেতা এবং তৃণমূল কর্মীদের কদরও বাড়ছে। এখানে নেতৃত্ব পেতে নবীন-প্রবীণরা যেমন নিরলসভাবে চেষ্টা করছেন তেমনি বসে নেই বর্তমান কমিটির নেতারাও।

আসন্ন কাউন্সিল সম্মেলনে মোংলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার এবং বর্তমান সভাপতি সাবেক অধ্যক্ষ সুনীল কুমার বিশ্বাস এবং সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. ইব্রাহিম হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সহ-সভাপতি চাঁদপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্যা তরিকুল ইসলামের নাম শোনা যাচ্ছে।

এ ছাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে (বর্তমান ভারপ্রাপ্ত) শেখ আবদুস সালাম, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ আবদুর রহমানের নাম আলোচিত হচ্ছে। আর সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন- শিপিং ব্যবসায়ী এইচএম দুলাল, ইমাম হোসেন, কাজী গোলাম হোসেন বাবলু এবং শাওখায়েত হোসেন। আসন্ন কাউন্সিলে উপজেলা ও পৌর কমিটিতে নতুন ও পুরনোর সমন্বয় গঠন হবে বলে আশাবাদী নেতাকর্মীরা।