উখিয়ায় স্কুল নির্মাণের নামে পাহাড় কাটার অভিযোগ

প্রকাশ : ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

উখিয়া উপজেলার মরিচ্যা পালং মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের নামে সরকারি বনভূমির পাহাড় কেটে মাটি বিক্রির অভিযোগ তুলেছেন ওই বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবুল কাশেম। এ অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কক্সবাজার দক্ষিণ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট সহকারী বন সংরক্ষককে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মানিক ও বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী জামাল উদ্দিন স্কুলের দক্ষিণ পাশে ভবন নির্মাণের কথা বলে ধোয়া পালং রেঞ্জের হলদিয়া বনবিটের জমি ও অভিযোগকারী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের জোত জমির ওপর ভবন নির্মাণের নামে বুলডেজার দিয়ে মাটি কেটে অন্যত্র বিক্রি করছেন। এ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম নির্বাহী প্রকৌশলী, কক্সবাজার শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর, জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার দক্ষিণ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সরকারি বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ করেন। এ অভিযোগের সূত্র ধরে সোমবার সরজমিনে মরিচ্যা মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শনে গেলে প্রধান শিক্ষক ও অফিস সহকারীকে পাওয়া যায়নি। তবে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা রুবিনা খানম জানান, তারা দু’জনই কক্সবাজার জেলা শিক্ষা অফিসে গেছেন।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মানিক বলেন, অনেক চেষ্টার পর বিদ্যালয়ের জন্য একটি চারতলা বিশিষ্ট ভবন বরাদ্দ দেয় সরকার। ভবন নির্মাণের জন্য বিদ্যালয়ের বাউন্ডারির ভেতর দক্ষিণ পাশে খালি জায়গাটি নির্ধারণ করা হয়। জায়গাটি পিএফ জমি হওয়ায় মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম এ নিয়ে বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে আমাকে বিভিন্ন দফতরে এ বিষয়ে জবাবদিহি করতে হচ্ছে। এখন বিদ্যালয়ের ভবন যদি না হয় তাহলে আমার কোনো ক্ষতি নেই। দেশ ও এলাকার এবং ছাত্রদের ক্ষতি হবে।