ক্ষেতলাল খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহের লক্ষ্য পূরণে সংশয়

  ক্ষেতলাল (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল খাদ্যগুদামে বোরো ধান সংগ্রহ শুরু হলেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার গাফিলতিসহ কৃষি কার্ডধারী কৃষকদের বাদ রেখে প্রান্তিক কৃষকদের মধ্যে লটারি করে ধান সংগ্রহ করায় কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে সংশয় দেখা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ক্ষেতলাল উপজেলায় পাঁচটি ইউনিয়ন ও পৌরসভাসহ মোট ২৬ হাজার ৫৩৯ জন কৃষি কার্ডধারী কৃষক রয়েছেন। ওইসব কৃষকের কাছ থেকে ক্ষেতলাল খাদ্যগুদামে ৩২৭ টন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ২৬ মে থেকে বোরো ধান সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু হয়। কৃষি কার্ডধারী কৃষকরা ওই খাদ্যগুদামে ধান দিতে আগ্রহ থাকলেও কর্তৃপক্ষ সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ না করে অবশেষে ৫০ শতক জমির নিচে দুই হাজার ৩৩৩ জন প্রান্তিক কৃষকের মধ্যে লটারি করে ৬৩২ জন কৃষককে নির্বাচিত করে তাদের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, নির্বাচিত অধিকাংশ প্রান্তিক কৃষকের ঘরে বর্তমান ধান নেই। ধান নেই বলে তারা খাদ্যগুদামে কোনো খোঁজখবর রাখেনি। লটারিতে নির্বাচিত কৃষকদের কাছ থেকে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দিয়ে তাদের কার্ডে ধান দেয়ার জন্য পিছুপিছু ঘুরছে ব্যবসায়ীরা। ফলে প্রকৃত কৃষকের ধান দিয়ে ক্ষেতলাল খাদ্যগুদামে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন সংশয় দেখা দিয়েছে। উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা জাহেদুর রহমান বলেন, ক্ষেতলাল খাদ্যগুদামে ৩২৭ টন বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা হলেও শুরু থেকে এ পর্যন্ত ১১ জন কৃষি কার্ডধারী কৃষক এবং দুজন প্রান্তিক কৃষকের কাছ থেকে মাত্র ১২ টন ধান ক্রয় করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×