কোটালীপাড়ায় কাজ না করেই ৪ প্রকল্পের টাকা উত্তোলন

জুন ক্লোজিংয়ের অজুহাত

  কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় জুন ক্লোজিংয়ের নামে ৪টি প্রকল্পের কাজ না করেই ৮ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। জুলাই মাসের ১১ দিন অতিক্রান্ত হলেও এসব প্রকল্পের কাজ এখনো শুরু হয়নি। কোটালীপাড়া উপজেলার মৎস্য বিভাগের ৩টি ও প্রাণিসম্পদ বিভাগের ১টি প্রকল্প থেকে ৩০ জুনের আগেই এসব টাকা উত্তোলন করা হয়। উপজেলার আমতলী ইউনিয়নের মৎস্য অভয়াশ্রম প্রকল্পে সাদুল্লাহপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য বিপ্লব চক্রবর্ত্তীকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি করা হয়। প্রাণিসম্পদ অফিসের ক্ষুরারোগে ভ্যাক্সিনেশন ক্যাম্পেইন প্রকল্পটি পিঞ্জুরী ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের সোনাখালী ও তারাইল গ্রামে বাস্তায়িত হওয়ার কথা। কিন্তু এ প্রকল্পে ওই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড সদস্য ইলিয়াছ খানকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি করা হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্যরা টাকা উত্তোলনের কথা স্বীকার করে ২/১ দিনের মধ্যেই প্রকল্পের কাজ শুরু করার কথা বলেছেন। তবে এসব কাজ ৩০ জুনের মধ্যে সম্পন্ন করার কথা ছিল। কোটালীপাড়া উপজেলা পরিষদ কার্যালয় জানিয়েছে, গত অর্থ বছরের জুনের মাঝামাঝিতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় উপজেলার পিঞ্জুরী ইউনিয়নের ফুলবাড়ী গ্রামে চাইটখালী খালে মৎস্য অভয়াশ্রম নির্মাণ, সাদুল্লাহপুর ইউনিয়নের লাটেঙ্গা বিলে কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত, আমতলী ইউনিয়নের সিকির বাজার মৎস্য অভয়াশ্রম সংস্কার ও পিঞ্জুরী ইউনিয়নের সোনাখালী তারাইল গ্রামে গরু মোটাতাজাকরণ এবং ক্ষুরারোগে ভ্যাক্সিনেশন ক্যাম্পেইন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। প্রতিটি প্রকল্পের প্রকল্প ব্যয় ধরা হয় ২ লাখ টাকা। আমতলী সিকির বাজার মৎস্য অভয়াশ্রমের প্রকল্প সভাপতি বিপ্লব চক্রবর্ত্তী টাকা উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, আমি সাদুল্লাহপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ড সদস্য আমাকে আমতলী ইউনিয়নের সিকির বাজার মৎস্য অভয়াশ্রমের প্রকল্পের সভাপতি করা হয়েছে। আমি একদিন প্রকল্প এলাকা দেখতে গিয়েছি। অন্যদিন সেখানে বাঁশসহ মালামাল নিয়েছি। এ অভয়াশ্রমের সংস্কার কাজ শুরু করেই ২/১ দিনের মধ্যে শেষ করে ফেলব। ক্ষুরারোগে ভ্যাক্সিনেশন ক্যাম্পেইন প্রকল্পের সভাপতি ইলিয়াস খান বলেন, ৩০ জুনের আগেই টাকা উত্তোলন করেছি। ভ্যাক্সিন কিনতে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছি। ২/১ দিনের মধ্যেই আমরা ভ্যাক্সিনেশন শুরু করব।

আমতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হান্নান শেখ বলেন, আমার ইউনিয়নের অভয়াশ্রম প্রকল্প সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে আমি উপজেলা পরিষদের সদস্য। এ ৪টি প্রকল্পের উপজেলা পরিষদের সভায় আমিসহ ১৩ জন সদস্য স্বাক্ষর করেনি। সদস্যদের স্বাক্ষর ছাড়া কিভাবে প্রকল্প পাশ হলো তা আমার বোধগম্য নয়। কোটালীপাড়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা পলাশ কুমার দাশ বলেন, আমরা ৫০ হাজার টাকা পেয়েছি। দ্রুতই এ টাকা দিয়ে ভ্যাক্সিন কিনে আমরা ভ্যাক্সিনেশনের কাজ শুরু করব। কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মাহফুজুর রহমান টাকা উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, কোনো কোনো প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। কোনো কোনো প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে বলে আমাকে জানানো হয়েছে। টাকা উত্তোলনের জন্য পৃথক কমিটি রয়েছে। তারাই এ টাকা উত্তোলন করেছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×