কাউনিয়ায় ১৬ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকের অভাবে পাঠদান ব্যাহত

  কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরের কাউনিয়ায় ১১৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ১৬টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক ও ১৫টিতে সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য। পদগুলো শূন্য থাকায় বিদ্যালয়গুলোর প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থীর পাঠদানসহ শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধান শিক্ষক শূন্য বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে কুর্শা ইউনিয়নে ৫টি, হারাগাছ ইউনিয়নে ৪টি, বালাপাড়া ইউনিয়নে ৩টি, টেপামধুপুর ইউনিয়নে ৩টি ও সারাই ইউনিয়নে ১টি। এছাড়া সহকারী শিক্ষক পদ শূন্য রয়েছে হারাগাছ ইউনিয়নে ৪টি, বালাপাড়া ইউনিয়নে ৫টি, টেপামধুপুরে ৪টি, কুর্শায় ১টি ও হারাগাছ পৌরসভায় ১টি। আরাজি সাহাবাজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হওয়ার পর প্রধান শিক্ষক বদলি হয়ে চলে যান। এরপর চার বছর ধরে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই। আমাদের বিদ্যালয়ে ১৫১ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। আমাকে প্রতিদিন পাঠদান ছাড়াও প্রশাসনিক কাজকর্ম করতে হয়। এতে শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে পাঠদান ব্যাহত হয়। উত্তর ঠাকুরদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবু তালেব জানান, প্রধান শিক্ষক বদলি হয়ে চলে যাওয়ায় আমাকে বিদ্যালয়ের সব কাজকর্ম করতে হচ্ছে। একজন শিক্ষক প্রশিক্ষণে আছেন। শিক্ষক সংকটে ২৮২ শিক্ষার্থীর পাঠদানে নানাবিধ সমস্যা হয়।

পল্লীমারী সরকারি প্রাথমিকি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নরুন্নবী জানান, আমাদের বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে দু’জন সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। আমাকে প্রায় অফিসিয়াল কাজে উপজেলা শিক্ষা অফিসে যাওয়া-আসা করতে হয়। তখন দু’জন শিক্ষক শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ৪২৪ জন শিক্ষার্থীকে পাঠদান করাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক মামুনুর রশিদ জানান, খুবই কঠিন পরিস্থিতিতে তাদের বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম চলছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জাকিরুল হাসান জানান, প্রধান ও সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য থাকায় সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়গুলোতে পাঠদানে সমস্যা হচ্ছে। শূন্য পদের বিপরীতে শিক্ষক নিয়োগ চেয়ে জেলা শিক্ষা অফিসে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম জানান, খুব শিগগিরই শূন্য পদের জন্য নিয়োগ চেয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে আবেদন করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter