পাহাড়ে সুদর্শন হলদেভ্রু ফুটকি

  সমির মল্লিক, খাগড়াছড়ি ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পাখির নাম হলদেভ্রু ফুটকি। পাহাড়ের পাশাপাশি এদের ঘরের আশপাশে বাগানেও দেখা যায়। পুরো শরীরজুড়ে হলুদ রং মাখানো। আমাদের দেশে মোটাঠোঁট ফুটকি, পাতি চিফচ্যাফ, কালচে ফুটকি, টিকেলের ফুটকি, রাডের ফুটকি, সবজে ফুটকিসহ প্রায় ৭ প্রজাতির ফুটকি সহজে দেখা মেলে।

বাংলাদেশে প্রায় ৫০৬ প্রজাতির পাখির সচরাচর দেখা মেলে। এদের মধ্যে বেশ কয়েক প্রজাতির পাখির অন্যতম বিচরণ ক্ষেত্র পার্বত্য চট্টগ্রামের চিরসবুজ গভীর-অগভীর বন। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পাহাড়ে এখনও অনেক পাখি টিকে আছে। তবে শিকারিদের ক্রমাগত আগ্রাসন এবং বেপরোয়াভাবে বন উজাড়ের কারণে পাখিদের বিচরণ কমে যাচ্ছে। তবে বন ধ্বংসের কারণে অনেক পাখিরই এখন দেখা মিলে না।

বর্ষার পরে পাহাড়ে পাখির দেখা মিলে বেশি। সম্প্রতি খাগড়াছড়ি জেলা সদরের রাজ্যমনি পাড়ায় পাওয়া যায় হলদেভ্রু ফুটকি। খাগড়াছড়ির তরুণ আলোকচিত্রী সবুজ চাকমা ক্যামেরা বন্দি করে ছোট এই পাখিটি। ছোট হলেও বেশ নজরকাড়া হলদেভ্রু ফুটকি পাখিটি। ছোট শরীরে হলুদ রঙের আভা। সবুজ ডালের ভেতর থেকে পাখিটির সুর তার উপস্থিতি জানান দেয়। হলদেভ্রু ফুটকির আকার চড়ুই পাখির মতো। সারা বছর এরা দেশে থাকলেও শীতে পাহাড়ের বনে এদের দেখা যায়। তবে চঞ্চল গতির কারণে এদের ক্যামেরাবন্দি করা কষ্টসাধ্য। আলোকচিত্রী সবুজ চাকমা জানান, ‘দিন দিন পাহাড় থেকে বন্যপ্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। ক্রমাগত বন ধ্বংস এবং পাখির আবাসস্থল নষ্ট হচ্ছে। হলদেভ্রু ফুটকির চেনা পাখিও খুব একটা দেখা যায় না। তাই লোকালয়ে পাখি রক্ষায় আরো সচেতন হতে হবে।’

হলদেভ্রু ফুটকি লম্বায় মাত্র ১০-১১ সেমি.। এদের রং জলপাই-সবুজ পিঠ এবং পেট সাদা। বুকের রঙ সাদা। জলপাই পালকে কালো রঙও দেখা যায়। পালকের শেষে সাদা রঙ। এদের চোখ গোলাপি, চোখের রিং ফিকে-সাদাটে, চোখের দু’পাশে কালো রেখা এবং তার উপর লম্বা হলদে ভ্রু রেখা। পালকের দুটি হলদে-সাদা ডোরার মাঝে কালচে জলপাই রং। এদের ঠোঁট কালচে বাদামি। এদের পা ও আঙুল জলপাই-বাদামি এবং পায়ের তলা হলুদ।

এরা সাধারণত গাছের ডালে বাসা বাঁধে। স্ত্রী হলদেভ্রু ফুটকি ২-৪ ডিম দেয়। প্রায় ১১-১৪ দিন তা দেয়ার পর ডিম ফুটে বাচ্চা হয়। বাচ্চা হওয়ার প্রায় ১৫-২০ দিন পর এরা উড়তে শেখে। এরা মূলত কীটপতঙ্গ ও পোকামাকড় খেয়ে বাঁচে।

হলদেভ্রু ফুটকির বৈজ্ঞানিক নাম (Phylloscopus trochiloides) এবং ইংরেজি নাম (Greenish warbler)। বাংলাদেশ ছাড়া দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া এবং ইউরোপের একটি অংশে এদের দেখা যায়। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণবিষয়ক সংস্থা (আইইউসিএন) তালিকায় এটি বাংলাদেশে শঙ্কামুক্ত।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×