গোলাপগঞ্জের বাঘা সোনাপুর বিদ্যালয়

জরাজীর্ণ কক্ষে ১২ বছর পাঠদান

  গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পুরো স্কুলটি টিনশেডে ঘেরা। স্কুলে কক্ষ রয়েছে ৪টি। এর মধ্যে ৩টি ভাঙা কক্ষে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। একটিতে রয়েছে শিক্ষকদের অফিস কক্ষ। বৃষ্টির দিন টিনবেয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর পড়ে ময়লা পানি। স্কুলে টয়লেট না থাকায় পাশের বাড়িতে গিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রাকৃতিক কাজ সারতে হচ্ছে। স্কুলে নেই বিদ্যুৎ। এছাড়া রয়েছে আসবাবপত্রের সংকট। অবহেলিত এ স্কুলটি হচ্ছে সিলেটের গোলাপগঞ্জের ১নং বাঘা সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্কুলটি নামেই সরকারি। প্রতিষ্ঠার ১২ বছর পরও কোনো অবকাঠামো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। বর্তমানে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা চরম ঝুঁকির মধ্যে ক্লাস করছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার বাঘা ইউনিয়নে ২০০৫ সালে স্থানীয় লোকদের অনুদানে ৩১ শতক ভূমির ওপর বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। তখন স্কুলটি টিন দিয়ে ৫টি কক্ষ তৈরি করা হয়। এর মধ্যে ৪টি ছাত্র-ছাত্রী ও একটিতে শিক্ষকদের অফিস কক্ষ রয়েছে। জানা যায়, ৮ বছর পর ২০১৪ সালে স্কুলটি সরকারীকরণ করা হয়। বর্তমানে স্কুলে প্রথম শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত রয়েছে ১২৮ জন ছাত্র-ছাত্রী। মাত্র চারজন শিক্ষক দিয়ে কোনো মতে চলছে এসব শিক্ষার্থীর পাঠদান। কক্ষ সংকটের কারণে একসঙ্গে ক্লাস নিতে গিয়ে গাদাগাদি করে বসতে হয় শিক্ষার্থীদের। স্কুলে টয়লেট না থাকায় প্রাকৃতিক কাজ সারতে হয় পাশের বাড়িতে গিয়ে। বিদ্যুৎ না থাকায় বিশেষ করে গরমের দিনে দুর্ভোগের সীমা থাকে না স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। এলাকার অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, অন্য বিদ্যালয়গুলোয় অবকাঠামো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও শুধু অবহেলিত সোনাপুর সরকারি এ স্কুলটি। এ স্কুলে এখনও সরকারিভাবে কোনো পাকা ভবন নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। তারা বলেন, বিদ্যালয়টি নামেই সরকারি।

এলাকাবাসী এ বিদ্যালয়ে পাকা ভবন নির্মাণ করার জন্য শিক্ষামন্ত্রী নরুল ইসলাম নাহিদসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনায় আশু হস্তক্ষেপ দাবি করেন। স্কুলটি ভাঙাচোরা হওয়ায় অনেক অভিভাবকই এখানে তাদের সন্তানদের স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আবদুল মালিক জানান, স্কুলটি প্রতিষ্ঠার ১২ বছর পরও নিজস্ব একটি পাকা ভবন হয়নি।

 

 

আরও পড়ুন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.