‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে’ উৎসবে রং লেগেছে পাহাড়ে

  বান্দরবান প্রতিনিধি ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বান্দরবানে মারমা সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে’কে ঘিরে রং লেগেছে পাহাড়ে। বৌদ্ধ ধর্মের প্রবক্তা গৌতম বুদ্ধের স্মরণে সোমবারও সাদা, হলুদ, লাল, নীলসহ বিভিন্ন রঙের শত শত ফানুস বাতি উড়ানো হয় আকাশে। রাজবাড়ী মাঠ, কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার, রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার, সর্বজনীন বৌদ্ধ বিহারসহ আশপাশের ক্যায়াংগুলো থেকে উড়ানো শত শত ফানুসে রঙিন হয়ে উঠে বান্দরবানের রাতের আকাশ। ফানুস আর আতসবাজির আলোয় আলোকিত হয় বান্দরবানের রাতের আকাশ। অনেক দূর থেকে যে কারোর দেখেই মনে হতে পারে যেন রং লেগেছে পাহাড়ের আকাশে। ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে উৎসবকে ঘিরে রাজবাড়ী মাঠে আয়োজন করা হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। নাচে-গানে উৎসব মাতালেন মারমা তরুণ-তরুণীরা। নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মারমা শিল্পীগোষ্ঠীর পুরনো শিল্পীদের পরিবেশনাও ছিল মুগ্ধ হওয়ার মতো। এদিকে ওয়াগ্যোয়াই উৎসবের প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে মঙ্গল রথযাত্রা। বিশেষ পদ্ধতিতে বিশাল আকৃতির একটি ময়ূর তৈরি করে তার ওপর একটি বুদ্ধমূর্তি স্থাপন করে মঙ্গল রথটি কেন্দ্রীয় বৌদ্ধবিহার থেকে রশি দিয়ে টেনে শহর ঘোরানো হয়। এ সময় বৌদ্ধ ধর্মের নর-নারীরা মোমবাতি জ্বালিয়ে শ্রদ্ধা জানায় বুদ্ধমূর্তিকে। অপরদিকে পাহাড়ি পল্লীগুলোতে মারমা তরুণ-তরুণী এবং শিশু-কিশোররা সারিবদ্ধভাবে বসে হরেক রকমের পিঠা তৈরির প্রতিযোগিতায় মেতে উঠে। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা জানান, তিন মাস বর্ষাবাস (উপুস) থাকার পর পাহাড়ি মারমা সম্প্রদায় ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে (প্রবারণা পূর্ণিমা) উৎসব পালন করে আসছে বহুকাল ধরে। প্রচলিত আছে বৌদ্ধ ধর্মের প্রবক্তা গৌতম বুদ্ধ এই আশ্বিনী পূর্ণিমায় তার মাথার চুল আকাশে উড়িয়ে দিয়েছিল। তাই আশ্বিনী পূর্ণিমার এই তিথিতে আকাশে উড়ানো হয় ফানুস বাতি। মারমা সম্প্রদায়ের বিশ্বাস, আকাশে উঠার আগেই যে ব্যক্তির ফানুস মাটিতে পড়ে যায় তাকে পাহাড়িরা পাপী লোক হিসেবে চিহ্নিত করে। ওয়াগ্যোয়াই পোয়ে উৎসবে ফানুস উড়িয়ে পাহাড়িরা নিজেদের পাপ মোচন ও পাপী মানুষ খোঁজে বের করে। এ কারণে ফানুস আকাশে উড়ানোর সময় পাহাড়িরা মারমা ভাষায় ‘সাও দো’ ‘সাও দো’ বলতে থাকেন। অর্থাৎ শুভ মুক্তি। উৎসব উদযাপন কমিটির সদস্য কোকো চিং মারমা জানান, উৎসবকে ঘিরে বান্দরবানে ৪ দিনব্যাপী আয়োজনের মধ্যে রয়েছে মঙ্গল রথযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, হাজার প্রদ্বীপ প্রজ্বলন, পিঠা তৈরি প্রতিযোগিতা, ফানুস বাতি উড়ানো, পঞ্চশীল গ্রহণ এবং ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠানমালা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×