চিরসবুজ বনে মালায়ান নাইট হেরন

  সমির মল্লিক, খাগড়াছড়ি ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পাহাড়ে সবুজ বনে নানা বর্ণের পাখিদের বিচরণ। বন উজাড় বা শিকারিদের উৎপাতের কারণে অনেক পাখিই হারিয়ে গেছে। শুধু পাখিই নয়, আবাসস্থলের ধ্বংসের কারণে বিলুপ্ত হয়েছে বন্যপ্রাণী। বাংলাদেশের প্রায় ৭শ’ প্রজাতির পাখি দেখা যায়। এর মধ্যে মাত্র আড়াইশ’ প্রজাতির পাখি পাহাড়ে দেখা যায়। আবার অনেক পাখি পরিযায়ী। এদের সারা বছর দেখা যায় না। আবাসিক পাখির তুলনায় পরিযায়ী পাখির সংখ্যা অনেক কম। পাহাড়ের লোকালয়, ঝোপ-জঙ্গল, পাড়া বন এবং গভীর অরণ্যে নানা প্রজাতির পাখির দেখা মিলে। চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে চিরসবুজ বনে মালায়ান নাইট হেরনের দেখা মিলে। মালায়ান নাইট হেরন সাধারণ একাকি বিচরণ করে। চিরসবুজ বন ছাড়াও আদ্র জলাভূমিতে এদের দেখা যায়। সম্প্রতি খাগড়াছড়ির মেরুং ইউনিয়নের বগাপাড়া এলাকায় পাওয়া যায় মালায়ান নাইট হেরন। খাগড়াছড়ির তরুণ আলোকচিত্রী সবুজ চাকমা ক্যামেরাবন্দি করেছেন নাইট হেরন পাখিটি। দেখতে বেশ নজরকাড়া মালায়ান নাইট হেরন। তিনি জানান, পাহাড়ে এখনও বহু রঙের দুর্লভ পাখি দেখা যায়। তবে আশঙ্কার ব্যাপার হল অনেক পাখিই এখন দেখা মিলে কম। মালায়ান নাইট হেরন পাহাড়ে খুব বেশি দেখা যায় না। নাইট হেরন আমাদের দেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সিলেটে বেশি দেখা যায়। তিনি আরও জানান, পাখি শিকার বন্ধে স্থানীয়দের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা জরুরি।

মালায়ান নাইট হেরন লম্বায় প্রায় ৫১ সেন্টিমিটার। কালচে লাল ও ধূষর দেহ। মালায়ান নাইট হেরনের মাথায় ঝুঁটি রয়েছে। এদের মুখ ও ঘাড় লাল। বুকে ও গলা কালো লম্বা দাগ। মালায়ান নাইট হেরনের চোখ হলুদ। এদের পা হলুদ। চুঞ্চু কালো। অপ্রাপ্ত বয়স্ক পাখির বিশাল ঝুঁটি রয়েছে। মালায়ান নাইট হেনের প্রধান খাবার মাছ, পোকা-মাকড় ও কীটপতঙ্গ। এরা সাধারণত ৩-৮টি পর্যন্ত ডিম দেয়। এদের ইংরেজি নাম Black-crowned night heron, বৈজ্ঞানিক নাম Nycticorax Nycticorax। বাংলাদেশ ছাড়া ভারত, লাওস, কম্বোডিয়া, ভিয়েতমান এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় নাইট মালায়ান হেরন দেখা যায়। এরা দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব ইউরোপ থেকে শীতে অন্যত্র পাড়ি জমায়। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ বিষয়ক সংস্থার (আইইউসিএন) তালিকায় নাইট হেরনকে শঙ্কামুক্ত প্রাণী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×