অভিযোগ করায় ইউনিয়ন দলনেত্রী গ্রেফতার
jugantor
পাঁচবিবিতে আনসার কর্মকর্তার দুর্নীতি
অভিযোগ করায় ইউনিয়ন দলনেত্রী গ্রেফতার

  জয়পুরহাট প্রতিনিধি  

১২ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পাঁচবিবি উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলন করার পরদিনই মুর্শিদা বেগম নামে আনসার ভিডিপির আওলাই ইউনিয়ন দলনেত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাঁচবিবি উপজেলার শন্তাদিগড় গ্রামে শনিবার বিকালে আনসার বাহিনীর একটি দল তাকে তার বাড়ি থেকে মারধর করে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় গ্রামবাসী তাতে বাধা দেন। খবর পেয়ে পরে পাঁচবিবি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখান থেকে ভিডিপি নেত্রী মুর্শিদাকে গ্রেফতার করে।

জানা যায়, পাঁচবিবি উপজেলার আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসান শনিবার বিকালে শন্তাদিগড় গ্রামে দুই নারীসহ ১০-১২ জন আনসার সদস্য পাঠিয়ে দেন। তারা অতর্কিতে মুর্শিদার বাড়ি এসে তাকে ধরার চেষ্টা করলে তিনি বাড়ি থেকে দৌড়ে পালাতে চেষ্টা করেন। পরে ধাওয়া করে মাঠের মধ্যে তাকে জাপটে ধরে মারধর করলে মুর্শিদা চিৎকার করেন। এতে গ্রামবাসী ছুটে এলে আনসার সদস্যরা তাদের জানান, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের নির্দেশে তারা মুর্শিদাকে ধরতে এসেছেন। কিন্তু পুলিশ ছাড়া তাকে ধরে নিয়ে যেতে বাধা দিয়ে গ্রামবাসী গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখতে চাইলে তারা তা দেখাতে পারেনি। এ সময় তাদের নির্যাতন থেকে নিজেকে রক্ষা করতে মুর্শিদা ৯৯৯ নম্বরে কল করেন। ঘটনার প্রায় ঘণ্টাখানেক পর পুলিশ সেখানে গিয়ে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।

সে সময় মুর্শিদা গ্রামাবাসীকে জানান, মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে দালিলিক প্রমাণসহ ওই উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তার বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি তুলে ধরে গত শুক্রবার জয়পুরহাট প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করার জেরে তাকে হেনস্থা করতে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে আনসার পাঠিয়ে দিয়ে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পাঁচবিবি উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, ‘আসামি মুর্শিদাকে ধরতে সহযোগিতার জন্য পুলিশই ওই গ্রামে আনসার সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে গেছে।’ অন্যদিকে পাঁচবিবি থানার ওসি মুনছুর রহমান জানান, ‘উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের দায়ের করা একটি মামলায় মুর্শিদাকে গত শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ তার গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাদের সঙ্গে কোনো আনসার সদস্য ছিলেন না।

উল্লেখ্য, গত শনিবার যুগান্তরে ‘জয়পুরহাটে আনসার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর আগে মুর্শিদা তার বিরুদ্ধে দায়ের করা ওই মামলাকে মিথ্যা দাবি করে এর প্রতিকার চেয়ে জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা আনসার ভিডিপির কমান্ড্যান্ট (জেলা কর্মকর্তা) বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন।

পাঁচবিবিতে আনসার কর্মকর্তার দুর্নীতি

অভিযোগ করায় ইউনিয়ন দলনেত্রী গ্রেফতার

 জয়পুরহাট প্রতিনিধি 
১২ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পাঁচবিবি উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলন করার পরদিনই মুর্শিদা বেগম নামে আনসার ভিডিপির আওলাই ইউনিয়ন দলনেত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাঁচবিবি উপজেলার শন্তাদিগড় গ্রামে শনিবার বিকালে আনসার বাহিনীর একটি দল তাকে তার বাড়ি থেকে মারধর করে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় গ্রামবাসী তাতে বাধা দেন। খবর পেয়ে পরে পাঁচবিবি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখান থেকে ভিডিপি নেত্রী মুর্শিদাকে গ্রেফতার করে।

জানা যায়, পাঁচবিবি উপজেলার আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসান শনিবার বিকালে শন্তাদিগড় গ্রামে দুই নারীসহ ১০-১২ জন আনসার সদস্য পাঠিয়ে দেন। তারা অতর্কিতে মুর্শিদার বাড়ি এসে তাকে ধরার চেষ্টা করলে তিনি বাড়ি থেকে দৌড়ে পালাতে চেষ্টা করেন। পরে ধাওয়া করে মাঠের মধ্যে তাকে জাপটে ধরে মারধর করলে মুর্শিদা চিৎকার করেন। এতে গ্রামবাসী ছুটে এলে আনসার সদস্যরা তাদের জানান, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের নির্দেশে তারা মুর্শিদাকে ধরতে এসেছেন। কিন্তু পুলিশ ছাড়া তাকে ধরে নিয়ে যেতে বাধা দিয়ে গ্রামবাসী গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখতে চাইলে তারা তা দেখাতে পারেনি। এ সময় তাদের নির্যাতন থেকে নিজেকে রক্ষা করতে মুর্শিদা ৯৯৯ নম্বরে কল করেন। ঘটনার প্রায় ঘণ্টাখানেক পর পুলিশ সেখানে গিয়ে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।

সে সময় মুর্শিদা গ্রামাবাসীকে জানান, মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে দালিলিক প্রমাণসহ ওই উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তার বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি তুলে ধরে গত শুক্রবার জয়পুরহাট প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করার জেরে তাকে হেনস্থা করতে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে আনসার পাঠিয়ে দিয়ে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পাঁচবিবি উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, ‘আসামি মুর্শিদাকে ধরতে সহযোগিতার জন্য পুলিশই ওই গ্রামে আনসার সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে গেছে।’ অন্যদিকে পাঁচবিবি থানার ওসি মুনছুর রহমান জানান, ‘উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসানের দায়ের করা একটি মামলায় মুর্শিদাকে গত শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ তার গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাদের সঙ্গে কোনো আনসার সদস্য ছিলেন না।

উল্লেখ্য, গত শনিবার যুগান্তরে ‘জয়পুরহাটে আনসার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর আগে মুর্শিদা তার বিরুদ্ধে দায়ের করা ওই মামলাকে মিথ্যা দাবি করে এর প্রতিকার চেয়ে জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা আনসার ভিডিপির কমান্ড্যান্ট (জেলা কর্মকর্তা) বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন