কেন্দুয়ায় ১০ সন্তানের মা ভিক্ষুক

দায়িত্ব নিলেন সমাজসেবী কল্যাণী হাসান

  কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নেত্রকোনার কেন্দুয়া পৌর শহরে দশ সন্তানের জননী জরিনা বেগম ভিক্ষা করে জীবনের ঘানি টেনে যাচ্ছেন। রোববার দুপুরে ওই মা জরিনা বেগমের সঙ্গে কথা হলে তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার কোনো সন্তান নাই। আমার কেউ নাই। তাই আমার এই বুড়া বয়সে ভিক্ষা করতে হয়। ভিক্ষায় বের হতে না পারলে না খেয়ে থাকতে হয়। অসুখ হলে খাবারই জোটে না। ওষধ তো দূরের কথা। এলাকাবাসী ও বৃদ্ধা জরিনা বেগমের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেন্দুয়া পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের টেংগুরী হরিয়ামালা গ্রামে তার বাড়ি। তিনি ওই গ্রামের মৃত মনছুর আলীর স্ত্রী। তার বয়স সত্তরেরও বেশি। তিনি ৭ ছেলে ও ৩ কন্যাসন্তানের জন্মদাত্রী। দরিদ্র স্বামীর সংসারে অতিকষ্টে সন্তানদের লালনপালন করেছেন জরিনা। স্বামী মনছুর আলী মারা গেছেন বেশ কয়েক বছর আগে। ৩ মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। বিয়ে করেছেন ছেলেরাও। ছেলেরা খুব একটা সচ্ছল না হলেও সবাই উপার্জনশীল। কর্ম করে ভালোই চালাচ্ছেন তাদের পৃথক পৃথক সংসার। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, ৭ ছেলে ও ৩ মেয়ে বেঁচে থাকলেও বৃদ্ধা মা জরিনা বেগমকে গত দুই বছর ধরে চলতে হচ্ছে মানুষের কাছে হাত পেতে। ভিক্ষার টাকায়। ছেলেমেয়ে কিংবা ছেলেদের বউরা কাছাকাছি থাকলেও কেউ খোঁজখবর নেন না অসহায় জরিনার। বরং জরিনা ছেলেদের কাছে কিছু চাইলে বা বলতে গেলে তারা তাকে প্রায়ই মারধরও করে বলে প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে অসহায় বৃদ্ধা জরিনা বেগমকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবিসহ একটি স্ট্যাটাস দেন স্থানীয় ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার আরিফুল ইসলাম সেলিম। বিষয়টি জানতে পেরে শনিবার বিকালে বৃদ্ধার বাড়িতে ছুটে যান উপজেলার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কল্যাণী ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও উপজেলা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কল্যাণী হাসান। কল্যাণীকে কাছে পেয়ে হাউমাউ করে কাঁদতে শুরু করেন জরিনা বেগম। এ সময় কল্যাণী হাসান জরিনার ভরণপোষণের ব্যয়ভার বহন করবেন বলে তাকে আশ্বস্ত করলে বৃদ্ধা জরিনা বেগমের মুখে হাসি ফুটে। এ বিষয়ে কল্যাণী হাসানের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, বৃদ্ধা জরিনা বেগমের ভরণপোষণের সব দায়িত্ব নিতে চাই। তিনি ইচ্ছে করলে আমার বাড়িতেও থাকতে পারেন কিংবা যদি তিনি নিজ গ্রামে থাকতে চান তাহলে সেখানে রেখেই তাকে আমি ভরণপোষণ করব।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত