মাধবপুরে ছেলের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ মায়ের
jugantor
মাধবপুরে ছেলের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ মায়ের

  মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

০৯ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাধবপুরে ছেলের বিরুদ্ধে মাকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী মা হেলেম চান (৯০) বিচার চেয়ে রোববার ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযুক্ত সন্তানের নাম ফরিদ মিয়া। হেলেম চান উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের মৃত ফুল মিয়ার স্ত্রী। জানা যায়, ৩০ বছর আগে স্বামী মারা যাওয়ার পর প্রতিবন্ধী ছেলে জিলু মিয়ার ভিক্ষার টাকায় কোনো রকমে ওই ছেলেকে নিয়ে জীবিকানির্বাহ করে আসছিলেন। কিন্তু তার ছোট ছেলে ফরিদ মিয়া ও তার স্ত্রী প্রায়ই তার প্রতিবন্ধী ছেলের ভিক্ষার টাকা জোরপূর্বক হাতিয়ে নেয় ও অকারণে প্রতিবন্ধী ছেলে এবং বৃদ্ধ মাকে নির্যাতন করে বাড়ি ছাড়া করার হুমকি দেয়। ফরিদ মিয়ার নির্যাতনে তার প্রতিবন্ধী ছেলের একটি চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। রোববার সকালে ফরিদ মিয়া তার মাকে মারধর করে আহত করেন। মা হেলেম চান বলেন আমার দৃষ্টিশক্তি কমে গেছে। শরীরে বিভিন্ন রোগ বাসা বেঁধেছে। ভালো করে চলতে পারি না। কিন্তু এই বয়সে আমার ওপর করা হচ্ছে অত্যাচার। তাই সুবিচার পাওয়ার আশায় ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি। মাধবপুর ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) আয়েশা আক্তার জানান, অভিযুক্ত ছেলের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাধবপুরে ছেলের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ মায়ের

 মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
০৯ মার্চ ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাধবপুরে ছেলের বিরুদ্ধে মাকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী মা হেলেম চান (৯০) বিচার চেয়ে রোববার ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযুক্ত সন্তানের নাম ফরিদ মিয়া। হেলেম চান উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের মৃত ফুল মিয়ার স্ত্রী। জানা যায়, ৩০ বছর আগে স্বামী মারা যাওয়ার পর প্রতিবন্ধী ছেলে জিলু মিয়ার ভিক্ষার টাকায় কোনো রকমে ওই ছেলেকে নিয়ে জীবিকানির্বাহ করে আসছিলেন। কিন্তু তার ছোট ছেলে ফরিদ মিয়া ও তার স্ত্রী প্রায়ই তার প্রতিবন্ধী ছেলের ভিক্ষার টাকা জোরপূর্বক হাতিয়ে নেয় ও অকারণে প্রতিবন্ধী ছেলে এবং বৃদ্ধ মাকে নির্যাতন করে বাড়ি ছাড়া করার হুমকি দেয়। ফরিদ মিয়ার নির্যাতনে তার প্রতিবন্ধী ছেলের একটি চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। রোববার সকালে ফরিদ মিয়া তার মাকে মারধর করে আহত করেন। মা হেলেম চান বলেন আমার দৃষ্টিশক্তি কমে গেছে। শরীরে বিভিন্ন রোগ বাসা বেঁধেছে। ভালো করে চলতে পারি না। কিন্তু এই বয়সে আমার ওপর করা হচ্ছে অত্যাচার। তাই সুবিচার পাওয়ার আশায় ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি। মাধবপুর ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) আয়েশা আক্তার জানান, অভিযুক্ত ছেলের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন