ভেদরগঞ্জে শিক্ষিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষকের অস্বীকার
jugantor
ভেদরগঞ্জে শিক্ষিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষকের অস্বীকার

  ভেদরগঞ্জ (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি  

১১ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করার পর ওই সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ করেছে ওই প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, গত ৫ মার্চ ভেদরগঞ্জ উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকা পার্শ্ববর্তী ২০নং পূর্ব গৈড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর এ অভিযোগ করা হয়। অভিযোগের ঘটনাটি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। বিষয়টি তদন্তের জন্য দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। অভিযোগের পর থেকেই ঘটনাটি অস্বীকার করে আসছিলেন ২০নং পূর্ব গৈড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিম। পরে ওই শিক্ষিকার অভিযোগের বিপরীতে তিনি ১০ মার্চ ওই সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে প্রাথমিকের মহাপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর মানহানির অভিযোগ করেন। প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষিকা বিভিন্ন সময় আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। পরে সে আমাকে যে কোনো উপায়ে বিয়ে করার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়। এখন সে আমার বিরুদ্ধে ধর্ষনের মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছে। কিন্তু শিক্ষিকা বলেন, এ বিষয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাই না।

ভেদরগঞ্জে শিক্ষিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষকের অস্বীকার

 ভেদরগঞ্জ (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি  
১১ মার্চ ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করার পর ওই সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ করেছে ওই প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, গত ৫ মার্চ ভেদরগঞ্জ উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকা পার্শ্ববর্তী ২০নং পূর্ব গৈড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর এ অভিযোগ করা হয়। অভিযোগের ঘটনাটি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। বিষয়টি তদন্তের জন্য দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। অভিযোগের পর থেকেই ঘটনাটি অস্বীকার করে আসছিলেন ২০নং পূর্ব গৈড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিম। পরে ওই শিক্ষিকার অভিযোগের বিপরীতে তিনি ১০ মার্চ ওই সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে প্রাথমিকের মহাপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর মানহানির অভিযোগ করেন। প্রধান শিক্ষক আবদুর রহিম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষিকা বিভিন্ন সময় আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। পরে সে আমাকে যে কোনো উপায়ে বিয়ে করার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়। এখন সে আমার বিরুদ্ধে ধর্ষনের মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছে। কিন্তু শিক্ষিকা বলেন, এ বিষয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাই না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন