রায়পুরে স্বাস্থ্যকেন্দ্রসহ ৩৩ ক্লিনিকে নেই পিপিই

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ২৭ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রায়পুরে ৫০ শয্যার হাসপাতালসহ ৩৩টি কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত চিকিৎসক, নার্সসহ অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) নেই। ফলে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মোকাবেলায় চিকিৎসকসহ জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এর মাঝেই রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সরা। এতে যে কোনো সময় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে ডাক্তার-নার্সসহ চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা আক্রান্ত হতে পারে। পাশাপাশি ভাইরাসটি আরও ছড়িয়ে যেতে পারে। পিপিই নেই স্বীকার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. বাহারুল আলম জানান, সরকার পর্যাপ্ত পরিমাণ পিপিই সরবরাহ না দেয়ায় আতঙ্কের মধ্যে রোগীদের সেবা প্রদান করতে হচ্ছে। এ হাসপাতালে নামমাত্র ২০ বেডের একটি আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হয়েছে। এছাড়া দুটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও ৩১টি কমিউনিটি ক্লিনিকের ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য সরকার বরাদ্দ না দেয়ায় পিপিই দেয়া যাচ্ছে না। অথচ, এই উপজেলায় ২১৫ জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের সচেতন করা হচ্ছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, কোনো রোগী চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে গেলে তাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য কোনো কিট হাসপাতালে আসেনি। এদিকে এ উপজেলায় ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, সৌদি, স্পেন, জার্মান, ফ্রান্স, আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ৬৩৫ জন প্রবাসীর শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে পারেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাকির হোসেন জানান, করোনা পরীক্ষার উপকরণ, পিপিই ও মাস্ক পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত