ভোলায় মুক্তিযোদ্ধার জমি দখলের অভিযোগ

  যুগান্তর রিপোর্ট, ভোলা ১৬ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভোলায় ভুয়া বায়নাপত্র বানিয়ে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধার প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের পৈতৃক সম্পত্তি দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগের তীর চরফ্যাশন পৌরসভার অফিস সহকারী ফখরুদ্দিন ভুট্টো, চরফ্যাশন পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের খলিলুর রহমান বাবুল, একই এলাকার বাসিন্দা ও সোনালী ব্যাংক গজারিয়া শাখায় কর্মরত জহুরুল ইসলাম এবং চরফ্যাশন পৌরসভার প্রকৌশল বিভাগের সার্ভেয়ার হযরত আলীর বিরুদ্ধে। আদালত উক্ত জমির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও তা উপেক্ষা করে দখলকারীরা ভবন নির্মাণের কাজ করে যাচ্ছে। শুক্রবার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা শহরের একটি পত্রিকা অফিসে সংবাদ সম্মেলন অভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি কেফায়েত উল্লাহ নজিব। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, আমার পৈতৃক সম্পত্তি চরফ্যাশন পৌরসভার কুলসুমবাগ মৌজার ১৮২ এস.এ খতিয়ান, ২৪০ ও ৯৭৪ হাল খতিয়ানের ৭৩৮৬, ৭৩৮৭,৭৩৮৮ নং দাগের ৭৭ শতাংশ জমি। যার বাজার মূল্য প্রায় দেড় কোটি টাকা। এই জমি দখলকারীরা জাল জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া বায়নাপত্র বানিয়ে দখল করে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানান, আমি ব্যাংকে চাকরি করি। এ কারণে ব্যাংকের কাছে ওই জমি মরগেজ রেখে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে জমিতে ভবন নির্মাণ করছি। কেফায়েত উল্লাহ নজিব ভোলা বসে অভিযোগ দিয়ে কী লাভ হবে। চরফ্যাশনে তো আসতে হবে! চরফ্যাশন থানার ওসি সামছুল আরেফিন জানান, শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য উভয় পক্ষকে নোটিশ করেছেন। তবে কেফায়েত উল্লাহ নজিব ভোলায় থাকায় রাতের আঁধারে জহিরুল ইসলাম কাজ করে বলে আমরা জানতে পেরেছি।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত