বেড়ায় বাঁধ ভেঙে ফসল পানির নিচে

  পাবনা প্রতিনিধি ০৩ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পাবনার বেড়া উপজেলার রূপপুর ইউনিয়নে ঘোপশিলোন্দায় যমুনা নদীর একটি সংযোগ জোলার বাঁধ ভেঙে আটটি গ্রামের তিনশ’ বিঘা জমির পাকা ও আধাপাকা ধানসহ অন্যান্য ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এ নিয়ে কৃষকেরা দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। ধান কাটার জন্য কৃষকেরা শ্রমিক না পেয়ে অনেকে ধান কাটাতে পারছে না। ফলে পানির নিচে পরে ধানগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কৃষি বিভাগ ও এলাকাবাসী জানান, গত কয়েকদিন যমুনা নদীতে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে রূপপুর ইউনিয়নের ঘোপশিলোন্দা গ্রামের ১২০ মিটার অংশে ভাঙন দেখা দিলে গ্রামবাসী পাউবো কর্তৃপক্ষকে জানান। পাউবো কর্তৃপক্ষ এতে গুরুত্ব দেয়নি। উপায়ান্তর না পেয়ে এলাকাবাসী যমুনা নদীর তীরবর্তী ঘোপশিলোন্দায় একটি জোলার মুখের বাঁধ দিয়ে পানি আটকিয়ে রাখে। যাতে জোলা দিয়ে পানি ঢুকে মাঠের ধান, তিল, পাটসহ অন্যান্য ফসল পানিতে তলিয়ে না যায়। কিন্তু যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় রোববার বিকালে হঠাৎ করে জোলার মুখের বাঁধটি ভেঙে যায়। এতে মুহূর্তের মধ্যে পানি ঢুকে জমিগুলোর ধান, তিল, পাট পানিতে তলিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাঁধ ভেঙে প্রবল বেগে পানি ঢুকে প্রতাপপুর, রানীগ্রাম, রঘুনাথপুর, রাজ্জাকপুর, কৃষ্ণপুর, ঘোপশিলোন্দাসহ আটটি গ্রামের প্রায় তিনশ’ বিঘা জমির ধান, পাট, তিল পানিতে তলিয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক কবির হোসেন জানান, এ মাঠে তিনি ৮ বিঘা জমিতে ধান লাগিয়েছিলেন। শনিবার জোলার মুখের বাঁধ ভেঙে তার সমস্ত জমির ধান তলিয়ে গেছে। কৃষক হাবিবুর রহমান বলেন, এ মাঠে আমার প্রজেক্টে নিজের ৫ বিঘাসহ ১৮ বিঘা জমির বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গেল চোখের পলকে। কিন্তু শ্রমিকের অভাবে ধানগুলো কাটতে পারলাম না। স্থানীয় ইউপি সদস্য আমিরুল ইসলাম বলেন, যমুনা নদীতে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে রোববার হঠাৎ করে জোলার মুখের বাঁধটি ভেঙে আট-দশটি গ্রামের কৃষকের প্রায় তিনশ’ বিঘা জমির ধানসহ অন্যান্য ফসল পানিতে ডুবে গেছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক আজাহার আলী জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ক্ষয়-ক্ষতির জরিপ চলছে। প্রয়োজন হলে সরকারি সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করা হবে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত