এক বছর পর সহপাঠীর নামে মামলা
jugantor
কোটালীপাড়ায় ছাত্র নিখোঁজ
এক বছর পর সহপাঠীর নামে মামলা

  কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি  

৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কোটালীপাড়ায় নাজমুল খান (১৪) নামে এক স্কুলছাত্র নিখোঁজ হওয়ার প্রায় এক বছর পর মামলা হয়েছে। মো. মোস্তাকিন বেপারি (১৪) নামে এক স্কুলছাত্র ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে খুন এবং অপহরণ মামলা দিয়েছে প্রতিপক্ষ। মোস্তাকিন বেপারি তালপুকুরিয়া গ্রামের আব্বাস আলী বেপারির ছেলে ও তালপুকুরিয়া পঞ্চপল্লী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। এদিকে মোস্তাকিন ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাটিকে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মোস্তাকিন বলে, গত বছরের আগস্ট মাসে আমাদের গ্রামের মনির খানের ছেলে নাজমুল খান নিখোঁজ হয়। নামজুল খান আমার সহপাঠী ছিল। শুনেছি, তালপুকুরিয়ার একটি রাস্তা নির্মাণের গাড়িতে উঠে নাজমুল খান উপজেলা সদরে নেমে তার মামাবাড়িতে যায়। এ বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার এলাকায় শালিস বৈঠক হয়েছে। সেখানে ওই গাড়ির ড্রাইভার সজল একই বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, আমরা তিন ভাই নাজমুল খান নিখোঁজ হওয়ার সঙ্গে জড়িত নই। সংবাদ সম্মেলনে মোস্তাকিনের ভাই সুজন বেপারি ও সোহেল বেপারি উপস্থিত ছিলেন। মামলার বাদী মনির খান বলেন, মোস্তাকিন ও আমার ছেলে নাজমুল একসঙ্গে স্কুলে যায়। আমার ধারণা, মোস্তাকিন ও তার ভাইয়েরা আমার ছেলেকে অপহরণ করে খুন করেছে।

কোটালীপাড়ায় ছাত্র নিখোঁজ

এক বছর পর সহপাঠীর নামে মামলা

 কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি 
৩১ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কোটালীপাড়ায় নাজমুল খান (১৪) নামে এক স্কুলছাত্র নিখোঁজ হওয়ার প্রায় এক বছর পর মামলা হয়েছে। মো. মোস্তাকিন বেপারি (১৪) নামে এক স্কুলছাত্র ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে খুন এবং অপহরণ মামলা দিয়েছে প্রতিপক্ষ। মোস্তাকিন বেপারি তালপুকুরিয়া গ্রামের আব্বাস আলী বেপারির ছেলে ও তালপুকুরিয়া পঞ্চপল্লী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। এদিকে মোস্তাকিন ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাটিকে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মোস্তাকিন বলে, গত বছরের আগস্ট মাসে আমাদের গ্রামের মনির খানের ছেলে নাজমুল খান নিখোঁজ হয়। নামজুল খান আমার সহপাঠী ছিল। শুনেছি, তালপুকুরিয়ার একটি রাস্তা নির্মাণের গাড়িতে উঠে নাজমুল খান উপজেলা সদরে নেমে তার মামাবাড়িতে যায়। এ বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার এলাকায় শালিস বৈঠক হয়েছে। সেখানে ওই গাড়ির ড্রাইভার সজল একই বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, আমরা তিন ভাই নাজমুল খান নিখোঁজ হওয়ার সঙ্গে জড়িত নই। সংবাদ সম্মেলনে মোস্তাকিনের ভাই সুজন বেপারি ও সোহেল বেপারি উপস্থিত ছিলেন। মামলার বাদী মনির খান বলেন, মোস্তাকিন ও আমার ছেলে নাজমুল একসঙ্গে স্কুলে যায়। আমার ধারণা, মোস্তাকিন ও তার ভাইয়েরা আমার ছেলেকে অপহরণ করে খুন করেছে।