বড়াইগ্রামে ৫শ’ বিঘা জমিতে জলাবদ্ধতা
jugantor
সরকারি খালে বাঁধ
বড়াইগ্রামে ৫শ’ বিঘা জমিতে জলাবদ্ধতা

  বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি  

০৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড়াইগ্রামের গোপালপুর ইউনিয়নের আস্তিকপাড়া গ্রামে সরকারিভাবে কাটা একটি খালে অবৈধভাবে বাঁধ দেয়া হয়েছে। এতে আস্তিকপাড়া বিলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে প্রায় তিনশ’ বিঘা জমিতে রোপণ করা ধানের চারা ডুবে গেছে। এছাড়া পানির নিচে থাকায় আরও দুইশ’ বিঘা জমিতে ধানের চারা রোপণ সম্ভব হচ্ছে না। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা সোমবার ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। স্থানীয়রা জানান, প্রায় ৫০ বছর আগে আস্তিকপাড়া বিলের পানি নিষ্কাশন করে পাশের কমলা নদীতে নিতে সরকারিভাবে এক কিলোমিটার দীর্ঘ একটি খাল খনন করা হয়। এতে মুলাডুলি, রাজাপুর, গোপালপুর, রাওতা ও আস্তিকপাড়া গ্রামের কৃষকরা বিলের প্রায় পাঁচশ’ বিঘা জমিতে সারা বছর নির্বিঘ্নে চাষাবাদ করতে পারতেন। কিন্তু ২০ দিন আগে আস্তিকপাড়া গ্রামের মৃত ছফির শেখের ছেলে ফরিদ শেখ ও নিজাম শেখ তাদের বাড়ির সামনে বাঁধ দিয়ে খালের পানি আটকে দেন। বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, ফরিদ শেখের বাড়ির সামনে বাঁশ, কাঠ ও টিন দিয়ে বাঁধ দিয়ে পানি আটকে রাখা হয়েছে। এ ব্যাপারে ফরিদ শেখ জানান, বাড়ির সামনে খালের জমি তাদের। তাই, এদিক দিয়ে তিনি পানি নামতে দেবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস সালাম খান জানান, এ ঘটনায় স্থানীয় কৃষকরা খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। বিষয়টির সমাধান দরকার।

সরকারি খালে বাঁধ

বড়াইগ্রামে ৫শ’ বিঘা জমিতে জলাবদ্ধতা

 বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি 
০৭ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড়াইগ্রামের গোপালপুর ইউনিয়নের আস্তিকপাড়া গ্রামে সরকারিভাবে কাটা একটি খালে অবৈধভাবে বাঁধ দেয়া হয়েছে। এতে আস্তিকপাড়া বিলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে প্রায় তিনশ’ বিঘা জমিতে রোপণ করা ধানের চারা ডুবে গেছে। এছাড়া পানির নিচে থাকায় আরও দুইশ’ বিঘা জমিতে ধানের চারা রোপণ সম্ভব হচ্ছে না। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা সোমবার ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। স্থানীয়রা জানান, প্রায় ৫০ বছর আগে আস্তিকপাড়া বিলের পানি নিষ্কাশন করে পাশের কমলা নদীতে নিতে সরকারিভাবে এক কিলোমিটার দীর্ঘ একটি খাল খনন করা হয়। এতে মুলাডুলি, রাজাপুর, গোপালপুর, রাওতা ও আস্তিকপাড়া গ্রামের কৃষকরা বিলের প্রায় পাঁচশ’ বিঘা জমিতে সারা বছর নির্বিঘ্নে চাষাবাদ করতে পারতেন। কিন্তু ২০ দিন আগে আস্তিকপাড়া গ্রামের মৃত ছফির শেখের ছেলে ফরিদ শেখ ও নিজাম শেখ তাদের বাড়ির সামনে বাঁধ দিয়ে খালের পানি আটকে দেন। বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, ফরিদ শেখের বাড়ির সামনে বাঁশ, কাঠ ও টিন দিয়ে বাঁধ দিয়ে পানি আটকে রাখা হয়েছে। এ ব্যাপারে ফরিদ শেখ জানান, বাড়ির সামনে খালের জমি তাদের। তাই, এদিক দিয়ে তিনি পানি নামতে দেবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস সালাম খান জানান, এ ঘটনায় স্থানীয় কৃষকরা খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। বিষয়টির সমাধান দরকার।