হামলা সংঘর্ষে মাদারীপুর ও মহম্মদপুরে ৪১ ঘরবাড়ি দোকান ভাংচুর
jugantor
হামলা সংঘর্ষে মাদারীপুর ও মহম্মদপুরে ৪১ ঘরবাড়ি দোকান ভাংচুর

  টেকেরহাট (মাদারীপুর) ও মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি  

১৩ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুর পৌরসভার পাকদী এলাকায় মঙ্গলবার রাতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে ৩০টি ঘরবাড়ি ও দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সদর মডেল থানা পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে। বুধবার দুপুরে সদর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

পুলিশ, আহত, এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে মাদারীপুর পৌরসভার পাকদী এলাকার তুষার সরদারের সঙ্গে পাশের থানতলী এলাকার মিঠুন খলিফার কথা কাটাকাটি হয়। পরে দু’জনের মধ্যে ধস্তাধস্তি ঘটনা ঘটে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দু’পক্ষের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে আহত হয় অন্তত ১০। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। দু’জনকে আটক করা হয়েছে।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুল ইসলাম মিঞা জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সংঘর্ষের সূত্রপাত। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে মাগুরার মহম্মদপুরে একটি শালিক পাখিকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে ১০ জন আহত এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ১১টি বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার পলাশবাড়িয়া ইউনিয়নের বেথুড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় একজনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে এবং আরও একজনকে মহম্মদপুর স্বাস্থ্য কমপেপ্লক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বেথুড়ি গ্রামের ভুলু মোল্যার ছেলে তপন মোল্যা স্থানীয় বাজারের যাওয়ার সময় পাকা রাস্তার ওপর থেকে একটি শালিক পাখি ধরে বাড়িতে নিয়ে আসে। ঘটনার দিন সকালে একই গ্রামের আজাদ মোল্যার ছেলে আলামিন তপন মোল্যার বাড়িতে গিয়ে শালিক পাখিটি নিজের পোষা পাখি বলে দাবি করে। আলামিন পাখিটি দাবি করলে তপনের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে দু’জনের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে আলামিন সমর্থক ও তপন সর্মথকরা সংগঠিত হয়ে দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মহম্মদপুর থানার ওসি তারক বিশ্বাস ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

হামলা সংঘর্ষে মাদারীপুর ও মহম্মদপুরে ৪১ ঘরবাড়ি দোকান ভাংচুর

 টেকেরহাট (মাদারীপুর) ও মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি 
১৩ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুর পৌরসভার পাকদী এলাকায় মঙ্গলবার রাতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে ৩০টি ঘরবাড়ি ও দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সদর মডেল থানা পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে। বুধবার দুপুরে সদর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

পুলিশ, আহত, এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে মাদারীপুর পৌরসভার পাকদী এলাকার তুষার সরদারের সঙ্গে পাশের থানতলী এলাকার মিঠুন খলিফার কথা কাটাকাটি হয়। পরে দু’জনের মধ্যে ধস্তাধস্তি ঘটনা ঘটে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দু’পক্ষের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে আহত হয় অন্তত ১০। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। দু’জনকে আটক করা হয়েছে।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুল ইসলাম মিঞা জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সংঘর্ষের সূত্রপাত। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে মাগুরার মহম্মদপুরে একটি শালিক পাখিকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে ১০ জন আহত এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ১১টি বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার পলাশবাড়িয়া ইউনিয়নের বেথুড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় একজনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে এবং আরও একজনকে মহম্মদপুর স্বাস্থ্য কমপেপ্লক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বেথুড়ি গ্রামের ভুলু মোল্যার ছেলে তপন মোল্যা স্থানীয় বাজারের যাওয়ার সময় পাকা রাস্তার ওপর থেকে একটি শালিক পাখি ধরে বাড়িতে নিয়ে আসে। ঘটনার দিন সকালে একই গ্রামের আজাদ মোল্যার ছেলে আলামিন তপন মোল্যার বাড়িতে গিয়ে শালিক পাখিটি নিজের পোষা পাখি বলে দাবি করে। আলামিন পাখিটি দাবি করলে তপনের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে দু’জনের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে আলামিন সমর্থক ও তপন সর্মথকরা সংগঠিত হয়ে দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মহম্মদপুর থানার ওসি তারক বিশ্বাস ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।