মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ নেতাদের কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ
jugantor
মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচন
মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ নেতাদের কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ

  মৌলভীবাজার প্রতিনিধি  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ নেতাদের কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের ৭-৮ জন নেতা কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তারা সবাই ১০ দিন ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। আবার কয়েকজন প্রার্থী সরাসরি লন্ডন থেকে ঢাকায় এসে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে জোর তদবির শুরু করেছেন।

এদিকে বিএনপি, জাসদ, খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যজোট ও জামায়াতসহ অন্য দলের প্রার্থীদের প্রচারণায় দেখা যায়নি। এসব দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি না, তা এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নয়।

এ প্রতিনিধির সঙ্গে এসব দলের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা হলে তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণের অগ্রহ দেখাননি। তারা বলেন, দেশের কোথাও এখন নিরেপক্ষ ভোট হয়নি। রাতেই ভোট হয়ে যায়। যার কারণে নির্বাচন নিয়ে তাদের কোনো আগ্রহ নেই।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ক্ষমতাসীন দলের দলীয় মনোনয়নের ক্ষেত্রে ক্লিন ইমেজ ও দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে। দুর্নীতিবাজ কোনো নেতাকেই এই পদে মনোনয়ন দেয়া হবে না।

জানা যায়, জেলার ২ জন প্রভাবশালী নেতা ও ঠিকাদার মনোনয়ন পেতে মরিয়া। কিন্তু জেলাব্যাপী তাদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি নৈতিবাচক ধারণা রয়েছে। দলীয় মনোনয়ন পেতে এটাই হয়তো তাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াবে।

আ’লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলীর সহধর্মিণী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসীন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিছবাহুর রহমান, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, গেল জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী এমএ রহিম (সিআইপি), মহকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও জাতীয় পরিষদ সদস্য মো. ফিরোজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও পুলিশের সাবেক এআইজি বজলুল করিম, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুহিবুর রহমান তরফদার, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান বাবুল, জেলা যুবলীগের সভাপতি মো. নাহিদ আহমদ ও আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য সোহেল আহমদ।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২৩ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ধার্য করা হয়েছে।

২৬ তারিখ যাচাই-বাছাই, ৩ অক্টোবর প্রত্যাহার এবং ৪ অক্টোবর প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। ২০ অক্টোবর ভোট গ্রহণ। ৭টি উপজেলার ৬৭টি ইউনিয়ন, ৫টি পৌরসভা ও ৭টি উপজেলা মিলে ৯৪৩ জন নির্বাচকমণ্ডলীর সদস্য (ভোটার) ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচন

মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ নেতাদের কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ

 মৌলভীবাজার প্রতিনিধি 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ নেতাদের কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ
ফাইল ছবি

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের ৭-৮ জন নেতা কেন্দ্রে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তারা সবাই ১০ দিন ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। আবার কয়েকজন প্রার্থী সরাসরি লন্ডন থেকে ঢাকায় এসে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে জোর তদবির শুরু করেছেন।

এদিকে বিএনপি, জাসদ, খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যজোট ও জামায়াতসহ অন্য দলের প্রার্থীদের প্রচারণায় দেখা যায়নি। এসব দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি না, তা এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নয়।

এ প্রতিনিধির সঙ্গে এসব দলের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা হলে তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণের অগ্রহ দেখাননি। তারা বলেন, দেশের কোথাও এখন নিরেপক্ষ ভোট হয়নি। রাতেই ভোট হয়ে যায়। যার কারণে নির্বাচন নিয়ে তাদের কোনো আগ্রহ নেই।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ক্ষমতাসীন দলের দলীয় মনোনয়নের ক্ষেত্রে ক্লিন ইমেজ ও দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে। দুর্নীতিবাজ কোনো নেতাকেই এই পদে মনোনয়ন দেয়া হবে না।

জানা যায়, জেলার ২ জন প্রভাবশালী নেতা ও ঠিকাদার মনোনয়ন পেতে মরিয়া। কিন্তু জেলাব্যাপী তাদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি নৈতিবাচক ধারণা রয়েছে। দলীয় মনোনয়ন পেতে এটাই হয়তো তাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াবে।

আ’লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলীর সহধর্মিণী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসীন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিছবাহুর রহমান, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, গেল জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী এমএ রহিম (সিআইপি), মহকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও জাতীয় পরিষদ সদস্য মো. ফিরোজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও পুলিশের সাবেক এআইজি বজলুল করিম, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুহিবুর রহমান তরফদার, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান বাবুল, জেলা যুবলীগের সভাপতি মো. নাহিদ আহমদ ও আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য সোহেল আহমদ।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২৩ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ধার্য করা হয়েছে।

২৬ তারিখ যাচাই-বাছাই, ৩ অক্টোবর প্রত্যাহার এবং ৪ অক্টোবর প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। ২০ অক্টোবর ভোট গ্রহণ। ৭টি উপজেলার ৬৭টি ইউনিয়ন, ৫টি পৌরসভা ও ৭টি উপজেলা মিলে ৯৪৩ জন নির্বাচকমণ্ডলীর সদস্য (ভোটার) ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।