বিদেশে থেকেও দুই শিক্ষক স্বপদে বহাল
jugantor
রামগঞ্জে খাতুনে জান্নাত মহিলা দাখিল মাদ্রাসা
বিদেশে থেকেও দুই শিক্ষক স্বপদে বহাল

  রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রামগঞ্জ উপজেলার সিরন্দী গ্রামের খাতুনে জান্নাত মহিলা দাখিল মাদ্রাসার আরবি শিক্ষক মাওলানা আতাউর রহমান ও ইংরেজি শিক্ষক রেশমা আক্তার গত দুই বছর থেকে আমেরিকা ও সুইডেনে বসবাস করলেও তারা ওই মাদ্রাসায় এখনও স্বপদে বহাল রয়েছেন। মাদ্রাসা সুপার মাওলানা মুরাদ হোসেন ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোনাজের হোসেনকে ম্যানেজ করেই ওই দুই শিক্ষক স্বপদে বহাল রয়েছেন বলে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা ২০ সেপ্টেম্বর সকালে মাদ্রাসার সামনে উপস্থিত হয়ে বিক্ষোভ শেষে এসব অভিযোগ করেন। জানা যায়, ১৯৯০ সালে গ্রামের লোকজন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাঁশ, কাঠ ও টিন দিয়ে খাতুনে জান্নাত মহিলা মাদ্রাসাটি স্থাপন করেন। সেই থেকে ধারদেনা করে পরিচালিত হওয়ার এক পর্যায়ে সরকারি এমপিওভুক্ত হয়। এরপর মাওলানা মুরাদ হোসেন সুপার হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে মাদ্রাসাটিতে বারবার সরকারি বরাদ্দ পাওয়ার পরও চরম অনিয়মের কারণে প্রতিষ্ঠানটিতে উন্নয়নের কোনো ছোঁয়া লাগেনি। এ ব্যাপারে মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুরাদ হোসেন বলেন, ‘ওই দুই শিক্ষক করোনাকালীন, মাতৃত্বকালীন, মেডিকেলসহ সব ধরনের ছুটিতে রয়েছেন। হুট করে কোনো শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা সম্ভব নয়। গত এক মাস আগে থেকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদের বেতন-ভাতা স্থগিত করা হয়েছে। তাছাড়া ওই দুই শিক্ষককে তড়িঘড়ি করে কারণ দর্শানোর নোটিশ করলে তারা আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন। তাই একটু ভেবেচিন্তে কাজ করতে হবে।’ রামগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোনাজের হোসেন বলেন, ‘আমার জানামতে শিক্ষকরা একটানা তিন বছর ধরে ছুটি নিতে পারবেন। তবে ওই সময়ের ভেতর কর্মস্থলে যোগদান করলে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু ছুটিকালীন কোনো বেতন-ভাতা নেয়া যাবে না।’

রামগঞ্জে খাতুনে জান্নাত মহিলা দাখিল মাদ্রাসা

বিদেশে থেকেও দুই শিক্ষক স্বপদে বহাল

 রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রামগঞ্জ উপজেলার সিরন্দী গ্রামের খাতুনে জান্নাত মহিলা দাখিল মাদ্রাসার আরবি শিক্ষক মাওলানা আতাউর রহমান ও ইংরেজি শিক্ষক রেশমা আক্তার গত দুই বছর থেকে আমেরিকা ও সুইডেনে বসবাস করলেও তারা ওই মাদ্রাসায় এখনও স্বপদে বহাল রয়েছেন। মাদ্রাসা সুপার মাওলানা মুরাদ হোসেন ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোনাজের হোসেনকে ম্যানেজ করেই ওই দুই শিক্ষক স্বপদে বহাল রয়েছেন বলে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা ২০ সেপ্টেম্বর সকালে মাদ্রাসার সামনে উপস্থিত হয়ে বিক্ষোভ শেষে এসব অভিযোগ করেন। জানা যায়, ১৯৯০ সালে গ্রামের লোকজন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাঁশ, কাঠ ও টিন দিয়ে খাতুনে জান্নাত মহিলা মাদ্রাসাটি স্থাপন করেন। সেই থেকে ধারদেনা করে পরিচালিত হওয়ার এক পর্যায়ে সরকারি এমপিওভুক্ত হয়। এরপর মাওলানা মুরাদ হোসেন সুপার হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে মাদ্রাসাটিতে বারবার সরকারি বরাদ্দ পাওয়ার পরও চরম অনিয়মের কারণে প্রতিষ্ঠানটিতে উন্নয়নের কোনো ছোঁয়া লাগেনি। এ ব্যাপারে মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুরাদ হোসেন বলেন, ‘ওই দুই শিক্ষক করোনাকালীন, মাতৃত্বকালীন, মেডিকেলসহ সব ধরনের ছুটিতে রয়েছেন। হুট করে কোনো শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা সম্ভব নয়। গত এক মাস আগে থেকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদের বেতন-ভাতা স্থগিত করা হয়েছে। তাছাড়া ওই দুই শিক্ষককে তড়িঘড়ি করে কারণ দর্শানোর নোটিশ করলে তারা আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন। তাই একটু ভেবেচিন্তে কাজ করতে হবে।’ রামগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোনাজের হোসেন বলেন, ‘আমার জানামতে শিক্ষকরা একটানা তিন বছর ধরে ছুটি নিতে পারবেন। তবে ওই সময়ের ভেতর কর্মস্থলে যোগদান করলে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু ছুটিকালীন কোনো বেতন-ভাতা নেয়া যাবে না।’