বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল
jugantor
বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল
গৌরনদীতে চলাচলে চরম ভোগান্তি

  মো. আসাদুজ্জামান রিপন, গৌরনদী (বরিশাল)  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল

সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কের মধ্যকার বড় বড় গর্তে পানি জমে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ বাটাজোর-শরিকল সড়কে জলাশয়ের সৃষ্টি হচ্ছে।

ছয় কিলোমিটারের পুরো সড়কটি জুড়ে ব্যাপক খানাখন্দের কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোটবড় অসংখ্য দুর্ঘটনা। বন্ধ হয়ে গেছে এ সড়কের ওপর নির্ভরশীল চলাচলকারী লোকাল বাস।

ব্যাপক খানাখন্দের কারণে ইতোমধ্যে এ সড়কে ছোট ছোট যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে কয়েকশ’ পরিবারের সদস্যরা বেকার হয়ে পড়েছেন।

দীর্ঘদিন থেকে প্রতিনিয়ত এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ফলে ভুক্তভোগী এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জরুরিভিত্তিতে এ সড়কটি সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-দফতর সম্পাদক শরিকল গ্রামের নাজিম উদ্দিন টিপু, শাহাজিরা গ্রামের সাংবাদিক শামীম মীর চন্দ্রহার গ্রামের শিক্ষক কেএম সানাউল্লাহ হোসেন, শিক্ষক কেএম রিয়াজউদ্দিনসহ একাধিক বাসিন্দারা একই কথা বলেন।

তারা জানান, প্রতিদিন এ সড়কটি দিয়ে গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর, শরিকল, নলচিড়া ইউনিয়ন এবং বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর, নাজিরপুর ইউনিয়নসহ কয়েক হাজার বাসিন্দারা চলাচল করে থাকেন।

বরিশাল জেলা শহর ও গৌরনদী উপজেলা সদরে যাতায়াতের জন্য তাদের একমাত্র ভরসাই হচ্ছে বাটাজোর-শরিকল সড়ক।

এ সড়কের ওপর নির্ভর করে দীর্ঘদিন থেকে এসব এলাকার লক্ষাধিক বাসিন্দাদের যাতায়াতের সুবিধার্থে নিয়মিত বাস চলাচল করে আসছিল। এ সড়কে যানবাহন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ায় গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে লোকাস বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

এছাড়াও ছোট ছোট যানবাহনে যাত্রী ও বিভিন্ন ধরনের মালামাল পরিবহন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন এসব এলাকার শত শত পরিবারের সদস্যরা।

শরিকল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর হাসান মিলন বলেন, ৪ বছর পূর্বে জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটি সংস্কারের সময় স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের এক প্রভাবশালী ঠিকাদার নিুমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় কয়েকদিনের মধ্যেই পুরো সড়কটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

পরবর্তীতে আর কোনো সংস্কার কাজ না হওয়ায় পিচ উঠে গিয়ে সড়কের মধ্যে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে পুরো সড়কটি দিয়ে যানবাহন তো দূরের কথা জনসাধারণের পায়ে হেঁটে চলাচলই অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

ভুক্তভোগী শরিকল, নলচিড়া, বাটাজোর, আগরপুর ও নাজিরপুর ইউনিয়নবাসী জরুরিভিত্তিতে জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

গৌরনদী উপজেলা এলজিইডি অফিসের প্রকৌশলী মো. অহিদুর রহমান এই সড়কের বেহাল দশার কথা স্বীকার করে বলেন, এলজিইডির অর্থায়নে রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পের আওতায় সড়কটি সংস্কারের জন্য আগামী মাসে টেন্ডার আহ্বান করা হচ্ছে।

টেন্ডার অনুমোদন হলে আগামী ডিসেম্বর নাগাদ সংস্কার কাজ শুরু হবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল

গৌরনদীতে চলাচলে চরম ভোগান্তি
 মো. আসাদুজ্জামান রিপন, গৌরনদী (বরিশাল) 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল
ছবি: যুগান্তর

সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কের মধ্যকার বড় বড় গর্তে পানি জমে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ বাটাজোর-শরিকল সড়কে জলাশয়ের সৃষ্টি হচ্ছে।

ছয় কিলোমিটারের পুরো সড়কটি জুড়ে ব্যাপক খানাখন্দের কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোটবড় অসংখ্য দুর্ঘটনা। বন্ধ হয়ে গেছে এ সড়কের ওপর নির্ভরশীল চলাচলকারী লোকাল বাস।

ব্যাপক খানাখন্দের কারণে ইতোমধ্যে এ সড়কে ছোট ছোট যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে কয়েকশ’ পরিবারের সদস্যরা বেকার হয়ে পড়েছেন।

দীর্ঘদিন থেকে প্রতিনিয়ত এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ফলে ভুক্তভোগী এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জরুরিভিত্তিতে এ সড়কটি সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-দফতর সম্পাদক শরিকল গ্রামের নাজিম উদ্দিন টিপু, শাহাজিরা গ্রামের সাংবাদিক শামীম মীর চন্দ্রহার গ্রামের শিক্ষক কেএম সানাউল্লাহ হোসেন, শিক্ষক কেএম রিয়াজউদ্দিনসহ একাধিক বাসিন্দারা একই কথা বলেন।

তারা জানান, প্রতিদিন এ সড়কটি দিয়ে গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর, শরিকল, নলচিড়া ইউনিয়ন এবং বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর, নাজিরপুর ইউনিয়নসহ কয়েক হাজার বাসিন্দারা চলাচল করে থাকেন।

বরিশাল জেলা শহর ও গৌরনদী উপজেলা সদরে যাতায়াতের জন্য তাদের একমাত্র ভরসাই হচ্ছে বাটাজোর-শরিকল সড়ক।

এ সড়কের ওপর নির্ভর করে দীর্ঘদিন থেকে এসব এলাকার লক্ষাধিক বাসিন্দাদের যাতায়াতের সুবিধার্থে নিয়মিত বাস চলাচল করে আসছিল। এ সড়কে যানবাহন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ায় গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে লোকাস বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

এছাড়াও ছোট ছোট যানবাহনে যাত্রী ও বিভিন্ন ধরনের মালামাল পরিবহন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন এসব এলাকার শত শত পরিবারের সদস্যরা।

শরিকল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর হাসান মিলন বলেন, ৪ বছর পূর্বে জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটি সংস্কারের সময় স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের এক প্রভাবশালী ঠিকাদার নিুমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় কয়েকদিনের মধ্যেই পুরো সড়কটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

পরবর্তীতে আর কোনো সংস্কার কাজ না হওয়ায় পিচ উঠে গিয়ে সড়কের মধ্যে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে পুরো সড়কটি দিয়ে যানবাহন তো দূরের কথা জনসাধারণের পায়ে হেঁটে চলাচলই অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

ভুক্তভোগী শরিকল, নলচিড়া, বাটাজোর, আগরপুর ও নাজিরপুর ইউনিয়নবাসী জরুরিভিত্তিতে জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

গৌরনদী উপজেলা এলজিইডি অফিসের প্রকৌশলী মো. অহিদুর রহমান এই সড়কের বেহাল দশার কথা স্বীকার করে বলেন, এলজিইডির অর্থায়নে রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পের আওতায় সড়কটি সংস্কারের জন্য আগামী মাসে টেন্ডার আহ্বান করা হচ্ছে।

টেন্ডার অনুমোদন হলে আগামী ডিসেম্বর নাগাদ সংস্কার কাজ শুরু হবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।